সাশ্রয়ী 3G internet Package দিবে Airtel Bangladesh Limited

6 103

3G Internet সেবায় গ্রাহকদের সুবিধার কথা চিন্তা করে সাশ্রয়ী 3G Internet Package হাতে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন Airtel Bangladesh Limited প্রধান নির্বাহী ক্রিস টোবিট।
মঙ্গলবার Airtel Bangladesh Limited কর্পোরেট অফিসে 3G Internet Package বিষয়ে বাংলানিউজের সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি একথা জানান।এ মুহূর্তে এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ করা থেকে বিরত থাকেন তিনি।
Airtel Bangladesh Limited এর পরিকল্পনা অনুযায়ী, সামনের অক্টোবরের মধ্যেই ঢাকা ও চট্টগ্রামের প্রধান অঞ্চলগুলোতে 3G Internet সেবা চালু হতে যাচ্ছে। আর আগামী নভেম্বরের মধ্যে সিলেটের প্রধান অঞ্চলগুলোতে 3G Internet সেবা চালু হয়ে যাবে। ডিসেম্বর নাগাদ এই তিন বিভাগের বাদবাকি এলাকাগুলোতে এই সেবা পৌঁছে যাবে।

 

ক্রিস টোবিট বলেন, মঙ্গলবার রাতে পরীক্ষামূলকভাবে Airtel Bangladesh Limited অফিসের মধ্যে 3G Internet সেবা চালু করা হয়েছে, আগামী দিন কয়েকের মধ্যে মধ্যে ঢাকা নগরীতে ৮ থেকে ১০টি বেজ স্টেশন স্থাপনের কাজ শেষ হবে। যেভাবে আমাদের কাজ এগুচ্ছে তাতে আমরা খুবই খুশি।

টেলিযোগাযোগ খাতে ১৫ বছরের অভিজ্ঞতা সম্পন্ন এয়ারটেলের প্রধান নির্বাহী ক্রিস টোবিট জানান, 3G Internet লাইসেন্স পাওয়ায় তারা পুরোপুরি খুশি। সেরা মূল্যেই স্পেকট্রাম কিনেছেন।

পুরো 3G Internet নিলাম প্রক্রিয়া স্বচ্ছতার সঙ্গে হয়েছে বলে মন্তব্য করে টোবিট বলেন, এতে তারা খুশি।

3G Internet নিলামের পর বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) দ্রুততার সঙ্গে কাজ করায় সন্তোষ প্রকাশ করেন তিনি।

ভারতীয় Airtel Bangladesh Limited এর গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন পদে ১১ বছর ধরে কাজ করা টোবিট বলেন, 3G Internet সেবা চালু করতে যেসব যন্ত্রপাতি আনতে হবে সেগুলো আনার প্রক্রিয়া দ্রুততার সঙ্গে এগুচ্ছে। এরই মধ্যে আমাদের প্রথম শিপমেন্ট কাস্টম থেকে ছাড়পত্র (ক্লিয়ারেন্স) পেয়েছে।

প্রধান নির্বাহী বলেন, এয়ারটেলের প্রতি গ্রাহকদের বাড়তি আশা আমাদের খুবই আনন্দিত করেছে। 3G Internet পাওয়ায় এয়ারটেলের অতিরিক্ত দায়িত্ব তৈরি হয়েছে। গ্রাহকদের আকাঙ্ক্ষা পূরণে আমরা সব সময়ই সচেষ্ট থেকেছি।

এ প্রসঙ্গে তিনি কিছু তথ্য ও পরিসংখ্যান তুলে ধরেন।

টোবিট জানান, ২০১০ সালে টুজি সেবায় দেশব্যাপী এয়ারটেলের কভারেজ এরিয়া ছিল ২৫ শতাংশ। আর বর্তমানে এই কভারেজ এরিয়া ৮০ শতাংশে পৌছেছে। এই সময়কালে ১২৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করা হয়েছে। যা ছিল তাৎপর্যপূর্ণ। আর 3G Internet সেবায় যতটা প্রয়োজন তবে ততটাই বিনিয়োগ করা হবে।

3G’র জন্য পর্যাপ্ত কনটেন্ট না থাকা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এজন্য অধিক কনটেন্ট প্রয়োজন। তবে তা অবশ্যই ভালো কনটেন্ট হতে হবে, হতে হবে আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন। এক্ষেত্রে যারা কাজ করতে চায় তাদের সহযোগিতা করবে Airtel Bangladesh Limited ।

টোবিট বলেন, 3G Internet সেবা চালু হলে নি:সন্দেহে এদেশে অর্থনীতির চাকা আরো সচল হবে। এদেশের জাতীয় প্রবৃদ্ধিও বেড়ে যাবে। 3G Internet চালু হলে এর মাধ্যমে জন্ম নিবন্ধন, ভূমি রেকর্ড তৈরির মতো গুরুত্বপূর্ণ কাজ করা সম্ভব। Airtel Bangladesh Limited সরকারের সঙ্গে এ ধরনের গুরুত্বপূর্ণ কাজ যৌথভাবে করতে পারে।

তিনি বলেন, সরকার যদি থ্রিজি’র জন্য স্ম্যার্ট ফোন আনতে বিশেষ ছাড় দেয় তাহলে ৪ থেকে ৫ হাজার টাকায় মোবাইল সেট কিনতে পারবেন গ্রাহকরা। যা ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

গত ৮ সেপ্টেম্বর থ্রিজি’র জন্য ৫ মেগাহার্টজ স্পেকট্রাম কিনে নেয় এয়ারটেল। এই মেগাহার্টজ 3G Internet সেবার জন্য যথেষ্ট কিনা জানতে চাইলে ক্রিস টোবিট বলেন, অবশ্যই এটি যথেষ্ট। অন্তত আরো ৩ থেকে ৫ বছর এই মেগাহার্টজ দিয়ে চমৎকার সেবা দেওয়া যাবে।

তিনি বলেন, ভারতের মুম্বাই, দিল্লীর মতো ঘনবসতিপূর্ণ নগরীতে ৫ মেগাহার্টজ স্পেকট্রাম দিয়ে 3G Internet সেবা দেওয়া হচ্ছে। সুতরাং ঢাকা কিংবা চট্টগ্রাম নগরীতে ওই সংখ্যক জনসংখ্যা নেই। তাই ৫ মেগাহার্টজ সেবাই যথেষ্ট।

6 মন্তব্য
  1. আকাশ বলেছেন

    আকর্ষণীয় পোস্ট উপহার দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ।

  2. Nafiz Ur Rahman বলেছেন

    পোস্টটি শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ

  3. Md.Jahangir Alam বলেছেন

    ভাই, থ্রী‍জি সেবাতো দিবে কিন্তু তার প্যাকেজ মূল্য যেন সরকার বেধেঁ দেয় । নেইলে বাঘের কাছে ছাগল বড়গা দেওয়ার মত খুবই ভয়াবহ অবস্থা হবে।

  4. নাঈম প্রধান বলেছেন

    শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ।

  5. হামিদ খান বলেছেন

    thanks for share..

  6. লিটন হাফিজুর বলেছেন

    thanks for share

উত্তর দিন