***প্রিমিয়াম কম্পিউটার সুইট লেটেস্ট ভার্সন***

42 173

পিসি হেল্পলাইন বিডি তে এটি আমার ৫০ তম পোষ্ট| তার মানে হল আমি হাফসেন্চুরী( Half century) করেছি| আমি চাচ্ছি আমার এই পোষ্টটা পাঠকের মনের মাঝে গেঁথে রাখতে| তাই আপনাদের সাথে শেয়ার( Share) করলাম প্রিমিয়াম কম্পিউটার সুইট এর লেটেস্ট ভার্সন(আমার বানানো)। পোষ্টটি অনেক বড় বলে তাতে ছবি দিয়ে আরও বড় করলাম না। তবে যে ভাবে বর্ননা দিয়েছি আশাকরি কারও বুঝতে অসুবিধা হবে না। পোষ্টটি সময় নিয়ে পড়ুন। আর সময় না থাকলে কপি পেষ্ট বা পোস্টের একদম নিচে যেয়ে প্রিন্ট করবেন এ ক্লিক করুন।

আমি বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কম্পিউটার ব্যবহার করি| তবে কোন কম্পিউটারই আমার নিজের কম্পিউটারের মত ফাস্ট(Fast) কাজ করে না| তাই আমি নতুন কোন কম্পিউটার ব্যবহার করতে গেলে একটা তালিকা অনুযায়ী কিছু কাজ করি| যা পিসির অনেক সমস্যা থেকে মুক্তি দেয় এবং কম্পিউটারকে করে বেগবান| এই তালিকাটা দীর্ঘ তিন বছরের পিসি ব্যবহারের আলোকে তৈরী করা|

আমার এক ছোট ভাই আমাকে একদিন বলল যে তার নতুন ল্যাপটপটা চার মাস হলো কিনেছে| কিন্তু ব্যাটারি ব্যকআপ দেয় মাত্র এক ঘন্টা পাচঁ কি দশ মিনিট| তাকে আমার এই তালিকাটা দেই| সে ব্যবহার করে এবং তার ল্যাপটপের বর্তমান ব্যকআপের সময় বেড়ে দাড়ায় প্রায় পাচঁ ঘন্টা|

যাইহোক আর কথা বাড়াবো না| এমনিতেই মনে হচ্ছে পোষ্টটা অনেক বড় হয়ে যেতে পারে| তো চলুন শুরু করি| আমি একদম শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সব বর্ণনা করবো| আপনারা এর যতটুকু খুশি ততটুকু ফলো করবেন| সবটুকুই কাজের|

১.     প্রথমেই আপনি কম্পিউটারে অপারেটিং সিস্টেম ইন্সটল করবেন| সেটা হতে পারে উইন্ডোজ এক্সপি বা সেভেন বা এইট| আশাকরি এটি সেটআপ করতে সবাই পারেন| না পারলে বা নতুন করে ঝালাই করতে হলে এই দুটি লিংকে ঘুরে আসতে পারেন|

উইন্ডোজ এক্সপি                  Click here   এবং

উইন্ডোজ সেভেন                 Click here.

সেটআপ দেয়ার পর নিচের পদ্ধতি গুলো অনুসরণ ব্যতিত কোন ভাবেই ইন্টারনেটের সাথে connected হবেন না| পরবর্তি সকল সফটওয়ার ইন্সটলের ক্ষেত্রে প্রত্যেকটির অটোমেটিক আপডেট বন্ধ করে দিবেন|

 

২.   বেশির ভাগ কম্পিউটার ব্যবহারকারীরা সাধারনত পাইরেটেড অপারেটিং সিডি দিয়ে সেটআপ দেই| তাই হয়তো সবসময় উইন্ডোজ জেনুইন থাকতে নাও পারে| উইন্ডোজ জেনুইন না থাকলে অনেক সমস্যা হয়| যেমন: ডেস্কটপ ব্লাক স্ক্রিন হয়ে থাকে, বিভিন্ন এরর বার্তা আসে ইত্যাদি| এই জন্য আমরা ব্যবহার করি Remove WAT বা Windows Seven Activator এর মত সফটওয়ার| সফটওয়্যার গুলো আপনার কাছে না থাকলে নিচে ক্লিক করে DOWNLOAD করে নিন|

Remove WAT(এক্সপির জন্য)             click here

Windows Seven Activator               click here

 

 

৩.  এর পর আপনাকে পিসির অটোপ্লে (Auto play) বন্ধ করতে হবে যা ডিফল্টভাবে উইন্ডোজে অন করা থাকে| আসলে অটোপ্লেটা আমি এই জন্য বন্ধ করতে চাই যাতে আমি এই অবস্থায় পিসিতে যেকোন পেনড্রাইভ বা কোন সিডি ঢুকায়ে যে কোন সফটওয়্যার ইন্সটল করতে পারি| কারন আমার দরকারি সফটওয়্যার গুলো পেনড্রাইভে রেখে দেই| আর পেনড্রাইভ সেটা তো একটা আজব জিনিষ! এতে ভাইরাস থাকতেও পারে নাও থাকতে পারে| আর যদি ভাইরাস থেকেই থাকে তাহলে যদি পিসির অটোপ্লে বন্ধ না করি তাইলে তো নতুন এই পিসির খবর আছে| তাই রিস্ক নিয়ে কোন লাভ নাই| আগে এর অটোপ্লে অফ করে নেই| ওকে অটোপ্লে অনেক ভাবে বন্ধ করা যায়| আমি সাধারনত নিন্মোক্ত পদ্ধতিতে অটোপ্লে বন্ধ করে থাকি|

TURN OFF AUTOPLAY

Click start menu > Run > type gpedit.msc > ok

you will get the Group policy .

now click Administrative Templeats > system, on the right side you will get Turn off auto play double click on it >  enable > all drive > apply > ok .

again you see Administrative Templeats below. Same task follow.

 

Then start > settings > control panel > Administrative tools > Services then you try to find Shell Hardware Detection from the list . double click on it. এর পরের কাজটি শুধুমাত্র এক্সপি এর জন্য| First Startup type > Disabled >service status> Stop > apply > ok.

কারন সেভেনে এই কাজটি করলে সিকিউরিটি ভাল হবে তবে এতে আপনার ফোল্ডারে যে সকল ইমেজ বা ভিডিও থাকবে তার preview ঠিকমত কাজ করবে না| তাই সেভেন ব্যবহার কারীরা এইটা একটু এড়িয়ে যান|

Restart your computer.

