হ্যাকার ও হ্যাকিং সম্পর্কে জানুন অজানা রোমাঞ্চকর তথ্যাবলী! নতুন বছরের মেগা পোস্ট!!(১ম পর্ব)

25 318

৭৮৬

সবাইকে সালাম ও শুভেচ্ছা জানিয়ে শুরু করছি আজকের দিনের পোস্ট। আশা করি পিসি হেল্পলাইনের বন্ধুরা সবাই ভাল আছেন। মূলত আজকের দিনের পোস্টে কোন ইউটিলিটি নিয়ে আলোচনা করব না। বেশ কয়েকদিন ধরেই ভাবতে ছিলাম প্রিয় প্রযুক্তি সাইট পিসি হেল্প লাইনে প্রযুক্তি সম্পর্কে কোন একটি বিষয়ে রিভিউ করব। অবশ্য আজকের রিভিউটি করেছি হ্যাকারদের পরিচিতি ও তাদের ব্যবহৃত ইউটিলিটির কার্যক্রম সম্পর্কে।

anonymous-logo-1

আজকের এই পোস্টের মাধ্যমে আপনারা হ্যাকার ও হ্যাকারদের কার্যক্রম সম্পর্কে বেশ কিছু তথ্যাবলী পাবেন যা অনেকেরই কাজে লাগতে পারে। বিশেষ করে এই সম্পর্কে কৌতুহলী ভিজিটরদের মধ্য বেশ উদ্দীপনা সৃষ্টি করবে। অপরদিকে আমি ও আপনাদের অনেকের মতই বেশ কৌতুহলী ছিলাম হ্যাকার কে, কারা এবং তাদের কার্যক্রম কি? এই সম্পর্কে বেশ কিছু সাইট, ইংরাজী ব্লগ ও বইপত্র ঘেটে বেশ কিছু তথ্যাবলী সংগ্রহ করেছি যা আমায় সহ অনেকের কাজে আসবে। তাহলে চলুন মূল পোস্টের আলোচনাতে হতে ভিজিট করি-

প্রথমেই জানুন হ্যাকিং কি? এবং হ্যাকার কারা?

হ্যাকারদের মোট তিনভাগে ভাগ করা হয়, হোয়াইট হ্যাট হ্যাকার, গ্রে হ্যাট হ্যাকার, ব্ল্যাক হ্যাট হ্যাকার। নাম শুনেই বুঝতে পারছেন হয়তো, সাদা দল  খুব ভাল, কালো দল খুব খারাপ আর ধূসর দল এদের মাঝামাঝি কিছু একটা। তবে যতোটা সহজেই এই তিন রঙে হ্যাকারদের রাঙ্গানো যাবে ভেবে এই শ্রেণীবিভাগ তৈরি করা হয়েছিল, ব্যাপারটা ততো সহজ হয়নি। রয়ে গেছে বিতর্ক, প্রশ্নবোধকতা। তবু বিভিন্ন গণমাধ্যম কিংবা অন্তর্জালের বিভিন্নজগতে যাদেরকে এই তিন রঙে ভাগ করা হয়েছে, তাদের এ শ্রেণীবিভাগের পেছনে ক্ষমতা, গণমাধ্যম ও কর্পোরেট স্বেচ্ছাচারিতা আর অন্যান্য কিছু উপাদান ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করেছে। জেনে নেয়া যাক হ্যাকারদের সাদা-ধূসর-কালোতে কিভাবে ভাগ করা হয়।

হোয়াইট হ্যাট হ্যাকার বা সাদা দলের হ্যাকার তারাই যারা বিভিন্ন সফটওয়ার, হার্ডওয়ার, ওয়েবসাইটের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকেন। তারা চোর পুলিশের মতো করেই নিরাপত্তা ঠিক আছে কিনা পরীক্ষা করে দেখেন। এ মিছেমিছি চোর-পুলিশ খেলার চোরদেরকে রেড টিম আর পুলিশদেরকে ব্লুটিম বলা হয়। রেড টিম আক্রমণ করে, ব্লুটিম প্রতিরোধ করে…আর এমনি করে তারা নিরাপত্তা নিশ্চিত করেন।
হ্যাকারদের মধ্যে জন ড্র্যাপার আর জনাথন জোসেফ জেমস এর গল্প তো ইতোমধ্যে জানা হয়ে গেছে। আরও একজন বিখ্যাত(নাকি কুখ্যাত?) হ্যাকার ছিলেন কেভিন মিটনিক।

