ওয়েবসাইট এর বাউন্স রেট কি এবং কিভাবে বাউন্স রেট কমাবেন।

4 75

আজ আমরা আলোচনা করব ওয়েবসাইটের বাউন্স রেট নিয়ে। বাউন্স রেট যেকোন ওয়েবসাইটের জন্যই ক্ষতিকর । আপনারা অনেকেই হয়তো বাউন্স রেট সম্পর্কে জানেন । তারপরও চলুন আরো একবার জেনে নেওয়া যাক বাউন্স রেট কী? বাউন্স রেট হচ্ছে আপনার ওয়েবসাইটের সেই সমস্ত ভিজিটরের শতকরা হার। যারা শুধু আপনার ওয়েবসাইটের প্রথম পেজে এসে আবার চলে যায়। কিন্তু ঐ সাইটের ভিতরের বা অন্যকোন পেজগুলি ভিজিট করে না। ব্যাপারটি আসলেই হতাশাজনক কারন আপনি আপনার মাথার ঘাম পায়ে ফেলে সাইটের জন্য এসইও করেন সর্বোপরি আপনার সাইটের পিছনে যথেষ্ট সময় দেন অথচ ভিজিটর আপনার সাইটটি চোখের দেখা দেখেই চলে যায়। এর চেয়ে কষ্টের আর কী হতে পারে।

গুগল অ্যানালিটিকস টুলসের মাধ্যমে একটি ওয়েবসাইটের বাউন্স রেট ট্রাক করা যায়। এটি আপনার ওয়েবসাইটের প্রত্যেকটি পেজের বাউন্স রেট প্রদর্শন করে। এছাড়াও আপনার ওয়েবসাইটে কিভাবে (অরগ্যানিক সার্চ, পেইড সার্চ ইত্যাদি) ভিজিটর আসে, আপনার সাইটের বিগত সময়ের বাউন্স রেটের পর্যালোচনা সহ অন্যান্য আরও অনেক গুরুত্বপূর্ণ ডাটা প্রদর্শন করে এছাড়াও অনেক তথ্য দেখায়। এগুলি দেখে আপনি খুব সহজেই আপনার সাইটের বাউন্স রেটের কারন বের করতে পারবেন। সাধারণত বেশিরভাগ সাইটের বাউন্স রেটের হার ৫০% এর মত হয়ে থাকে। তবে এটিকে অতিক্রম করে যদি ৬০% হয় তাহলে সেটি একটু উদ্বিগ্ন হওয়ার মত । যদি আপনার সাইটের বাউন্স রেট এর চেয়েও বেশি হয় বা ৮০% এর মত হয় তাহলে এটি আপনার সাইটের জন্য একটি বিরাট সমস্যা। এর জন্য আপনার সাইটের রেপুটেশন খারাপ হয়ে যাবে এবং আপনার যদি এডসেন্স একাউন্ট থাকে তাহলে ওটাও ব্যান্ড হতে পারে।

বন্ধুরা, সমস্যা যেমন আছে তেমনি এর সমাধানও আছে। তো চলুন জেনে নেওয়া যাক আমাদের আলোচিত বাউন্স রেট বৃদ্ধির কারণ এবং তার সমাধান সমূহগুলি।

১. সাইটের ডিজাইন:

ইংরেজীতে একটি প্রবাদ আছে “First Impression is the last impression”. সুতরাং বুঝতেই পারছেন আপনার সাইটের বাউন্স রেট কমাতে হলে আপনার সাইটকে এমনভাবে সাজাতে হবে যেন প্রথম দর্শনেই ভিজিটরদের আপনার সাইটটিকে ভাল লেগে যায়। আপনার সাইট যেন এনিমেশন বা অ্যাড দিয়ে ভরা না থাকে, এছাড়াও অপ্রয়োজনীয় গ্রাফিকসের কারিকুরি দিয়ে সাইটকে ভিজিটরদের কাছে চোখ ধাঁধানো করতে যেয়ে যেন চোখের বিষ বানিয়ে না ফেলেন এ ‍দিকটি খেয়াল রাখবেন। চেষ্টা করুন আপনার সাইটে যেন স্বাভাবিক সৌন্দর্য বজায় থাকে, কৃত্রিমতার কোন প্রয়োজন নেই।

২. সঠিক তথ্য বা কী-ওয়ার্ড:

অনলাইন যে তথ্যের মহাসাগর এ ব্যাপারে কারো কোন দ্বিমত নেই। ভিজিটরগণ তার প্রয়োজনীয় বিষয়ের সঠিক তথ্যটি পেতে এক সাইট থেকে আরেক সাইটে ছোটাছুটি করে থাকেন। সুতরাং আপনি যদি এ তথ্যটি দিতে পারেন তাহলে ভিজিটর আপনার সাইট ছেড়ে যে সহজে যাবে সেটা বলে দেওয়া যায়। তবে সমস্যা যেটা হয় সেটা এরকম যেমন, ভিজিটর কোন কীওয়ার্ড ধরে আপনার সাইটে আসল কিন্তু দেখা গেল আপনার সাইটে ঐ সম্পর্কিত তথ্যটি পুরানো বা ভুল। আবার এমন ও হতে পারে আপনার লেখার মাধ্যমে সঠিকভাবে তথ্যটি প্রস্ফুটিত হয়নি। আর এসব কারনে ভিজিটর ফিরে যাবে এবং বাউন্স রেট বৃদ্ধি পেতে থাকবে। সুতরাং এক্ষেত্রে আমার পরামর্শ আপনার সাইটটি যে বিষয়ের উপর সে বিষয়ের নতুন তথ্য সঠিকভাবে দিয়ে আপনার সাইট আপডেট রাখুন। তাহলে ভিজিটর আপনার সাইট ছেড়ে যাবেনা। কারণ ভিজিটর মৌমাছির মত, যেখানে মধু পাবে সেখানেই থেকে যাবে।