এর ফলে কিন্তু আপনার পিসির যাবতীয় অটোপ্লে চিরতরে বন্ধ হয়ে যাবে| আবার অটোপ্লে ফিরিয়ে আনতে চাইলে জাস্ট রোল ব্যক করবেন উপরের অপশন গুলো| এইটা বললাম এই জন্য যে দেখবেন, এর ফলে আপনার মাদারবোর্ডের সিডি সহ অন্যান্য সকল সিডি অটোপ্লে হচ্ছে না| তবে ঘাবরানোর কিছু নাই| এই অবস্থায়ও অটোপ্লে করা যায়| জাস্ট মাদারবোর্ডের সিডিটি ডিভিডি রমে প্রবেশ করিয়ে My Computer চালু করে সিডিটির উপর মাউসের রাইট ক্লিক করে autoplay অপশনে ক্লিক করুন| তাহলে ঐ সিডিটি অটোপ্লেতে চালু হবে|

 

 

৪.     ওকে এখন এ্যান্টিভাইরাস ইন্সটলের পালা| এখানে আমার একটা কথা যদি উইন্ডোজ জেনুইন হয় তবে মাইক্রোসফট এর সিকুরিটি এসেন্সিয়াল ব্যবহার করাই ভাল| তা না হলে আপনি এভাস্টের লেটেস্ট ভার্সনের কোন ফ্রি এ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করুন| এ্যান্টিভাইরাস ইন্সটলের পর একে আপডেট করুন| নিজের কম্পিউটারে ইন্টারনেট কানেক্ট করবেন না এখন| আগে থেকে এ্যান্টিভাইরাসটির আপডেট ফাইল অন্যকোথাও হতে ডাউনলোড করে রাখবেন এবং সেটি দিয়ে  আপডেট দিন| বেশিরভাগ এ্যান্টিভাইরাসের ম্যানুয়্যাল ভাইরাস ডেফিনেশন আপডেট ইন্টারনেটে পাওয়া যায়| সেটি ডাউনলোড করে ব্যবহার করুন শুধুমাত্র এখনকার জন্য| ভুলেও কেহ টাকা দিয়ে কেনা(যেমন: ক্যাসপারস্কি এ্যান্টিভাইরাস) কোন এ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করবেন না| কারন আপনার উইন্ডোজটাই যেখানে পাইরেটেড করা সেখানে আবার তাকে রক্ষা করার জন্য আমি মনে করি না টাকা খরচ করে কোন এ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করা দরকার আছে|

 

 

 

৫.     এর পর আমি যেটা করি সেটা হল উইন্ডোজের হিডেন (hidden) ফাইল শো করার অপশনটা চালু করে দেই| এতে একটা সুবিধা আছে যেকোন ফোল্ডারে যা কিছু আছে সব দেখা যায়| আবার পেনড্রাইভে ভাইরাসের কারনে কোন ফোল্ডার হাইড হলেও দেখা যায়। আর অসুবিধা একটাই এর ফলে সিস্টেম ফাইল সমুহও দেখা যায়, যাদেরকে নতুনরা ভাইরাস মনে করে| তবে অভ্যস্থ হতে পারলে এই অপশনটা সব সময় চালু রাখবেন|

SHOW HIDDEN FILES AND FOLDERS

Click Start > control panel > Folder Options > view tab > এই ট্যাবের আন্ডারে দেখবেন একটা অপশন আছে Hidden files and folders এর নিচে Show hidden files and folders অপশনটির রেডিও বাটনে ক্লিক করুন| এবং এর নিচের পরবর্তি দুইটা অপশন আনচেক করুন| অপশন গুলো হলো

Hide extensions for known file types এবং

Hide protected operating system files (Recommended) এইটা চাপার সাথে সাথে কোন বার্তা আসলে Yes ক্লিক করুন|

এর পর Apply এবং সর্বশেষে Ok তে ক্লিক করুন| ব্যস আপনার পিসির হিডেন ফাইল শো হয়ে গেল|

 

 

 

৬.    উইন্ডোজ রিস্টার্ট নেবার পর অনেক সময় Num Lock চালু নাও থাকতে পারে| তাই কিবোর্ডের Num Lock বাটনে ক্লিক করে তা চালু করে নিন|

 

৭.     ওকে এখন মাদারবোর্ডের সিডিটা ইন্সটল দিন| তা না হলে তো আপনার উইন্ডোজ মাদারবোর্ডের রাস্তা-ঘাট কিছুই চিনবে না| ইন্সটলের সময় রিস্টার্ট চাইলে, রিস্টার্ট দিন| এতে সফটওয়ার গুলো ভালভাবে ইন্সটল হবে|

 

৮.     এখন আপনি Microsoft office 2007 or 2003 or 2010 যেটা খুশি ইন্সটল দিন| সফটওয়্যার গুলি না থাকলে নিচের লিংকে ক্লিক করে ইন্সটল দিন|

লিংক: Microsoft office 2007

 

 

৯.     এবার বিজয় বায়ান্ন ইন্সটলের পালা| বিজয় বায়ান্ন আপনি এই জন্য ইন্সটল করবেন যাতে যেকোন ডকুমেন্ট বা ইন্টারনেটে বাংলা লিখতে এবং দেখতে পারেন| বিজয় বায়ান্ন না থাকলে আপনি নিচের লিংকে ক্লিক করে তা ডাউনলোড করতে পারেন|

লিংক: বিজয় বায়ান্ন

বিজয় বায়ান্ন, উইন্ডোজ সেভেন বা এইটে ইন্সটলের কোন ঝামেলা নাই| তবে এক্সিপিতে ইন্সটলের ক্ষেত্রে আপনাকে মাইক্রোসফট এর ডটনেট ফ্রেমওয়া্র্ক ৩.৫(.NET Framework Version 3.5) ইন্সটল করতে হবে| এবং এই ডটনেট ফ্রেমওয়ার্ক ৩.৫ ইন্সটলের জন্য আবার পিসিতে ২.৪৬ মেগাবাইটের WindowsInstaller-KB893803-v2-x86 3.1.exe সফটওয়ারটা ইন্সটল করতে হবে| এত ঝামেলা মনে হচ্ছে! ঝামেলাতো আমি করছি না| মাইক্রোসফট ই এই সকল ঝামেলা করে রেখেছে| তবে খুশির বিষয় হলো যে সাধারনত বর্তমানের সকল মাদারবোর্ডের সিডিতে এই গুলো বিন্টইন প্যাকেজ থাকে| তাই মাদারবোর্ডের সিডিটা ভাল করে ইন্সটল করলে এই ঝামেলা দরকার হবে না| নিচের লিংকে ক্লিক করে ডাউনলোড করতে পারেন।

.NET Framework Version 3.5                                 click here

WindowsInstaller-KB893803-v2-x86 3.1.exe     click here

 

 