gray-Hacker

তার অসংখ্য কীর্তির মধ্যে আছে লস এঞ্জেলস এর বাস এর টিকেট সিস্টেম ওভাররাইড থেকে শুরু করে মটোরোলা, নকিয়া, এনইসি, সান, ফুজিতসুর নেটওয়ার্ক হ্যাক করা, আইবিএম মিনিকম্পিউটারের এডমিন সুবিধা হ্যাক করাসহ নাম না জানা নানা কুকীর্তি। পালিয়ে পালিয়ে বেড়ানো এ হ্যাকার নাটকীয়ভাবে পুলিশের হাতে ধরা পড়েন আরেক হ্যাকার শিমোমুরার সহায়তায়, যার কম্পিউটার হ্যাক করে মিটনিক নিজের পতন ডেকে আনেন। জেল-টেল খেটে এখন মিটনিক খুলে বসেছেন মিটনিক সিকিউরিটি কনসালটিং। তবে অতীত সুনাম(!) এখন বিপদের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে মিটনিকের জন্য; তার নিজের কোম্পানির ওয়েবসাইট বারকয়েক শিকার হয়েছে হ্যাকিং এর।
জন লেচ জোহানসন বা ডিভিডি-জন বিখ্যাত রিভার্স-ইঞ্জিনিয়ারিং এর জন্য। তিনি কপিরাইটেড ডিভিডি লিনাক্সে ব্যবহার করার জন্য ডিসিএসএস নামের সফটওয়ার লেখেন। পরবর্তীতে মোশন পিকচার এসোসিয়েশন ও যুক্তরাষ্ট্রের ডিভিডি কপি কন্ট্রোল এসোসিয়েশনের যৌথ উদ্যোগে মামলা করে ডিভিডি জনের বিরুদ্ধে। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় নরওয়ের কোর্টে সে মামলা থেকে জনকে নিষ্কৃতি দেয়া হয়। ডিভিডি জন বসে থাকেননি। তারপর এপলের আইটিউন্স মিউজিক স্টোর থেকে ক্রয়কৃত গান ডাউনলোড করার জন্য পাইমিউজিক নামে এক সফটওয়ার লেখেন পাইথন ল্যাঙ্গুয়েজ ব্যবহার করে। এ সফটওয়ার ঠেকাতে আইটিউন্স প্যাচ আপডেট ছাড়লেও চব্বিশ ঘন্টার ভেতরে সে প্যাচকেও হারিয়ে দেন ডিভিডি জন। একই কোম্পানির তৈরি কুইকটাইমের এডভান্সড অডিও কোডিং (AAC) এর ডিজিটাল রাইটস ম্যানেজমেন্ট(DRM) বাইপাস করার জন্য QTFairsUse নামের সফটওয়ার লেখেন ডিভিডি জন। জন এখন ভিএলসি মিডিয়া প্লেয়ারের ডেভেলপারদের একজন। একই সাথে তিনি ডিজিটাল মিডিয়া জগতে তথ্যের স্বাধীনতার জন্য একাধারে লেখে যাচ্ছেন নানা প্রোগ্রাম।
রবার্ট মরিসের নাম যদি কেউ না শুনে থাকেন, তবে মরিস ওয়ার্মের নাম অবশ্যই জেনে রাখুন। অন্তর্জালের প্রথম ওয়ার্ম মরিস ওয়ার্ম। এ ওয়ার্ম ছাড়ার পর নিজেকে কপি করতে থাকে প্রত্যেক কম্পিউটারে, এমনি করে সারা বিশ্বের হাজার হাজার কম্পিউটারে ছড়িয়ে পড়ে এই ওয়ার্ম। এই ছড়িয়ে পড়া কম্পিউটারগুলোর প্রতিটির ক্ষতির পরিমাণ ধারণা করা হয় ২০,০০০ থেকে ৫৩০,০০০ ডলার। মরিস অবশ্য তার এ কুকীর্তির পেছনের যুক্তি দাঁড়া করিয়েছেন এভাবে যে তিনি ইন্টারনেট আসলে কতো বড় তা মেপে দেখতে চেয়েছিলেন। আর তাই অন্তর্জালে সংযুক্ত সব কম্পিউটারে ছড়িয়ে দিয়েছেন এ ওয়ার্ম। রবার্ট মরিস এখন কি করেন, জানেন? উনি এম.আই.টি. এর তড়িৎ ও কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক।
ন্যাপস্টারের কথা কি মনে আছে কারো? বিখ্যাত এ সফটওয়ার ছিল প্রথম এমপিথ্রি শেয়ারিং সফটওয়ার। শন ফ্যানিং ছিলেন এর স্রষ্টা। তিনি মনে করতেন মানুষ তার কেনা মিউজিক বন্ধুদের সাথে শেয়ার করার অধিকার রাখে। পরবর্তীতে বড়বড় মিউজিক ইন্ডাস্ট্রির রোষানলে পড়ে ন্যাপস্টার বন্ধ হয়ে যায়, তবে ১৯৯৯ সালে মুক্তি পাওয়া এই সফটওয়ারই নির্ধারণ করে দিয়েছিল মিডিয়া ইন্ডাস্ট্রির ভবিষ্যত।
GNU Project এর প্রতিষ্ঠাতা রিচার্ড স্টলম্যানের লক্ষ্য ছিল উন্মুক্ত অপারেটিং সিস্টেম প্রতিষ্ঠা করা। এর শুরুটা হয়েছিল তার ইউনিভার্সিটি জীবনে। এম.আই.টি. এর ল্যাবে ব্যবহৃত প্রিন্টারগুলোর সফটওয়ার উন্মুক্ত ছিল না। কিন্তু কাজের সুবিধার্থে কিছু এলার্ট মেসেজ পাঠানোর প্রয়োজন মনে হওয়াতে স্টলম্যান ও তার বন্ধুরা মিলে প্রিন্টারের সফটওয়ার হ্যাক করেন। এ থেকেই পরবর্তীতে উন্মুক্ত সফটওয়ারের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করেন রিচার্ড স্টলম্যান।

