╠ জেনে নিন আইপি ঠিকানা কোনটা কী?

8 143

ইন্টারনেটে যুক্ত হওয়া মানেই কোনো না কোনো আইপি বা ইন্টারনেট প্রটোকল ঠিকানা ব্যবহার করা। আইপি নিয়ে ধারণাটা স্বচ্ছ থাকলে নেটওয়ার্কিংয়ের টুকটাক কাজ নিজেই করা যায়। সাধারণত যেসব আইপি ঠিকানা ব্যবহূত হয়, সেগুলো আইপি সংস্করণ ৪-এর (আইপিভি-৪), যাতে মোট ৩২ বিট তথ্য রয়েছে। ১ বিট হলো একটি সংখ্যা বা ডিজিট, যার মান ১ বা ০। তেমন আটটি বিট নিয়ে এক বাইট, একে অক্টেটও বলা হয়। ৩২ বিটকে চার ভাগ করলে (৮x৪ = ৩২) প্রতি ভাগে পড়ে একটা অক্টেট।

আইপি ঠিকানা প্রতিটি অক্টেট ডট (.) দিয়ে আলাদা করা থাকে। যেমন: 192.168.100.1। গঠনের দিক দিয়ে এর আবার দুটি অংশ রয়েছে। নেটওয়ার্ক অংশ এবং হোস্ট অংশ। ক্লাসের দিক থেকে আইপি ঠিকানা আছে পাঁচটি। ক্লাস-এ (১- ১২৬, প্রথম অক্টেট নেটওয়ার্ক অংশ, বাকি তিনটি হোস্ট), ক্লাস বি (১২৮- ১৯১, প্রথম দুই অক্টেট নেটওয়ার্ক অংশ, বাকি দুটি হোস্ট), ক্লাস সি (১৯২- ২২৩, প্রথম তিন অক্টেট নেটওয়ার্ক অংশ, বাকি একটি হোস্ট)। ক্লাস ডি ও ই মাল্টিকাস্ট এবং বৈজ্ঞানিক গবেষণার জন্য সংরক্ষিত। মাঝখানের 127.0.0.1 ঠিকানা হলো লুপব্যাক পরীক্ষার, যা প্রত্যেক ব্যবহারকারীর লোকাল হোস্ট ঠিকানা।ip-address

আরেকটি অ্যাড্রেস 169.254.0.0 থেকে 169.254.255.255। এটি হলো অটোম্যাটিক প্রাইভেট আইপি অ্যাড্রেসিং (এপিআইপিএ)। যার কাজ হলো একাধিক হোস্ট পরস্পর যুক্ত থাকলে এবং নেটওয়ার্ক কার্ডে কোনো আইপি বসানো না থাকলে সেখানে এই আওতার যেকোনো একটি আইপি স্বয়ংক্রিয়ভাবে বসে যাবে এবং একই নেটওয়ার্কের আওতায় চলে আসবে। প্রথম অক্টেটে ব্যবহূত সংখ্যা দেখেই বুঝতে হবে কোনটা কোন ক্লাসের অন্তর্ভুক্ত। ব্যবহারিক দিক থেকে ক্লাস এ, বি এবং সি আবার দুই ভাগে বিভক্ত—পাবলিক আইপি এবং প্রাইভেট আইপি। পাবলিক আইপি ইন্টারনেটের জন্য ব্যবহার করা হয় এবং সেগুলো রাউট করা যায়। আর প্রাইভেট আইপিগুলো নির্দিষ্ট করা, যেমন: ক্লাস এ 10.0.0.0 থেকে 10.255.255.255, ক্লাস বি 172.16.0.0 থেকে 172.31.255.255, ক্লাস সি: 92.168.0.0 থেকে 192.168.255.255। এই আওতায় থাকা আইপিগুলো শুধু ব্যক্তিগত, বাসাবাড়ি, অফিস-আদালত ও অভ্যন্তরীণ প্রতিষ্ঠানে ব্যবহার করা যায়। এগুলো কিনতে হয় না এবং ইন্টারনেটে রাউটও করা যায় না।

তাহলে যখন প্রাইভেট আইপি ঠিকানা দিয়ে ইন্টারনেট ব্যবহার করা হয়, সেটার কী ব্যাখ্যা? এর পেছনে বেশ কিছু প্রটোকল কাজ করে, যার একটি হচ্ছে নেটওয়ার্ক অ্যাড্রেস ট্রান্সলেশন (এনএটি) বা কোনো প্রক্সি সার্ভার, যেগুলো আমাদের প্রাইভেট আইপিগুলোকে লুকিয়ে রেখে এক বা একাধিক পাবলিক আইপির সাহায্যে আমাদের ইন্টারনেটে সংযুক্ত করে।

মূল লেক্ষক মঈন চৌধুরী

8 মন্তব্য
  1. মাহবুব আলম বলেছেন

    thanks

  2. Nafiz Ur Rahman বলেছেন

    শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ।

  3. নাঈম প্রধান বলেছেন

    খুবই সুন্দর পোস্ট । শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ।

  4. হামিদ খান বলেছেন

    যতবেশি প্রচারিত হবে তত বেশি সবাই জানবে, ভাল এইরকম কিছু শেয়ার করা

  5. মোঃ আসলাম পারভেজ বলেছেন

    কাজের একটি পোস্ট ভাই । ধন্যবাদ আপনাকে সুন্দর একটি পোস্ট উপহার দেবার জন্য ।

  6. দিপু রায়হান বলেছেন

    সোর্স টা দিলে ভাল হত

      1. দিপু রায়হান বলেছেন

        @আকাশ: ভাই আমি নিজেও তো জানি যে,এই পোষ্ট টা আজ প্রথম আলো তে দিয়েছে তাই উনাকে বললাম সোর্স দিতে। এটা আমার জন্য না এই পোষ্টের জন্য।

উত্তর দিন