১০.     ICOMPLEX নামক একটা ইন্ডিয়ান সফটওয়ার আছে যা শুধুমাত্র এক্সিপি ব্যবহারকারীরা ইন্সটল করবেন| সেভেন বা এইটের এর কোন প্রয়োজনীয়তা নেই| এর ফলে পিসিতে ইউনিকোড ফ্রন্ট ইন্সটল হয়| ফলে যেকোন ফোল্ডার এর নাম বা কোন ডকুমেন্টের নাম বাংলায় লেখলে ভাল দেখা যায়| কাছে না থাকলে নিচের লিংক হতে ডাউনলোড করুন|

Download

 

 

১১.    এখন আমরা মাউসের একটা Settings চেন্জ করবো| তাহলে মাউজটা স্পিডি হবে|

Speed up Mouse: click Start > Control Panal > Mouse. Buttons ট্যাবের আন্ডারে  Double-click Speed টা একদম Slow তে সেট করুন| ফলে আপনি কোন ফোল্ডারে ঘুমিয়ে ঘুমিয়ে ক্লিক করলেও তা ওপেন হবে|

এর পর Pointers Options ট্যাবে ক্লিক করুন| এখানের Motion এর সেটিংটা একদম Fast এ সিলেক্ট করুন| এতে হবে কি আপনার মাউস সামান্য একটু নড়াচড়া করলেই দেখবেন যে মাউসের পয়েন্টার খুব দ্রুত নাড়াচাড়া করছে|

এরপর Apply এবং Ok করুন| দেখবেন আপনার মাউজ খুব ফাস্ট হয়ে গেছে|

 

 

 

১২.    এখন উইন্ডোজের অটোমেটিক আপডেটটা বন্ধ করে দিব এবং এর নটিফেকেশনটাও বন্ধ করে দিব যাতে আপডেট না করতে বলে|

Turn off Windows Automatic Update : Click Start > Control Panel > Automatic Updates আছে সেখানে ক্লিক করুন| এরপর Turn off Automatic Updates এর রেডিও বাটনে ক্লিক করুন| এরপর Apply এবং Ok. আপনার পিসির উইন্ডোজের অটোমেটিক আপডেট বন্ধ হয়ে গেল| এবার নিচের পদ্ধতি অনুযায়ী সিকুরিটি সেন্টারের নটিফিকেশন অফ করে দিন|

Disable security alert : click  Start Menu > Run > regedit > ok then click > HKEY_LOCAL_MACHINE > SOFTWARE > Microsoft > Security Center  double click on each option and give value 1 instead of 0

AntiVirusDisableNotify  0 > 1

FirewallDisableNotify 0 > 1

UpdatesDisableNotify  0 > 1

After that restart your pc.  আশাকরি বুঝতে পেরেছেন এবং পদ্ধতিটি সম্পন্ন করতে পেরেছেন|

 

 

 

১৩.     উইন্ডোজ বড়ই চালাক| আপনি যে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ ব্যবহার করবেন তার ২০% সে তার উইন্ডোজ আপডেট করার জন্য সবার অলক্ষে রেখে দেয়| যার ফলে ইন্টারনেট কানেকশনে আশানুরুপ স্পিড পাওয়া যায় না| তাহলে চলুন তার এই প্রসেসটা বন্ধ করে দেই|

Speedup your internet: Click start > run > type gpedit.msc > computer configuration > administrative templates > network > QoS packet scheduler> double click on Limit reservable bandwidth > check/select the enabled radio button> in potios frame > bandwidth limit(%) to 0> apply > ok.

আপনার ইন্টারনেট স্পিড ২০% বেড়ে গেল|

 

 

 

১৪.    সিয়াম রুপালী নামক একটা ইউনিকোড ফ্রন্ট আছে যা আপনি Fonts ফোল্ডারে পেস্ট করুন। না থাকলে নিচে ক্লিক করে ডাউনলোড করুন।

Download

আর Fonts ফোল্ডারটি পেতে ক্লিক করুন Start > Control Panel > Fonts > তারপর পেষ্ট করুন। পরবর্তি কিছু কাজের জন্য এই ফ্রন্ট দরকার হবে।

 

 

 

১৫.     মোটামুটি উইন্ডোজের কাজ শেষ। এখন কিছু সফটওয়্যারের কথা বলব। যারা আমার মত নকিয়া মোবাইলকে মডেম হিসেবে ব্যবহার করে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন তারা অভি সুইট অথবা পিসি সুইট ইন্সটল করুন। লেটেস্ট নকিয়া সুইট ডাউনলোড করে ইন্সটল না করাই ভাল। কারন সম্প্রতি নকিয়া আর মাইক্রোসফট এক হয়ে কাজ করছে। তাই কথা একই নকিয়া সুইট ব্যবহার করতে হলে আপনাকে উইন্ডোজ ভ্যালিডেশন( validation) পরীক্ষায় পাস করতে হবে। তাই নকিয়া সুইট এড়িয়ে যান। তারপরেও যারা নকিয়া সু্ইট ব্যবহার করতে চান তারা নিচের লিংক হতে নকিয়া সুইট এর একটি পুরাতন ভার্সন ডাউনলোড করে নিতে পারেন। তবে ইন্সটলের পর কোন আপডেট দিবেন না।

Download: এইটার ডাউনলোডের পর পাসওয়ার্ড দিন (www.pchelplinebd.com) ব্রাকেটের ভিতরের অংশটুকু।

যারা নকিয়া বাদে অন্যান্য মোবাইল মডেম হিসেবে ব্যবহার করে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন তারা এখন ঐ মোবাইলের নির্দিষ্ট সুইট ইন্সটল দিন।

যারা মডেম দিয়ে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন তারা মডেম এর সফটওয়্যার সেটআপ দিন।

এই মডেম বা যেকোন সুইট, এক্সপিতে ইন্সটলের সময় একটি সমস্যার বার্তা দেখাতে পারে। আর তা হলো HOTFIX ফিক্স করা। এইটা ফিক্স না করলে সাধারনত মডেম এ কিছুটা স্পিড কম পাওয়া যেতে পারে বা মডেম ইউ এস বি তে ঠিকমত কানেক্ট নাও হতে পারে। নিচের ডাউনলোড এ ক্লিক করে এক্সপি ব্যবহারকারীরা ছোট ফাইলটি ডাউনলোড করুন।

Download

 

 

 

১৬.    এবার মজিলা ফায়ারফক্স ইন্সটল দিন যার মাধ্যমে খুব স্পিডে ইন্টারনেট ব্রাউজ করতে পারবেন। লেটেস্ট ভার্সনটা ইন্সটল দিন। তবে আমার কাছে মজিলার ৪(চার) নং ভার্সনটাই সবচেয়ে ভাল লাগে। মজিলা অনেক সময় ক্রাশ( crash) করতে পারে। এক্ষেত্রে আপনি তার ভার্সনটা পরিবর্তন করলেই সেই সমস্যার সমাধান হতে পারে।