hacking
লাইনাস টরভ্যাল্ডসকে তো সবারই চেনা, যার নামে লিনাক্স অপারেটিং সিস্টেম এর নামকরণ করা হয়েছে। সেই লাইনাস টরভ্যাল্ডস তার ব্যবহার করা কম্পিউটার Sinclair QL হ্যাক করেন। এসেম্বলার, টেক্সট এডিটর আর কিছু গেমস যুক্ত করার মধ্যে দিয়ে লাইনাস টরভ্যাল্ডস বুঝতে পারেন যে কম্পিউটারের অপারেটিং সিস্টেমের স্বাধীনতার প্রয়োজনীয়তা। পরবর্তীতে এ কীর্তিমান লিনাক্স কার্নেল ডেভেলপে আত্মনিয়োগ করেন।
কেভিন পোলসেন আরেক বিখ্যাত হ্যাকার যিনি সতের বছর বয়সে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা বিভাগের ARPANET (Advanced Research Projects Agency Network) হ্যাক করেন। এ ARPANET কে বলা হয় ইন্টারনেটের আদিপিতা। এছাড়াও লসএঞ্জেলসের রেডিও স্টেশন KIIS-FM এর পুরো টেলিফোন লাইন দখল করে নিয়ে তিনি নিজেকে ১০২তম কলার হিসেবে দেখান, জিতে নেন পোরশে ৯৪৪ এস২। এছাড়াও তার অন্যান্য সাইবার অপরাধের মধ্যে রয়েছে জিআইএফ এনিমেটেড ছবি হাজার হাজার মেইল ঠিকানায় স্প্যামিং । পরবর্তীতে পুলিশের অনুসন্ধানের মুখে পলাতক হয়ে যান এ হ্যাকার। ধরা পড়ার পর সে সময়কার রেকর্ড ৫১ মাসের কারাদন্ড হয়। কারাগারে বসে তিনি ওয়ারড নিউজ এর জন্য কলাম লেখতেন। তিনি তার হ্যাকিং জ্ঞান ব্যবহার করে মাইস্পেস সামাজিক ওয়েবসাইটের শীর্ষ ৭৪৪ জন যৌন আক্রমণকারী ব্যাক্তিকে চিহ্নিত করেন, যাদের মধ্যে একজনকে পরবর্তীতে গ্রেফতারও হতে হয়। উল্লেখ্য, কেভিন পোলসেন এর ছদ্মনাম ছিল ডার্ক ডাঁটে।
টিম বার্নার্স-লী কে বলা হয় ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েবের স্রষ্টা। W3C(World Wide Web Consortium) এর প্রতিষ্ঠাতাও তিনি। ছাত্র জীবনে একসেস কোড হ্যাকিং এর অপচেষ্টার অপরাধে তাকে অভিযুক্ত করে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়। তাঁকে ক্যাম্পাস এর কম্পিউটার ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞাও দেয়া হয়। তিনি ও তাঁর বন্ধুরাও তথ্যের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করতেন, তাই ক্যাম্পাসের পাসওয়ার্ড যুক্ত যেকোনো কম্পিউটার নাগালে পেলেই পাসওয়ার্ড হ্যাক করে পাসওয়ার্ড-ফ্রি করে দিতেন।
আদ্রিয়ানো লামোর হ্যাকিং প্রোফাইলখানা বেশ সমৃদ্ধ বলা যায়। বিনা অনুমতিতেই লামো অনুপ্রবেশ করেন দ্যা নিউ ইয়র্ক টাইমস, মাইক্রোসফট,ইয়াহু, সিঙ্গুলার, সিটি গ্রুপ, ব্যাংক অফ আমেরিকা, ম্যাকডোনাল্ডসের সাইটে। তবে লামোর আক্রমণগুলো ছিল অনেকটাই হোয়াইট হ্যাট হ্যাকারদের মতো, যদিও তার সে কাজের অনুমতি ছিল না। পুলিশ ওয়ারেন্ট বের হবার পর কিছুদিন পালিয়ে বেড়ান এ তরুণ। পরে অবশ্য ইউ.এস. মার্শালের কাছে আত্মসমর্পণ করেন তিনি। তাঁর হ্যাকার জীবনের এক মজার অংশ এনবিসিতে তার অপ্রকাশিত সাক্ষাৎকার। এন.বি.সির রাতের খবরের একটা অংশে তাকে ক্যামেরার সামনে হ্যাক করে দেখাতে বলা হয়। তিনি এন.বি.সির ইন্টারনাল নেটওয়ার্ক হ্যাক করে দেখান, যা পরবর্তীতে আর প্রকাশ করা হয়নি টিভির পর্দায়।