৩. সাইটের লোডিং টাইম:

সাইট লোড হতে যদি সময় বেশি লাগে তাহলে আপনার সাইটের বাউন্স রেটের হার বৃদ্ধি পাবে। কারণ লোডিং টাইম বেশি লাগলে ভিজিটর আপনার সাইট ত্যাগ করবে।

৪. রিলেটেড পোস্ট না থাকা:

একজন ভিজিটর আপনার সাইটে ভিজিট করল এবং কোন একটি বিষয় সম্পর্কে জানল। এরপর সে স্বাভাবিকভাবেই চাইবে এ বিষয়ে আরও বিস্তারিত জানার জন্য। তখন সে দেখবে উল্লেখিত বিষয়টির কোন রিলেটেড পোস্ট আছে কিনা। যদি রিলেটেড পোস্ট না থাকে তাহলে ভিজিটর অন্য কোন সাইটে যাবে স্বাভাবিকভাবেই। আর এভাবেই বাড়তে থাকবে আপনার সাইটের বাউন্স রেট। সুতরাং চেষ্টা করবেন যে কোন বিষয়ের উপর যথাসম্ভব বেশি তথ্যসমৃদ্ধ রিলেটেড পোস্ট রাখতে। এটা আপনার সাইটের বাউন্স রেট কমাতে সহায়ক হবে।

৫. সাইটে ভিজিটর গমন সহজতর না করা:

আপনার সাইটে ভিজিটরগণ যেন সহজে নেভিগেট করতে পারে এ বিষয়টি খেয়াল রাখতে হবে। যেমন; আপনার সাইটে ফুটারে টপ পেজের লিঙ্ক দেওয়া যেন ভিজিটর এক ক্লিকেই পেজের উপরে ফিরে যেতে পারে। এছাড়াও আপনার সাইটে লোড হওয়ার পূর্বে যদি কোন স্প্ল্যাশ পেজ প্রদর্শন করে তাহলেও বেশিরভাগ ক্ষেত্রে আপনার সাইটের ভিজিটর ফিরে যাবে। সুতরাং বাউন্স রেট কমাতে হলে এসব স্প্ল্যাশ পেজ পরিহার করতে হবে যেন ভিজিটর সহজে আপনার সাইটে আসতে পারে।

৬. সাইটে ভিজিটরদের অংশগ্রহনের জন্য কোন অপশন না রাখা:

আপনার সাইটে এমন কিছু অপশন রাখবেন যেন সেখানে পাঠকেরা অংশগ্রহন করতে পারে এবং আলোচনার ঝড় তুলতে পারে। সর্বোপরি আপনার সাইটের ভিজিটরদের অংশগ্রহন নিশ্চিত করতে হবে। তাহলে ভিজিটর আপনার সাইটের প্রতি আকৃষ্ট হবে এবং আপনার সাইটে বেশি সময় কাটাবে। ফলে আপনার সাইটের বাউন্স রেটের হার কমে যাবে।

৭. ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপনের আধিক্য থাকা:

আপনি খেয়াল রাখবেন আপনার সাইটে যেন অতিরিক্ত বিজ্ঞাপন না থাকে। যেন এমন না হয় বিজ্ঞাপনের কারণে আপনার সাইটের মূল পোস্টই দৃষ্টি এড়িয়ে যায়। তাহলে ভিজিটরগণ আপনার সাইটে আসাটাকে স্বাভাবিকভাবেই সময় নষ্ট হিসাবে বিবেচনা করবে। সুতরাং আপনার সাইটের বাউন্স রেট কমাতে হলে অতিরিক্ত বিজ্ঞাপন প্রদর্শন থেকে বিরত থাকতে হবে।

৮. পাঠকের জন্য নয় বরং সার্চ ইঞ্জিনের জন্য পোস্ট করা:

এটা একটা বড় ধরনের ভুল। কেউ যদি এসইও এর কথা চিন্তা করে কোন পোস্ট লিখতে গিয়ে অতিরিক্ত কীওয়ার্ড ব্যবহার করে তাহলে সেটি ভিজিটরদের কাছেও যেমন অখাদ্যে পরিণত হবে তেমনি সার্চ ইঞ্জিনের কাছেও স্প্যাম হিসাবে বিবেচিত হবে। সুতরাং আপনার সাইটে ভিজিটর ধরে রাখার জন্য তথা সাইটের বাউন্স রেট কমানোর জন্য আপনাকে অতিরিক্ত কীওয়ার্ড পরিহার করে সুন্দরভাবে পোস্ট লিখতে হবে।

উপরোক্ত বিষয়গুলো সঠিকভাবে অনুসরণ করতে পারলে আপনি আপনার সাইটের বাউন্স রেট কমাতে পারবেন আশা করি। সামনে আবার সাক্ষাৎ হবে নতুন কোন টিউটোরিয়াল নিয়ে। বিদায়।

ইচ্ছে হলে এই বাংলা ব্লগ টিতে ঘুরে আসতে পারেন।

4 মন্তব্য
  1. theitrongbd বলেছেন

    কিছু জ্ঞান অর্জন হল ধ্যন্যবাদ – http://www.itrongbd.com

  2. Simply Apon বলেছেন

    খুবই দরকারি একটা পোস্ট! শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ!

  3. লিটন হাফিজুর বলেছেন

    সুন্দর পোস্ট। শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ ——

  4. sabuj বলেছেন

    অসাধারণ লিখছেন । অনেক ভাল লাগল । ধন্যবাদ ।

উত্তর দিন