মজিলার ইন্সটল হয়ে গেলে এবার এর একটা অ্যাড অন্স ইন্সটল করতে রিকমান্ডেড( recommend) করবো। অ্যাড অন্সটির নাম Multifox. নিচের ডাউনলোড লিংকে ক্লিক করে বিস্তারিত জানুন এবং ডাউনলোড করুন।

Download

অনেকেই আমরা মজিলা ঠিকই ব্যবহার করি, কিন্তু এটি দিয়ে যে ইন্টারনেটের সকল ওয়েব সাইটের ক্লিয়ার কাট বাংলা ভাষা দেখা যায় তা জানি না। তো চলুন সেই সেটিংটা একটু ঠিক করে নেই, যাতে মাতৃভাষা বাংলা স্পষ্ট, স্বচ্ছ ও বড় বড় অক্ষরে দেখতে পারি।

See Bangla Fonts in Mozilla: মজিলা ফায়ারফক্স চালু করুন। ক্লিক করুন Tools > Options > Content Tab > তারপর Fonts and Colors সেটিংসের আন্ডারে যে Advanced… আছে তাতে ক্লিক করুন। এখন ড্রপডাউন মেনু থেকে এই সেটিংস গুলো চেন্জ করুন।

Fonts for :            এখানে Bengali সিলেক্ট করুন।

Proportional:     Sans  Serif

Serif:                   Siyam Rupali (খুজেঁ না পেলে পয়েন্ট নং ১৪ আবার দেখুন)

Sans-serif:          Siyam Rupali

Monospace:       Siyam Rupali                    size: 16

তারপর নিচের একটা সেটিংস

Default Character Encoding:      Unicode (UFT-8)

এর পর Ok. ব্যস শেষ। এখন https://www.pchelplinebd.com এর ফন্ট গুলো দেখুন কত জীবন্ত।

 

এইবার আমরা মজিলার স্পিড বাড়ানোর জন্য কিছু সেটিং চেন্জ করবো। যারা এ্যাডভান্স ইউজার তারা নিচের সেটিংগুলো চেন্জ করবেন। আর যারা আমার মত নরমাল তাদের জন্য নিচের সেটিংস এর নিচে একটা সফটওয়্যার দিচ্ছি শুধু তাতে একবার ডাবল ক্লিক করলেই যথেস্থ।

Settings for Speed up Mozilla:

go to address bar type about:config  press enter.

Then firefox configuration will come.  Change the value of TRUE of these       network.http.pipelining,

network.http.proxy.pipelining,

network.dns.disableIPv6  and

plugin.expose_full_path .

Then change the value 8 instead of 4 of  network.http.pipelining.maxrequests.

now  creater a new integer preference named nglayout.initialpaint.delay  give value 0.

Same way content.notify.backoffcount > 5,

ui.submenuDelay > 0,

content.max.tokenizing.time2250000,

content.notify.interval >  750000 ,

browser.cache.memory.capacity > 65536 ,

now create two buliean preference  named content.interrupt.parsing     and   content.notify.ontimer  give the value  true  …

now you see your firefox speed up.

 

নরমাল ব্যবহারকারীরা নিচের ডাউনলোড লিংকে ক্লিক করে ‍Speedy Fox নামক সফটওয়্যারটি ডাউনলোড করুন।

Download

 

 

 

১৭.     মজিলা ফায়ারফক্স চালু করার পর একটি কাজ আমি সবসময় করি যা এখন আমি আপনাদের করে দেখাবো। Task Manager চালু করবো। কিবোর্ডের তিনটা বাটন Ctrl+Alt+Delete একসাথে ক্লিক করলেই তা চালু হবে। এরপর এর Application ট্যাব এ দেখবেন আপনার নেটওয়ার্ক কানেকশনের এপ্লিকেশন আছে। তাতে মাউজের রাইট ক্লিক করুন। go to process এ যান । প্রসেস ট্যাবে আপনার নেটওয়ার্ক কানেকশনের প্রসেসটি দেখাবে। এখন সেই প্রসেসটির উপর মাউজের রাইট ক্লিক করে Set Priority থেকে AboveNormal সিলেক্ট করে দিন।

একই ভাবে আবার  process ট্যাবে Firefox.exe নামক একটা প্রসেস দেখতে পারবেন। যাতে মাউজ রেখে রাইট ক্লিক করুন। set priority থেকে high সিলেক্ট করে দিন। প্রতিবার মজিলা চালু করে এটি করতে হবে। কারন মজিলা বন্ধ করলে এই সেটিংস টা থাকে না। এই সেটিংসটা শুধু মাত্র এ্যাডভান্স ব্যবহারকারীদের জন্য। নতুনরা এই ১৭ নং পয়েন্টটা এড়িয়ে যান।

 

 

 

১৮.    এখন ইন্টারনেট কানেকশনের স্পিড বাড়াবো। তার জন্য আপনি TCPOptimizer নামক পোর্টেবল সফটওয়্যার ব্যবহার করবেন, যার লিংক নিচে দেয়া হল।

Download

এর ব্যবহারবিধি জেনে নিন:- প্রথমে TCPOptimizer ‍সফটওয়্যারটায় ডাবল ক্লিক করুন। Connection Speed টায় ড্রাগ করে 56 kbps এ আনুন। তারপর Network Adapter selection এর নিচের Modify All Network Adapters এ চেক দিন। তার পর একদম নিচের Choose settings: এ আসুন। এখানে Optimal এর রেডিও বাটনে ক্লিক করুন। তারপর Apply changes ক্লিক করুন। ব্যস কাজ কিছুটা শেষ।

 

 

 

১৯.     যদি মডেম বা মোবাইল দিয়ে পিসিতে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন তাহলে পরবর্তি সেটিংস আপনার জন্য। প্রথমে আপনার মডেম বা মোবাইল পিসিতে কানেক্ট করুন। ডেক্সটপের My Computer মাউসের রাইট ক্লিক করুন। তারপর Manage এ ফলে Computer Management চালু হবে। এরপর Device Manager এ ক্লিক করুন। এবার ডান পাশের Modems এ ক্লিক করুন। দেখবেন আপনার কানেক্ট করা মডেম বা সেটের নাম আছে। সেই মডেমের নামের উপর ডাবল ক্লিক করুন। তাহলে তার প্রোপার্টিজ চালু হবে। উপরের Modem ট্যাবে ক্লিক করুন। এখন দেখুন Maximum Port Speed 460800 সিলেক্ট করা আছে কিনা। না থাকলে ড্রপডাউন মেনু থেকে করে নিন। এর পর Ok তে ক্লিক করুন।

 