তুতোমু শিমোমুরার কথা বলা হয়েছিল কেভিন মিটনিকের গল্প বলার সময়। মিটনিককে ধরিয়ে দেন শিমোমুরা, যদিও তিনি নিজেও একজন হ্যাকার। এমনকি কেভিন মিটনিককে ধরিয়ে দেয়ার ঘটনাটাও কিন্তু হ্যাকিং এথিকসের বিরুদ্ধে যায়, যার কারণে পরবর্তীতে আদালতে মিটনিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দুর্বল হয়ে পড়ে। ল্যাপটপে সেলুলার ফ্রিকোয়েন্সি ডিটেকশন ফাইন্ডিং এন্টেনা লাগিয়ে মিটনিকের অবস্থান নিশ্চিত করেন শিমোমুরা। শিমোমুরার অতীত সম্পর্কে কখনোই নিশ্চিত হওয়া যায়নি, তবে হ্যাকিং কমিউনিটির অনেকের ধারণা তার হ্যাকিং জীবনের স্লেটখানা মুছে দিয়েছেন আইনের রক্ষকরা। উল্লেখ্য, শিমোমুরার বাবা ওসামু শিমোমুরা ২০০৮ এ রসায়নে নোবেলপ্রাপ্ত বিজ্ঞানী।

Hacking.jpgtt
২০০০ সালের ফেব্রুয়ারী মাসের দিকে যুক্তরাষ্ট্রের বড়বড় সব অনলাইন মার্কেটিঙ কোম্পানি যেমন ইয়াহু, আমাজন, ই-বে মুখোমুখি হয় এক নতুন প্রকারের টেকনিকাল ঝামেলার–Denial of Service। এ আক্রমণের পেছনে ছিল কানাডার এক ষোল বছর বয়েসী হ্যাকার যার ছদ্মনাম মাফিয়াবয়। এ আক্রমণকে সংক্ষেপে DOS আক্রমণ বলা হয়। শুধু এ আক্রমণের জন্য ১৭০০ মিলিয়ন ডলারের ক্ষতির অংক গুনতে হয় সাইট মালিকদেরকে। অবশ্য মাফিয়াবয়ও ধরাছোঁয়ার বাইরেই থাকতো, যদি সে তার বন্ধুদের কাছে তার কীর্তি বয়ান করে হিরো হবার লোভ সামলাতে পারতো! কানাডার আইন অনুযায়ী এ কিশোর অপরাধীর পরিচয় গোপন রাখা হয়েছে। তাই মাফিয়াবয় ছদ্মনামের আড়ালের মানুষটাকে কোনভাবেই জানা যায়নি, তবে প্রথম বুদ্ধিমান DOS এটাকের কৃতিত্ব মাফিয়াবয়কেই দেয়া হয়।
জন ড্র্যাপারের গল্পে নিশ্চয়ই মনে আছে স্টিভ ওজনিয়াকের কথা? The Other Steve নামে খ্যাত ওজনিয়াক এপলের অন্যতম স্রষ্টা। প্রথম জীবনে জড়িত ছিলেন ফোন ফ্রীকিং এর সাথে। জন ড্র্যাপারের মতো তিনিও তৈরি করেছিলেন ব্লু-বক্স। ড্র্যাপারের মতোই তিনিও এই ফোনকল নিয়ে করেছেন মজার মজার কান্ড। পোপকে ফোন দিয়েছিলেন হেনরি কিসিঞ্জার সেজে। পরবর্তীতে এপল প্রতিষ্ঠিত হবার পরে তিনি এপলে পূর্ণ মনোনিবেশ করেন। এই লেখাটার লেখক হিসেবে পাঠকের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য একটু যোগ করে দিই, স্টিভকে কখনোই “ব্ল্যাক হ্যাট কিনা”– প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়নি, যদিও জন ড্র্যাপারকে অবিসংবাদিতভাবেই প্রথম ব্ল্যাক হ্যাট হ্যাকার বলা হয়ে থাকে!
হ্যাকারদের তালিকা ধরে এভাবে জীবনবৃত্তান্ত বর্ণনা শুরু করলে হয়তো আদৌ শেষ করা সম্ভব নয়। ক্লান্তিতেই আমি ক্ষান্তি দিলাম। উপরের হ্যাকারদের মধ্যে কে হোয়াইট হ্যাট, কে ব্ল্যাক হ্যাট আর কে গ্রে হ্যাট তা বিভিন্ন মাধ্যম তার স্বার্থে বিভিন্নভাবে চিহ্নিত করেছে। এমনকি আমি ট্যাগিং করতে গেলেও হয়তো পক্ষপাত হবে। তাই চিহ্নিত করার এ দায় পাঠকের উপর পুরোপুরি ছেড়ে দিলাম। খুব কি কঠিন মনে হচ্ছে এ দায়ভার? হয়তো এজন্যই হ্যাকিং এর ক্ষেত্রে বলা যায়, এখানে ভালো-মন্দের সীমারেখা টানা সহজ নয়। যেখানে লিনাক্স-জিএনইউ-ন্যাপস্টার-ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব সবকিছুই হ্যাকিং এর পথ বেয়ে এসেছে, সেখানে হ্যাকিংকে চোখ বন্ধ করে অপরাধ বলাটা কতোটুকু যৌক্তিক হবে?

