হাতের নাগালেই বেলুনের ইন্টারনেট

0 63

আকাশে থাকবে বেলুন নেটওয়ার্ক আর হাতের নাগালে থাকবে দ্রুতগতির ইন্টারনেট। প্রত্যন্ত অঞ্চলে যেখানে ইন্টারনেট সুবিধার জন্য অবকাঠামো তৈরি অসম্ভব সেখানে বেলুন উড়িয়ে ইন্টারনেট সেবা দেওয়া যাবে। গুগলের মূল প্রতিষ্ঠান অ্যালফাবেটের এই পরিকল্পনা পরীক্ষামূলক পর্যায় অতিক্রম করে এখন বাস্তবের পথে।
প্রকল্পটির নাম ‘প্রজেক্ট লুন’। অ্যালফাবেট কর্তৃপক্ষ বলছে, নেভিগেশন সফটওয়্যারে সফলতা অর্জিত হওয়ায় বেলুনের মাধ্যমে প্রত্যন্ত অঞ্চলে ইন্টারনেট সুবিধা দেওয়ার প্রকল্পটি বাস্তব পর্যায়ে চলে এসেছে।
অ্যালফাবেটের এক্স ইউনিটের প্রধান অ্যাস্ট্রো টেলার বলেন, ‘বিশ্বের জন্য শিগগিরই আরও কিছু করার জন্য আমাদের টাইমলাইন শুরু হচ্ছে।’
টেলার বলেন, আমরা দ্রুতগতিতে এগিয়ে যেতে চাই কিন্তু তা অবশ্যই চিন্তা করে এগোতে চাই।
এ সফলতা অর্জন করা গেছে ইন্টারনেট যুক্ত বেলুনের নিয়ন্ত্রণে সফটওয়্যারগত উন্নয়নের ক্ষেত্রে। আমরা এ বেলুনকে উন্নত করতে চাই, বিশেষ করে বাতাসের সঙ্গে দাবা খেলার মতো করে। ফলে বেলুনকে নির্দিষ্ট জায়গায় রাখা সম্ভব হবে।

টেলার আশা করেন, সামনের দিনগুলোতে টেলিকম সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে চুক্তি করে সত্যিকারের ব্যবহারকারীদের কাছে ইন্টারনেট সেবা পৌঁছাতে কাজ করবে অ্যালফাবেট। বেলুন থেকে আসা ইন্টারনেট মাটিতে থাকা নেটওয়ার্কের সঙ্গে কীভাবে কাজ করে সেটি পরীক্ষা করে দেখা হবে শুরুতে।

অবশ্য কোথায় প্রাথমিকভাবে বেলুন থেকে আসা ইন্টারনেট দিয়ে গ্রাহকসেবা দেওয়া হবে সেটি উল্লেখ করেননি টেলার।

টেলার বলেন, আমরা হঠাৎ করে সব জায়গায় যাব না। আমরা একটি ইকোসিস্টেমের অংশ হতে চায়। যেসব স্থানে পরীক্ষা চালানো হচ্ছে সেখানকার স্থানীয় টেলিকম কোম্পানির সঙ্গে কাজ করা হবে।

এই প্রকল্পের মাধ্যমে টেলিকম অপারেটরদের সঙ্গে মিলে নেটওয়ার্ক বাড়িয়ে অর্থ আয় করবে অ্যালফাবেট।

গত এক বছর ধরে শ্রীলঙ্কায় বেলুন প্রকল্প নিয়ে কাজ করেছে গুগল। তবে আইনগত জটিলতার কারণে দেশটিতে এ প্রকল্প বন্ধ করে দিতে পারে প্রতিষ্ঠানটি।

২০১৩ সালে নিউজিল্যান্ডে প্রথম বেলুন প্রকল্প চালু করে গুগল।

তথ্যসূত্র: অনলাইন

উত্তর দিন