আবার Computer Management এ চলে আসুন। ক্লিক করুন Ports (COM & LTP) তে। এখানে দেখবেন এক বা একের অধিক মডেমের নাম থাকতে পারে। এথন আপনার মডেমের নামের উপর ডাবল ক্লিক করুন। Port Settings ট্যাবে ক্লিক করুন।

Bits per second: এ সর্বোচ্চ (128000)

Data bits: 8

উপরের কাজ করার পর Advanced… এ ক্লিক করুন।

দেখুন Receive Buffer: এবং Transmit Buffer: High (14) এ আছে কিনা। না থাকলে ড্রাগ করে সিলেক্ট করুন। এরপর OK আবার OK করুন।

একই কাজ আপনার একই নামের পরবর্তি মডেমের ক্ষেত্রে করুন।

 

 

 

২০.     এরপর ক্লিক করুন Start > Control Panel > Network Connections দেখবেন আপনার মডেম/মোবাইলের নাম দেখা যাচ্ছে। মডেমটাতে মাউসের রাইট ক্লিক করুন। তারপর Properties এ ক্লিক করুন। মডেমের প্রপার্টিজ চালু হবে। এখন General এর আন্ডারে Connect using এ আপনার মডেমের নামটি থাকবে। তার নিচের Configure… বাটনে ক্লিক করুন। এখন Maximum speed (bps) ড্রপ ডাউন মেনু হতে 921600 সিলেক্ট করে Ok করুন। তারপর আবার Ok সিলেক্ট করে কাজ শেষ করুন।

 

 

 

 

২১.     এখন আমি আরেকটা কাজ করবো। মডেম বা মোবাইল সেট থেকে অনেক সময় ইন্টারনেট কানেক্ট হতে সময় লাগে বা বিভিন্ন সমস্যা হয়। তাই আমি সাধারনত নিচের সেটিং হতে এক ক্লিকে কানেক্ট হই। এইটা মোবাইল বা মডেমের   সিমের উপর নির্ভরশীল। নিচে আমি জিপি সেটিংসটা দেখাবো।

GP settings : ক্লিক করুন ‍start > Control Panel > Network Connections এখন দেখবেন বাম পাশে Creat a new connection আছে। সেখানে ক্লিক করুন।

তারপর Next > Connect to the Internet এর রেডিও বাটনে সিলেক্ট করে Next ক্লিক করুন। এর পর Set up my connection manually এর রেডিও বাটনে সিলেক্ট করে Next এ ক্লিক করুন। Connect using a dial-up modem এর রেডিও বাটনে সিলেক্ট করে Next এ ক্লিক করুন। এখন ISP Name এ যে কোন নাম দিন। আমি দিলাম GP. এরপর Next. এর পর Phone number এ লিখুন *99# এটি জিপির জন্য। যারা অন্য সিম ব্যবহার করবেন তারা এই ফোন নম্বরটা জেনে বসিয়ে দিবেন। এরপর Next. পরে যে পর্দাটা আসবে তাতে কিছু না লিখে Next এ ক্লিক করুন। এটি হল কানেকশন সেটিংস এর শেষ পর্ব। এখানে Add a shortcut to this connection to my desktop এ চেক দিয়ে Finish এ ক্লিক করুন। এখন দেখবেন কানেক্ট GP নামক একটা পর্দা আসবে যার

Dial এ ক্লিক করে খুব সহজেই ইন্টারনেটের সাথে কানেক্ট হতে পারবেন। পরবর্তিতে কানেক্ট হবার জন্য আপনি ডেক্সটপে দেখবেন GP নামক একটি সর্টকার্ট হাজির হয়েছে। যাতে ডাবল ক্লিক করেও ইন্টারনেটে কানেক্ট হতে পারবেন।

 

 

 

২২.      খুব কি জটিল মনে হচ্ছে! না তাহলে আর সেটিংস নিয়ে আলোচনা করবো না। এখন কয়েকটি দরকারী সফটওয়্যার ইন্সটল করতে বলব। প্রথমেই আপনার দরকার হবে উইনরার(Winrar) নামক সফটওয়্যার। এটির মাধ্যমে আপনি সকল .rar নামক ফাইল ওপেন করতে পারবেন। যদি আপনার কাছে সফটওয়্যারটি থাকে তবে তা এখন ইন্সটল দিন। আর না থাকলে নিচের লিংকে ক্লিক করে মিডিয়াফায়ার হতে ডাউনলোড করুন।

Download:

 

 

২৩.     এবার আমরা মজিলা ফায়ারফক্সের জন্য একটি adobe flash player ইন্সটল করবো। এটি না করলে মজিলা আপনাকে এই জিনিষ ইন্সটল করার জন্য বার বার ডিস্টার্ব করতে পারে। adobe flash player না থাকলে নিচের লিংকে ক্লিক করে তা ইন্সটল করে নি।

Download:

 

 

 

২৪.     ইন্টারনেটের ডাউনলোড ও আপলোড স্পিড জানার জন্য ছোট একটা ফ্রি সফটওয়্যার ব্যবহার করবো। সফটওয়্যারটির নাম Net Meter. কাছে না থাকলে নিচের লিংকে ক্লিক করে ডাউনলোড করে নিন।

Download:

 

 

 

২৫.     যারা অনেক্ষনধরে কম্পিউটার ব্যবহার করেন তাদের চোখের সমস্যা হতে কিছুটা হলেও রক্ষা করবে Flux নামক এই সফটওয়্যার যা নিচের লিংক হতে ডাউনলোড করে নিন।

Download:

 

 

 

২৬.    এবার দিবো ছোট্ট একটি সফটওয়্যার নাম unlocker. যার মাধ্যমে আপনি যেসকল ফাইল ডিলেট হতে চায় না তাকে জোর করে ডিলেট করবেন। নিচের লিংক হতে ডাউনলোড করতে পারেন।

Download:

 

 

 

২৭.     এরপর আসতেছে ATTRIBUTE CHANGER নামক সফটওয়্যার। অনেক সময় ভাইরাসের কারনে পিসির হার্ডড্রাইভ বা পেনড্রাইভের অনেক ফোল্ডার/ফাইল হাইড হয়ে যায়। হাইড হইছে কিনা তা বুঝার জন্য উপরের ৫ নং পয়েন্টটা আবার পড়ুন। যাই হোক উইন্ডোজের ডিফল্ট কোন সফটওয়্যার দিয়ে ফাইলের ATTRIBUTE  পরিবর্তন করা যায় না। তার জন্য নিচের লিংক হতে সফটওয়্যারটা ডাউনলোড করে নিন।

Download:

এর ব্যবহারবিধি খুব সহজ। হিডেন ফাইল শো করার পর যেই ফাইল হিডেন হয়ে থাকবে তার উপর মাউজের রাইট ক্লিক করুন। তারপর Change Attribute এ ক্লিক করুন। বাকীটা আপনার উপর ছেড়ে দিলাম।