সাদা দলের ঠিক উল্টা দল কালো দল বা ব্ল্যাক হ্যাট হ্যাকার। এরা স্বার্থের জন্য হেন কাজ নাই যা করে না। বিভিন্ন সাইট হ্যাক করা, তারপর তথ্য পাচার, তথ্য ওলটপালট, ব্ল্যাকমেইলসহ নানা ঝামেলা করে থাকে। আশংকার কথা এই যে, যে কয়েকজন ব্ল্যাক হ্যাট হ্যাকারের নাম আমরা জানতে পারি, তারা সংখ্যায় খুবই নগণ্য। বলা যায় তারা ধরা পড়ে বলেই তাদের গোমর ফাঁস হয়ে যায়। নাম না জানা অসংখ্য ব্ল্যাক হ্যাট হ্যাকার ঘাপটি মেরে বসে আছে অন্তর্জালে, যারা অর্থের জন্য কিংবা শত্রুতাবশত কিংবা শুধুই বিখ্যাত হবার লোভে শিকার খুঁজে যাচ্ছে।

ধূসর দল বা গ্রে হ্যাট হ্যাকার সাদা আর কালোদের মাঝামাঝি এক দল। এরা বিভিন্ন ওয়েবসাইট হ্যাক করে, তবে নিজেদের স্বার্থের জন্য নয়। অনেকে শুধুই মজা করার জন্য এ কাজ করে থাকে। এ ধরণের হ্যাকাররা মাঝেমাঝে দুষ্টূমি করে এটাসেটা পাল্টে দিলেও বড় কোন ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায় না। এ দলের বিরুদ্ধে প্রধান অভিযোগগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো, এরা অনেকসময়ই হ্যাক করলেও নিরাপত্তা ফাটল সাইট এডমিনদের জানায় না। ফলে উক্ত সাইট পরবর্তীতে বারবার আক্রমণের স্বীকার হয়। অনেকসময়ই এমন হয় যে গ্রে হ্যাট হ্যাকার অবাধে সাইটের সংরক্ষিত এলাকায় ঘোরাফেরা করছে, সাইট এডমিনরা টেরও পাচ্ছে না।

এ ছাড়াও বিভিন্ন দেশের আছে হ্যাকার বাহিনী, যাদের সরকারি পৃষ্ঠপোষকতাও দেয়া হয়। এ ধরণের দেশগুলোর মধ্যে শীর্ষে আছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইসরায়েল, রাশিয়া, চীন, ইরান সহ আরো অনেক দেশ। বেশ কয়েকদিন আগে গুগল মোটামুটি সরাসরি চীন সরকারের দিকে আঙ্গুল তুলেছে হ্যাকিং এর অভিযোগে। এ ধরণের জাতীয়তাবাদী হ্যাকার বাহিনী আসলে সাদা দল নাকি কালো দল নাকি ধূসর দলের, সে নিয়ে তর্ক চলতে পারে।

