DSLR বা আপনার ডিজিটাল ক্যামেরায় কোন ফরমেটে সুট করবেন, RAW নাকি JPEG?

0 80

দিন যত যাচ্ছে প্রযুক্তি আধুনিক পণ্যগুলো আমাদের কাছে তত সহজলভ্য করে দিচ্ছে। ফ্লিম ক্যামেরার সময়ে গুটি কয়েক মানুষের কাছে ক্যামেরা ছিল, কেননা সেই সময়ে ফটোগ্রাফি ছিল বেশ ব্যায়বহুল। কিন্তু বর্তমানে আমাদের সবার কাছেই ক্যামেরার এক্সেস আছে। আমাদের মোবাইলে থাকা ক্যামেরা দিয়ে আমরা মুহুরতেই ছবি তুলে পোষ্ট করে দিতে পারি আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ার ওয়ালে। বেশ মজার তাই না?

সেই ডিজিটাল ফটোগ্রাফির হাত ধরেই একটি প্রশ্ন চলে আসে, আমরা কোন ফরমেটে আমাদের ক্যামেরায় ছবি তুলব? নিচের ভিডিও থেকে বিস্তারিত ভিসুয়ালি দেখে নিতে পারেন।

আপনি যদি একটি DSLR ক্যামেরার মালিক হয়ে থাকেন অথবা যদি ফটোগ্রাফির সাথে সম্পৃক্ত থাকেন তাহলে নিশ্চয়ই জানেন DSLR ক্যামেরায় মূলত দুই ধরনের ফরমেটে ছবি তোলা যায়। একটি হল RAW ফরমেট এবং অন্যটি হল JEPG বা কম্প্রেসড ফরমেট। অনেক Point and Shoot ক্যামেরায় ইদানীং Raw ফরমেটে ছবি তোলা যায়। এখন প্রশ্ন হল আমি কোন ফরমেটে ছবি তুলব? এর উত্তরে আমাদের প্রথমেই জানতে হবে RAW এবং JPEG ফরমেট কি সে সম্পর্কে।

আগের দিনের ফ্লিম ক্যামেরায় ফ্লিম থাকত। আমরা যখন ছবি তুলতাম তখন ক্যামেরার লেন্সের মাধ্যমে যে আলো আসত সেটি ফ্লিমে গিয়ে পড়ত এবং সেখানে একটি কেমিক্যাল রিয়েকশন হত। সে ফ্লিমটি আমরা ডেভেলপ করে আমরা নেগিটিভ পেতাম। পরবর্তীতে সে নেগিটভ থেকে আমরা ছবি প্রিন্ট করতে পারতাম।

কিন্তু বর্তমানের ডিজিটাল ক্যামেরাগুলোতে ফ্লিম এর যায়গায় থাকে একটি সেন্সর। যখন আলো এসে সে সেন্সরে পরে তখন সেন্সর ওই ডাটাগুলো ক্যামেরার প্রসেসরে পাঁঠায়। এখন আপনি যদি RAW ফরমেটে সুট করেন সে ক্ষেত্রে প্রসেসর ডাটা গুলো অপরিবর্তিত রেখে নির্দিষ্ট ফরমেটে আপনার মেমরি কার্ডে সেভ করে।

NIKON ক্যামেরার জন্য RAW ফরমেট এক্সটেনশন হল NEF এবং CANON ক্যামেরার জন্য RAW ফরমেট এক্সটেনশন হল CRF. যেহেতু RAW ফরমেটে ছবির ডাটাগুলো কোন ধরনের মোডিফিকেশন ছাড়া সেভ হয় তাই এই ফরমেটে ছবিতে সর্বচ্চ পরিমাণ ইনফরমেশন সংরক্ষিত থাকে। টিউন প্রোডাকশনে আপনি অনায়শে আপনার ইচ্ছা অনুযায়ী ছবিতে Shadow, Highlight, color tone, white balance ইতাদি পরিবর্তন করতে পারবেন।

অন্য দিকে JPEG ফরমেটে ছবি তুললে ক্যামেরা সেন্সরের ডাটা গুলো প্রসেসরে মাধ্যমে নির্দিষ্ট এলগরিদম অনুযায়ী কমপ্রেস করে তুলনামূলক ছোট ফাইল আকারে সেভ করবে। যেহেতু JPEG ফরমেটের ছবি অলরেডি প্রসেস করা তাই টিউন প্রোডাকশনে আপনি RAW ফরমেটের মত স্বাধীনতা পাবেন না।

একটা সিম্পেল ব্যাপার চিন্তা করুন, আপনি হলেন ফটোগ্রাফার তাই আপনি ঠিক করবেন আপনার ছবিটি দেখতে কেমন হবে। কোথায় Highlight এর পরিমাণ কতটুকু হবে, কোথায় Shadow এর পরিমাণ কেমন হবে। নিশ্চয়ই ক্যামেরার প্রসেসর আপনার ব্রেইন ও কম্পিউটারএর প্রসেসর থেকে বেশী পাওয়ারফুল না। তবে Raw ফরমেটে ছবি তোলার ডাউন সাইড হল ছবির সাইজ অনেক বড় হয় (১৫-২০ এমবি), অন্যদিকে JPEG ফরমেটের ছবির সাইজ অনেক ছোট হয় (৪-৫ এমবি)। আপনি নর্মাল ইউজার হয়ে থাকলে এবং যদি আপনি ছবি পোষ্ট প্রসেসিং না করে থাকেন সেক্ষেত্রে JPEG ফরমেট আপনার জন্য বেস্ট। কিন্তু আপনি যদি প্রফেশনাল ইউজার হয়ে থাকেন, যদি আপনি আপনার তোলা ছবি থেকে বেস্ট রেজাল্ট চান RAW ফরমেট আপনার জন্য।

ছোট পরিসরে ব্যাপারটা বোঝানর চেষ্টা করলাম। আজ পর্যন্ত তাহলে, পরবর্তীতে অন্য কোন বিসয় নিয়ে হাজির হব। সে পর্যন্ত সবাই ভাল থাকবেন।

ইউটিউবে আমি ও ফেসবুকে আমি।

Leave A Reply