 

 

 

 

২৮.    আমাদের পরবর্তি সফটওয়্যার হলো FOXIT READER. সাধারনত পিডিএফ ফাইল দেখার জন্য এডোবি রিডার ব্যবহার করি। কিন্তু এই এডোবি অনেক রিসোর্স নিয়ে চালু হয়। কিন্তু আমারতো ভাই দরকার হলো ফাস্ট ওপেন হওয়া। তাই আমি ফক্সিড রিডার ব্যবহার করি। না থাকলে নিচের লিংক হতে ডাউনলোড করে নিন।

Download:

 

 

 

 

২৯.      দরকারী সফটওয়্যারের Do PDF মধ্যে এর অবস্থান ঐচ্ছিক। মানে ইন্সটল করতেও পারেন, না করলেও চলে। তবে আমার পিসিতে এটি আছে তাই আপনাদের সাথে শেয়ার করলাম। এর মাধ্যমে খুব সহজেই যেকোন ডকুমেন্ট কে পিডিএফ ফাইলে রুপান্তর করতে পারবেন। পিডিএফ বানানোর জন্য অনেননননক রকম সফটওয়্যার আছে। আপনার কাছে যদি অন্য কোন সফটওয়্যার থাকে তাহলে এটির কোন দরকার নাই। আর যদি না থেকে থাকে তাহলে নিচের লিংকে ক্লিক করে তা ডাউনলোড করে নিতে পারেন।

Download:

ব্যবহারবিধি সহজ। ইন্সটলের পর যে ডকুমেন্টটি পিডিএফ করতে চান তা ওপেন করুন। তার পর প্রিন্ট(print) অপশনে যান। do pdf সিলেক্ট করে প্রিন্ট কমান্ড দিন। ব্যস দেখবেন আপনার নির্দিষ্ট ফোল্ডারে সুন্দর একটি পিডিএফ ফাইল তৈরী হয়েছে।

 

 

 

 

৩০.     একটু ভিডিও ফাইল না দেখলে কেমন হবে। ভিডিও ফাইল দেখার জন্য আমি দুইটা প্লেয়ার ব্যবহার করি। একটি হলো উইন্ডোজ মিডিয়া প্লেয়ার ও অপরটি হলো KM Player. এখন কথা হলো উইন্ডোজ মিডিয়া প্লেয়ার এ সব ফাইল নাও চলতে পারে। তার জন্য আমি একটা কাজ করি। লেটেস্ট K-Lite_Codec_Pack ব্যবহার করি। আপনি যদি তা করতে চান তাহলে নিচের লিংক হতে ডাউনলোড করে নিন।

Download:

ডাবল ক্লিক করে ইন্সটল শুরু করে দিন। ইন্সটলের এক পর্যায়ে এই রকম একটা অপশন আসবে… একটু খেয়াল করুন…

File associations

Select the player(s) for which you would like to create file associations

এর নিচে আপনার পিসিতে যত গুলি প্লেয়ার থাকবে তার নাম দেখতে পারবেন। আপনি এখানে শুধু মাত্র Windows Media Player এ চেক মার্ক করে পরবর্তি উইন্ডোতে এগিয়ে গিয়ে ইন্সটলেশন শেষ করবেন। এর ফলে আপনার উইন্ডোজ মিডিয়া প্লেয়ার দিয়েই সমস্ত ফাইল সমূহ চালাতে পারবেন।

 

 

 

 

৩১.     উইন্ডোজ মিডিয়া প্লেয়ার বাদেও আমি আরেকটা প্লেয়ার ব্যবহার করি যার নাম KM Player. এই প্লেয়ারটা যদি ব্যবহার করতে চান তাহলে নিচের লিংক হতে ডাউনলোড করে নিন।

Download:

 

 

 

৩২.    আহারে আরেকটা সফটওয়্যারের কথাতো ভুলেই গেছিলাম। সেইটার নাম হলো Internet Download Manager. বেশির ভাগ ইন্টারনেট ব্যবহারকারীই এর নাম জানেন। যারা না জানেন তাদের জন্য একটু বলি। এই সফটওয়্যার দিয়ে ইন্টারনেট হতে যেকোন ফাইল খুব স্পিডে ডাউনলোড করা যায়। ডাউনলোড করার মাঝে যদি বিদ্যুত বিভ্রাট হয়ে কম্পিউটার বন্ধ হয়ে যায়, তার পরেও যতটুকু ডাউনলোড করেছিলেন ঠিক তার পরের বাকিটুকু ডাউনলোড করা যায়। আমার কাছে এই সফটওয়্যার টার 6.6 ভার্সন আছে। ভার্সনটা বলে দিলাম। কারন অনেকেই আছেন যে, এর থেকেও আপার ভার্সন ব্যবহার করেন। আপনাদের যার দরকার নিচের লিংকে কি করবেন? ক্লিক করে ডাউনলোড করবেন। এই সফটওয়্যারটা আপডেট দিবেন না।

Download:

 

 

 

 

৩৩.     পরবর্তি সফটওয়্যার Revo Uninstaller Pro পোর্টেবল ভার্সন। যে কোন সফটওয়ার ইন্সটলের পর আপনি যখন নরমাল ভাবে(start > Control Panel > Add or Remove Programs) আনইন্সটল করবেন তখন অনেক Left over file সিস্টেমে থেকে যায়। যা পরবর্তিতে সিস্টেম কে স্লো করে দেয়। কিন্তু এই রিভো আনইন্সটলার এর মাধ্যমে যদি আপনি কোন সফটওয়্যারকে আনইন্সটল করেন  তবে সিস্টেমে আর কোন ব্যাড ফাইল থাকতে পারে না। এর রয়েছে আরও অনেক ফিচার। পোর্টেবল দিলাম কারন পোর্টেবল সফটওয়্যার এ লাইসেন্সের ঝামেলা নাই। তাই নিশ্চিন্তে ইন্সটল করুন। ইন্সটল হয়ে গেলে তা চালু করুন। দেখবেন আপনার পিসিতে ইন্সটলকৃত সব সফটওয়্যার দেখাচ্ছে। এখন যেটি ডিলেট/আনইন্সটল করতে চান তার উপর ডাবল ক্লিক করুন। ডিলেটের কাজ শুরু হয়ে যাবে। এর পরে একটা পর্দা আসবে এই রকম Scaning Leftover files যার কথাই এতক্ষন বলতে চাইছি। দেখলেই বুঝবেন। ডাউনলোড করতে চাইলে নিচের লিংকে ক্লিক করুন।

Download:

 

 

 

 