সাদা কালো আর ধূসর রঙের ব্যাখ্যাতে অন্তর্জালের নিরাপত্তা নিয়ে বেশি আলোচনা হলেও হ্যাকিং আসলে শুধুই অন্তর্জালেই সীমাবদ্ধ নয়। হার্ডওয়ার, সফটওয়ার, অপারেটিং সিস্টেম এমনকি ডিভিডি সিডি হ্যাকিংও কিছু হ্যাকারদের জীবনীর একটা অংশ হয়ে গেছে। এখানে একটা ব্যাপার লক্ষ্য করার মতো, অনেক গ্রে হ্যাট হ্যাকার আর ব্ল্যাক হ্যাট হ্যাকারই ধরা খাবার পরে বিভিন্ন সিকিউরিটি কোম্পানি খুলে বসেন, কিংবা নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ বনে যান। হয়ে যান হোয়াইট হ্যাট হ্যাকার। যদিও অনেকের ক্ষেত্রে পুলিশকে এড়ানোর জন্য এ শুধুই মুখোশ মাত্র! আবার অনেকেই পরবর্তীতে যা-ই করুক না কেন, অতীত কুকীর্তি কিছুতেই ঢাকতে পারেননি।

Hacked

নিচে আরো কয়েক প্রকারের হ্যকারদের সংগে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছিঃ

Anarchists: Anarchists হচ্ছে ঐ সকল হ্যাকার যারা বিভিন্ন কম্পিউটার সিকিউরিট সিস্টেম বা অন্য কোন সিস্টেম কে ভাঙতে পছন্দ করে। এরা যেকোন টার্গেটের সুযোগ খুজে কাজ করে।

Crackers: অনেক সময় ক্ষতিকারক হ্যাকার দের ক্র্যাকার বলা হয়। খারাপ হ্যকাররাই ক্র্যাকার। এদের শক বা পেশাই হচ্ছে ভিবিন্ন পাসওয়ার্ড ভাঙ্গা এবং Trojan Horses তৈরি করা এবং অন্যান্য ক্ষতিকারক সফটয়ার তৈরি করা। (তুমি কি এদের একজন? তাহলে তো তুমি ই হচ্ছ হ্যাকিং এর কিং) ক্ষতিকারক সফটওয়ারকে Warez বলে। এসব ক্ষতিকারক সফটওয়ারকে তারা নিজেদের কাজে ব্যবহার করে অথবা বিক্রি করে দেয় নিজের লাভের জন্য।

Script kiddies: এরা কোন প্রকৃত হ্যকার নয়। এদের হ্যাকিং সম্পর্কে কোন বাস্তব জ্ঞান নেই। এরা বিভিন্ন Warez ডাউনলোড করে বা কিনে নিয়ে তার পর ব্যবহার করে হ্যাকিং ।

হ্যাকাররা অনেক ভাবে হ্যাকিং করেআমি কয়েক প্রকারের হ্যাকিং সম্পর্কে আলোচনা করছিঃ

পিশিং: পিশিং সম্পর্কে তোমরা প্রায় সবাই কিছু জান। আমি নিচে কিছু লিঙ্ক শেয়ার করছি এগুলো পড়লে আরো ভালো ভাবে জানতে পারবে এবং নিজেকে পিশিং এর হাত থেকে রক্ষা করতে পারবে।

Denial of Service attack: Denial of Service attack সংক্ষেপে DoS Attack একটি প্রক্রিয়া যেখানে হ্যাকাররা কোন একসেস না পেয়েও কোন নেটওয়ার্ক এ ঢুকে তার ক্ষমতা নষ্ট করে। DoS Attack এ নেট কানেকশন বা রাউটারের ট্যারিফ বাড়িয়ে দেয়।

Trojan Horses : হচ্ছে একটি প্রোগ্রাম যা অন্যান্য প্রোগ্রামকে নষ্ট করে। এটিকে সবাই ভাইরাস নামেই চিন। Trojan Horses  ব্যবহার করে অন্যান্য প্রোগ্রাম নষ্টের পাশা পাশি পাসওয়ার্ড বা অন্যান্য তথ্য হ্যাকারদের কাছে সংকৃয় ভাবে পৌছিয়ে দেয়।

Back Doors: Back Doors খুজে বের করে হ্যাকাররা কোন সিস্টেম কে কাজে লাগায়। Back Doors গুলো হচ্ছে প্রশাসনিক সহজ রাস্তা, configuration ভুল, সহজে বুঝতে পারা যায় এমন passwords, এবং অসংরক্ষিত dial-ups কানেকশন ইত্যাদি। এরা কম্পিউটার এর সাহায্যে এ ত্রুটি গুলো বের করে। এ গুলো ছাড়া ও অন্যান্য দুর্বল জায়গা ব্যবহার করে কোন নেটওয়ার্ক কে কাজে লাগায়।

Rogue Access Points :কোন ওয়ারলেস নেটওয়ার্কে প্রবেশের জন্য হ্যাকাররা Rogue Access Points  ব্যবহার করে।

