স্মার্টফোন এর ডুয়াল ক্যামেরা – এর সূচনা, ব্যবহার ও সুবিধা (বিস্তারিত)

0 486

আজ কথা হবে স্মার্টফোনের ডুয়াল ক্যামেরার ব্যাপার নিয়ে।আমরা কথা বলব ঠিক কবে থেকে এই ডুয়াল ক্যামেরার সূচনা,এর ব্যবহার এবং সুবিধা নিয়ে।বর্তমানে আমরা যদি LG G5, HTC M8,Huawai P9 এমনকি Apple Iphone 7+ এর কথা বলি তবে আমরা সেখানে দেখব ডুয়াল ক্যামেরা। তো আসলে আমাদের প্রশ্ন হল এই ডুয়াল ক্যামেরা কি?  বা এর কাজ কি?

ডুয়াল ক্যামেরার সূচনা :

আমরা যদি ৫ বছর পেছনে অর্থাত ২০১১ সালো ফিরে যাই তবে দেখা যায় সর্বপ্রথম ডুয়াল ক্যামেরার ফোন লঞ্চ করে LG এবং HTC এদের মধ্যে LG Optimus 3D এবং HTC Evo 3D। এদের মাধ্যমে 3D ছবি এবং ভিডিও ক্যাপচার করা যেত আর ডিসপ্লেও ছিল 3D তাই সহজে 3D উপভোগও করা যেত।
তবে কিছু সময় ব্রেক এর পর ২০১৪ সালে HTC  M8 বের হয় তারপর LG G5,LG V20,Huawai P9,Iphone 7+ এসব দেখতে পাই।

ডুয়াল ক্যামেরার ব্যবহার :

পূর্বে HTC Evo ও LG Optimus 3D তে একই দুটি ক্যামেরা সেন্সর- ফিচার- সুবিধা সব কিছুই ছিল একই তবে পরবর্তীতে আমরা যদি LG G5 এবং V20 এর দিকে তাকাই তবে আমরা দেখতে পারি যে, এখানে একটি যেটি Primary  ক্যামেরা এবং দ্বিতীয়টি হল Secondary ক্যামেরা আর এখানে Secondary ক্যামেরাটি হল মূলত ওয়াইড অ্যাঙ্গেল লেন্স আর এখানে প্রথম প্রথম ক্যমেরা দিয়ে ধরুন ৭৫ ডিগ্রী কভার হচ্ছে,সেখানে দ্বিতীয় ক্যামেরা দিয়ে বাকি ১৮০ ডিগ্রীটিও ক্যাপচার হবে।

আবার যদি HTC  M8 এর দিকে তাকাই তবে এখানে প্রাইমারি ক্যামেরাটি ৮ মেগাপিক্সেল তবে সেকেন্ডারি ক্যামেরাটি ২ মেগাপিক্সেল তবে এর মূল কাজ হল ছবির প্রতিটি পিক্সেল এর সঠিক এবং নিখুত গভীরতা নির্নয়।তাই এখানে ডুয়াল ক্যামেরা সাহায্যে সঠিক ফোকাস এবং ব্লুর প্রয়োগ করে এমন ছবি তোলা সক্ষম হবে, যেন মনে হবে এটি একটি প্রোফেসনাল ডিএসএলআর DSLR ক্যামেরা দিয়ে তোলা।

আবার Huawei এর P9 এবং Honor 8 এর কথা বলি তাহলে দেখা যায় এখানেও ডুয়াল ক্যামেরা রয়েছে  আর এখানে Primary ক্যামেরার মূল কাজ Colour ডিটেইলস কালেক্ট করা এবং Secondary সেন্সর Black & White ক্যাপচার করা যার ফলে লে লাইটেও একটা ভালো ডিটেইলসনপাওয়া যায়, ছবির /ফ্রেমের ছোটখাট সব জিনিস ক্যামেরায় চলে আসে এবং দারুন ডিটেইলস সম্পন্ন একটি ছবি বা ভিডিও ক্যাপচার করা যায় সহজেই।

আর এখন যদি আমরা সম্প্রতি লঞ্চ হওয়া  আইফোন ৭ প্লাস এর কথা বলি তাহলে এখানে একটির লেন্স ২৮ মিলিমিটার এবং একটি ৫৬ মিলিমিটার লেন্স।যার ফলে ক্যামেরা দিয়ে সত্যিকারের 2X Optical Zoom ছবি তোলা যায়।

ডুয়াল ক্যামেরার গুরুত্ব:

মূলত ফোনের আসল বা মেইন ক্যামেরা ওপর আরেকটি ক্যামেরা থেকে প্রাপ্ত ডিটেইলস যোগ করে যে দারুন এক ইফেক্ট সহ ছবি তোলা এটাই ডুয়াল ক্যামেরার মূল কাজ। ডুয়াল ক্যামেরা মাধ্যমে এমন অনেক কিছু করা যায় যা একটি ক্যামেরা দিয়ে হয়ত কখনই করা যেত না ; যেমন : ১৮০ ডিগ্রী ছবি, DSLR এর মতন ছবি, আরো ডিটেইলস সম্পন্ন ছবি, আল্ট্রা 4K ভিডিও ক্যাপচার ইত্যাদি।ডুয়াল ক্যামেরার মাধ্যমে সহজে VR  Box এ দেখার মতন আল্ট্রা অ্যাঙ্গেল ছবি বা ভিডিও তোলা যাবে।

ডুয়াল ক্যামেরার ভবিষ্যত :

ভবিষ্যতে ডুয়াল ক্যামেরার ব্যবহারে সহজেই আরো ভালো ভাবে ৩৬০ ডিগ্রী ছবি সহজেই তোলা যাবে। স্যামসাং গ্যালাক্সী এস ৮ স্মার্টফোনেও এই ডুয়াল ক্যামেরার ব্যবহার হতে পারে।এবং কুয়ালকম এখন তাদের নতুন 627,653,427 চিপসেট তৈরি করেছে যেগুলো বিশেষভাবে ডুয়াল ক্যামেরা কম্প্যাটিবল হবে।এর ফলে আশা করা যায় ভবিষ্যতে ১৫-৩০ হাজার টাকার স্মার্টফোনেও ডুয়াল ক্যামেরা দেখা যাবে।

সময় ও ধৈর্য্যের সাথে পড়ার জন্য ধন্যবাদ।আশা করি আজকের পোস্টটি সকলের ভালো লেগেছে;কমেন্ট এ জানান।

উত্তর দিন