৩৪.     এই টা লাস্ট সফটওয়্যার। আর কোন সফটওয়্যার ইন্সটল করতে বলবো না। নাম CCLEANER. সি ক্লিনার । নাম দেখেই বুঝা যাচ্ছে যে এটি কম্পিউটারের সি ড্রাইভকে ক্লিন করে। ঠিক তাই এটি খুবই খুবই গুরুত্বপূর্ণ সফটওয়্যার। তাইতো এটার বর্ননা আমি একদম শেষে দিলাম। বিভিন্ন সময় সফটওয়্যার ইন্সটল/আন ইন্সটল, বিদ্যুত বিভ্রাট, উল্টাপাল্টা সেটিংস, ঠিকমত সফটওয়্যার ওপেন বা ক্লোজ না করা ইত্যাদি ইত্যাদি কারনে পিসিতে বিভিন্ন UNWANTED ফাইল সিস্টেমে জমা হয়, রেজিষ্ট্রি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। যার ফলোশ্রুতিতে আপনার পিসি স্লো হয়। সি ক্লিনার এই কাজ গুলো ঠিক করে দেয়। এর ব্যবহারবিধি খুব সহজ। ইন্সটলের পর চালু করুন। চালু করার পর ডিফল্ট ভাবে এটি Cleaner ট্যাবে থাকবে। এরপর নিচের Analyze এ ক্লিক করুন। দেখবেন আপনার পিসির অনেক পরিমান ফাইল দেখাবে যার কোন দরকার নাই। তারপর Run Cleaner এ ক্লিক করুন। এরপর উপরের বাম পাশে Registry তে ক্লিক করুন। এরপর Scan for Issues তে ক্লিক করুন। দেখবেন অনেক Error দেখাচ্ছে। এর পর Fix selected issues… তে ক্লিক করুন। এর পর No > Fix All Selected Issues > close. আবার ‍Scan for Issues > Fix selected issues… > No > Fix All Selected Issues > close. ব্যাস আপনার পিসি সুপারফাস্ট হয়ে গেল। সফটওয়্যারটি না থাকলে নিচের লিংক হতে ডাউনলোড করুন।

Download:

 

 

 

৩৫.     নাহ আর কোন সফটওয়্যার নয়। শুধু আর একটা দরকারী টিপস। অনেকে জানতে চায় যে ভাই আমিতো মজিলা ওপেন করে কিছু না করলেও মেগাবাইট কাটে। লাস্টে এসে তা এই গোপন বিষয়টা জানিয়ে যাই। তা হলো অনেক সফটওয়্যার ইন্সটলের সময় এর সাথে আরও দু-একটি ফ্রি সফটওয়্যার অটো ইন্সটল হয়। তেমন একটি হচ্ছে ASK.com টুলবার। এটি একটি উধাহরন। অনেক সময় আরো কিছু ইন্সটল হয়। যাই হোক এই টুলবারটি খুবই খারাপ। সে অটোতো ইন্সটল হয়ই, আবার ইন্টারনেট কানেক্ট থাকলে ঘন্টায় ঘন্টায় আপডেট হয়। কি বিশ্বাস হয় না। তাহলে ক্লিক করুন ‍start > All Programs > Accessories > System Tools > Scheduled Tasks দেখবেন যে ASK.com নামক একটা সিডিউল জব করা আছে। ঐটা রিমোভ করে দিবেন। টাস্ক ম্যানেজার নিয়ে আমার একটা বিস্তারিত লেখা আসে দেখে আসতে পারেন যদি আপনার আগ্রহ একটু বেশি হয়।

লিংক: Task Manager

ব্যস ভাই কাজ শেষ।

এই পোস্টের লেখা বুঝতে কোন সমস্যা হলে আমার ফেসবুক আইডিতে নক করতে পারেন।

আমার ফেসবুক আইডি: http://www.facebook.com/mdnsr

আমার এই পোষ্ট কতটুকু সার্থক হল তার বিচার আপনাদের কাছে। সবাই ভাল থাকবেন। ধন্যবাদ।

 

 

42 মন্তব্য
  1. mtbiswas বলেছেন

    thanks. thanks. thanks.++++++++++++

  2. লিটন হাফিজুর বলেছেন

    thanks for share

  3. সবুজ জাহিদ বলেছেন

    নাসির ভাই অভিনন্দন আর পুরো সেঞ্চুরির অপেক্ষাই থাকলাম ……।।

  4. Miraz Hossain বলেছেন

    নাসির ভাই, এত সুন্দর পোস্ট করার জন্য আপ্নাকে হাজারবার ধন্নবাদ।

    ১৫. HOTFIX
    ১৮. TCPOptimizer
    ২৪. Net Meter
    ৩৩. Revo Uninstaller Pro
    এই সফটওয়ার গূলো ডাওণলোড কড়তে পাড়ছি না……।
    দয়া করে একটু হেল্প করবেন…………।।

  5. Miraz Hossain বলেছেন

    ????? ???, ?? ?????? ????? ???? ???? ??????? ???????? ????????

    ??. HOTFIX
    ??. TCPOptimizer
    ??. Net Meter
    ??. Revo Uninstaller Pro
    ?? ??????? ???? ??????? ???? ????? ??……?
    ??? ??? ???? ????? ?????…………??

  6. Manik Laal বলেছেন

    নাসির ভাই আপনাকে লক্ষ্য কোটি ধন্যবাদ

  7. shomu11 বলেছেন

    bahi sob thik ace kintu 13 no option kaj korcena/////////bikolpo poddote thakle janaben . uppokrito hobo !!!!!!!! Thanks

  8. Nil Manush বলেছেন

    নাইস। খুব ভাল পোষ্ট। ধন্যবাদ আপনাকে।

  9. অজ্ঞাতনামা কেউ একজন বলেছেন

    ur ms office doesnt work

  10. roman বলেছেন

    Thanks vai, post ta onk valo hoise,, ek post ei sob kichu pelam

  11. shatu বলেছেন

    আপনি কি Nokia Smartphone User, আর আপনার ফোনটা কি Touch screen?

    তাহলে এই Windows7 Software টা আপনার জন্য।
    সফটওয়্যার টা ডাউনলোড এর লিঙ্ক তো এখানে। মাত্র ১৮০কেবি। Download link- http://adf.ly/9vm1d
    আর একটা কথা আপনার ফোন টা অবশ্যই s60v3 অথবা s60v5 Touch screen হতে হবে।
    Install করার প্রক্রিয়া টা একবার দেখুন।
    ডাউনলোড করার পর Extract করুন Computer থেকে, অথবা এই সফটওয়্যারটা দিয়া মোবাইল থেকেই Extract করতে পারেন। Download link- http://adf.ly/9vmSd
    Extract করার পর, Windows7.sis সফটওয়্যারটা প্রথমে Install করুন, তারপর Windows7 pitch টা Install করুন। এখন আপনার কাজ শেষ।

    1. মো: নাসির উদ্দিন বলেছেন

      ভাই সেতু, আপনি এইটা কি দিলেন কমেন্ট নাকি পোষ্ট কিছুইতো বুঝলাম না। তাও নেন একটা ধন্যবাদ দেই আপনাকে।

  12. সিহাব সুমন বলেছেন

    thanks for share.