এছাড়াও আরো অনেক ভাবে হ্যকাররা হ্যাকিং করতে পারে যা আস্তে আস্তে জানতে পারবে। আমি এ গুলো জানানোর উদ্দেশ্য হচ্ছে তোমাদের কম্পিউটার বা নেটওয়ার্ক সিস্টেমে যেন এ ধরনের ত্রুটি না থাকে। আমি হ্যাকার নই আমি আমি এন্টি হ্যাকার। হ্যাকিং বা হ্যাকার দের প্রতিরোধ করাই আমার কাজ।

হ্যাকিং থেকে বাঁচার কিছু অতি প্রয়জনীয় ট্রিক্সঃ

Firewall

  • ১. কোন অপরিচিত সফটওয়ার ডাউনলোড করা বা ব্যবহার করা থেকে বিরত থাক এমন কি তা যদি তোমার বন্ধুও বলে ব্যবহার করতে(সব বন্ধু না, তুমি যাদের বিশ্বাস কর আবার কর না)।যদি কোন সফটওয়ার নিত্তান্তই ডাউনলোড করা লাগে আগে তার সম্পর্কে নেটে সার্ছ করে যেনে নাও ।
  • ২. কোন সাইটে লগ-ইন করার সময় সাটের এডড্রেসটা ভালো ভাবে চেক করে নাও। মেইল থেকে পাওয়া লিঙ্ক দিয়ে কোথাও লগ-ইন করা থেকে বিরত থাক।
  • ৩. তুমি যদি একজন ডেবলপার হও তাহলে তোমাকে অবশ্যই সাধারন ব্যবহারকারী থেকে আরো ভালো করে সিকিউরিটি সম্পর্কে জ্ঞান থাকতে হবে।
  • ৪. পাসওয়ার্ড সব সময় ৮ ডিজিটের বেশি দাও। কী জেনারেটর সফটয়ার গুলো মাধ্যমে  সাধারন কম্পিউটার দিয়ে এর বেশি ডিজিটের পাসওয়ার্ড ভাংতে পারেন। যত পার নাম্বার দিয়ে পাসওয়ার্ড দেওয়া থেকে বিরত থাক। আর এখন প্রায় সব সাইটেই ইউনিকোড সাপোর্ট করে, তাই যদি কোন শব্দ ব্যবহার কর তাহলে নিজে দেশের শব্দ ব্যবহার কর যা তোমার মনে রাখতে সহজ হয়। তাই বলে ভেব না যে আমি তোমাকে শব্দ ব্যবহার করতে বলছি। যত পার শব্দ ব্যবহার থেকে বিরত থাক। ইংরেজী শব্দকে সম্পূর্ন না বল।
  • ৫. আর অপরিচিত সাইটে লগ-ইন করা থেকে বিরত থাক।

yyyসম্মানীত ভিজিটরগণ উপরোক্ত রিভিউ থেকে আশা করি অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্যাবলী সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। এই পোস্টটি নিজেদের অলংকরন করার পাশাপাশি বিভিন্ন রিভিউ সাইটরে সাহায্য নেয়া হয়েছে তথা- বিভিন্ন হ্যাকারদের সাইট, প্রথম আলো, টিটি, হ্যাকার ফেসবুক হতে সংগৃহীত।

হ্যাকিং সম্পর্কে আরো বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য রয়েছে সেগুলো আগামী কালকের পোস্টে পাবলিশ করবার আশা রাখি। যেহেতু আজকের পোস্টটি অনেক দীর্ঘ হয়ে গেছে তাই এখানেই আমাকে থামতে হচ্ছে। অপরদিকে পোস্টটির কিছু অংশ ইংরাজী সাইট হতে বাংলাতে অনুবাদ করতে হয়েছে কিংবা বানাণ জনিত সমস্যা র্দৃষ্টি গোচর হলে তাহা ক্ষমা সুন্দর ভাবে দেখার আহবাণ করছি।পরিশেষে উক্ত পোস্টে কোন অনুভূতি থাকলে কমেন্ট পাবার প্রত্যাশা করছি। তাহলে সবাই সুস্থ থাকুন।– আল্লাহ হাফেজ-

————————————————

25 মন্তব্য
  1. Nafiz Ur Rahman বলেছেন

    ধ্ননবাদ ভাই

  2. নাঈম প্রধান বলেছেন

    ভাল একটি পোস্ট । শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ।

  3. জাকির হোসেন বলেছেন

    আমাদের সাথে শেয়ার করার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ।

  4. MD. Mostafa Kamal বলেছেন

    নাইস পোস্ট। আপু, এটা কি আমি ফেসবুকে শেয়ার করতে পারি??? oCYBER

  5. ~* ইমন *~ বলেছেন

    অসাধারন হয়েছে..এমন সুন্দর একটি পোষ্ট আমাদের সাথে শেয়ার কারার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

  6. Sunny22 বলেছেন

    apu apner fb id ta daoa jaba…..

    1. MORIOM-CFBT বলেছেন

      @Sunny22: আসলে fb id আছে তবে মিউচুয়াল ব্যতিত তেমন একটা যোগাযোগ হয়না। তাছাড়া ফেসবুকে তেমন একটা সময় দিইনা। তবে বন্ধুরা যৌথভাবে একটি ব্লগ/ওয়েব সাইট ওপেন করতে যাচ্ছি সেখানেই লিংক দিয়ে দেয়া হবে। আশা করি প্রযুক্তি প্রেমী অনেকেই আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারবেন। এই জন্য কিছুদিন …………!

  7. Hasan Quazi বলেছেন

    অনেক দিন পর দীর্ঘ লেখা পড়লাম ভাল লাগল

    1. MORIOM-CFBT বলেছেন

      @Hasan Quazi: ধন্যবাদ আপনাকে।

  8. sabuj4u বলেছেন

    আপনার লিখাটি সুন্দর হয়েছে তাই সামনের দিন গুলিতে আপনার থেকে আরও অনেক কিছু আশা করা যায় । ধন্যবাদ আপনাকে এই রকম সুন্দর কিছু লিখা উপহার দেয়ার জন্য ।

    1. MORIOM-CFBT বলেছেন

      @sabuj4u: পোস্টটি ভিজিট করার জন্য ধন্যবাদ আপনাকে। আশা করি পিসি হেল্প লাইনের সাথে নিয়মিত সময় দিবেন।

  9. Real বলেছেন

    onek dhonnobad shundor post ti upohar dewar jonno

    1. MORIOM-CFBT বলেছেন

      @Real: অসংখ্যক ধন্যবাদ।

  10. B Islam বলেছেন

    আসলেই চমৎকার একটা পোস্ট !হ্যাকার/ হ্যাকিং কি আসলে এটা সবারই জানা উচিৎ ! এক কথায় পোস্ট টি সার্বজনীন কারন যে হারে হ্যাকিং চলছে এখনি সময় সতর্ক হবার ! আপনাকে অনেক ধন্যবাদ পোস্ট টি আমাদের শেয়ার শেয়ার করার জন্য ।

    1. MORIOM-CFBT বলেছেন

      @B Islam: হুম আমিও আপনার সাথে একমত। পোস্টটি ভিজিট ও সুন্দর মন্তব্য প্রদানের জন্য আপনাকে অসংখ্যক ধন্যবাদ।

  11. Purnendu বলেছেন

    খুব ভালো লাগল। ২য় পর্বের অপেক্ষায় থাকলাম।

    1. MORIOM-CFBT বলেছেন

      @Purnendu: মন্তব্যর জন্য ধন্যবাদ।

  12. sazidcse বলেছেন

    অনেক জ্ঞানবহুল একটা পোস্ট দিয়েছেন । 🙂

    1. MORIOM-CFBT বলেছেন

      @sazidcse: ধন্যবাদ।

  13. winsev7en বলেছেন

    ভাল পোস্ট ।

  14. মাহফুজ বলেছেন

    খুবই চমৎকার পোষ্ট। অসাধারণ। পোষ্টটি থেকে অনেক অজানা কিছু জানা হয়েছে। এ রকম পোষ্টটি শেয়ার করার জন্য অসংখ্য ……..ধন্যবাদ।

    1. MORIOM-CFBT বলেছেন

      @মাহফুজ: কমেন্ট করার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

  15. মো: নাসির উদ্দিন বলেছেন

    অনেক কিছু জানতে পারলাম। আর এ জন্য আমি সন্তুষ্ট যে আপনার এই দারুন পোষ্টে সর্ব প্রথম আমিই কমেন্ট করলাম। আপনার সবগুলি পোষ্টই আমার অত্যন্ত প্রিয়। প্রিয় মানুষের পোষ্ট মিস করতে হয় না। তাইতো সারাক্ষন চেয়ে থাকি কখন আপনি পোষ্ট করেন। :p 🙂 😀

    1. MORIOM-CFBT বলেছেন

      @মো: নাসির উদ্দিন: ভাইয়া! নিজেকে বিশ্বাসই করতে পারছিনা আমার পোস্টে কমেন্ট!! নাসির ভাইয়ার পোস্টের লেখাগুলোই যেমন সুন্দর ঠিক তেমনি পোস্টের কমেন্ট গুলোও অনেক সুন্দর!!। পরিশেষে উৎসাহ ও অনুপ্রেরনামূলক মন্তব্যর জন্য আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ ভাইয়া। অপরদিকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা রইল।

  16. মো: নাসির উদ্দিন বলেছেন

    নাইস। খুব ভালো পোষ্ট। ধন্যবাদ আপনাকে।

উত্তর দিন