    1. মো: নাসির উদ্দিন বলেছেন

      ওয়েলকাম ব্রাদার সিহাব সুমন।

  13. রহস্যময়ী ভিজিটর বলেছেন

    Thanks 4 share nice this Post. সত্যি চমৎকার হয়েছে !!!! এতো সুন্দর ও শুদ্ধ ভাবে উপস্থাপন আপনার সুন্দর মনের বহিঃপ্রকাশ । এই সুপার হিট এবং ৫০তম পোস্টটির জন্য আপনাকে আন্তরিক অভিনন্দন । এবং এই পোস্টটি প্রিয়তে যোগ করলাম। আশা করি আরো ভাল ভাল পোস্ট উপহার দিবেন আমাদেরকে।

    1. মো: নাসির উদ্দিন বলেছেন

      ধন্যবাদ রহস্যময়ী ম্যাডাম।

  14. Polash Chandra Das বলেছেন

    nasir vai I m waiting for your 100.

  15. Shemul Ahmed Shohag বলেছেন

    congrats for 50.

  16. Meraj Kader বলেছেন

    onek kothin mone hochhe, tarpor o chesta korbo. amar laptop a 4 hour back-up thakto, after 2 month onely 40 min. please sort-cut kono upai thakle obossoy janaben.

    1. মো: নাসির উদ্দিন বলেছেন

      Meraj Kader ভাই আপনার জন্য আমার এই লেখাটা খুব উপকারী হবে। কঠিন মনে হলেও একটু ট্রাই করুন। আশাকরি আপনিও পারবেন। সর্টকার্ট একটাই উপায় হলো এই পুরো প্রক্রিয়া কে একটা সফটওয়্যারের ভিতর ঢুকিয়ে দেয়া। কিন্তু তাতো সম্ভব নয়। কারন উপরের ব্যবহ্রত সফটওয়্যার গুলি যেকোন সময় আপডেট হতে পারে। তাই কঠিন মনে হলেও পুরো পদ্ধতিটি একবার অনুসরন করুন। একবার পারলেই দেখবেন যে খুব সহজ। যদি অনুসরন করতে পারেন তাহলে ফলাফল জানিয়েন। ধন্যবাদ।

  17. Rauful Milon বলেছেন

    khaiche……………………………..sob!

    1. মো: নাসির উদ্দিন বলেছেন

      হ্যা Rauful Milon ভাই, একদম A – Z সব। ধন্যবাদ আপনাকে।

  18. Ashik Mahmud বলেছেন

    ৫০ তম পোস্টের জন্য অভিনন্দন নাসির ভাই।.

    1. মো: নাসির উদ্দিন বলেছেন

      Ashik Mahmud ভাই অভিনন্দন জানানোর জন্য আপনাকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ।

  19. Hunting Eyes বলেছেন

    so nice post , awesome.

    1. মো: নাসির উদ্দিন বলেছেন

      ধন্যবাদ Hunting Eyes ভাই।

  20. বিশ্বজিৎ চৌধুরী বলেছেন

    মো: নাসির উদ্দিন ভাই , পিসি হেল্পলাইন বিডি তে আপনার ৫০তম পোষ্টটি পড়লাম । খুব ভাল লাগল । আনেক অজানা বিষয় জানতে পারলাম । আপনি অনেক বিষয়ের সমাধান দিয়েছেন দেখে আমার একটা সমস্যার কথা জানাতে চাই । আমি একমাস হল HP Laptop নিয়েছি , WINDOWS 7 ULTIMATE , INTEL CORE i5 , RAM 4GB, SYSTEM TYPE: 32 BIT. কিন্তু যখনই কোনো Screen saver অ্যাড করতে যাই তখন লেখা আসে The screen saver can’t run because it requires a newer video card or one that’s compatible with direct 3D. কিন্তু ভিডিও কার্ড আমার আছে । তবুও এটা কেন হচ্ছে একটু বলবেন । আর সমাধান বললে খুব কৃতজ্ঞ থাকব ।

    1. মো: নাসির উদ্দিন বলেছেন

      বিশ্বজিৎ চৌধুরী ভাই ধন্যবাদ আপনাকে, এরকম সুন্দর করে আমাকে অভিন্দন দেয়ার জন্য। আপনার সমস্যাটা জটিল। যাই হোক আপনি যদি কমেন্টে সমস্যা না লিখে এই লিংকে পোস্ট করতেন তাহলে অনেক specialist দের জবাব পেতেন। লিংকটি হলো: https://www.facebook.com/groups/pchelpline.bangladesh/
      যাই হোক আমি ধরে নিচ্ছি যে আপনার ফেসবুক একাউন্ট নাই তাই সরাসরি কমেন্টে এ সমাধান চেয়েছেন। আপনার সমস্যার বিস্তারিত সমস্যান পাবেন এই লিংকে
      http://www.justanswer.com/computer/69ftd-hi-video-card-driver-issue-running-windows-ultimate.html
      আশাকরি আপনি সমস্যার অতিদ্রুত সমাধান হবে। ধন্যবাদ।

  21. DesiRocker বলেছেন

    Thank you for this nice post and making Half century!

    1. মো: নাসির উদ্দিন বলেছেন

      DesiRocker আপনাকেও ধন্যবাদ ভাই।

  22. Mamun-ul-alam বলেছেন

    নাসির ভাই, সালাম।
    আপনাকে অভিনন্দন জানাচ্ছি ৫০ তম পোষ্টের জন্য। আর আমার ভাষা নাই এই রকম পোষ্টের প্রশংসা করার। শুধু এক কথায় বলব, ঘরে ঘরে নাসির তৈরি করলেন । আশা করি ৫০, ১০০শ তে পরিণত হবে খুব তারাতারি। অনেক অনেক ধন্যবাদ।

    1. মো: নাসির উদ্দিন বলেছেন

      মামুন-উল-আলম ভাই, ওলাইকুম আসসালাম। ধন্যবাদ আপনাকেও।

  23. Kaishar বলেছেন

    প্রথমে আপনাকে অভিনন্দন জানাচ্ছি ৫০ তম পোষ্টের জন্য। আবারো অভিনন্দন জানাচ্ছি সুন্দর এবং প্রয়োজনীয় পোষ্টের জন্য

    1. মো: নাসির উদ্দিন বলেছেন

      কায়সার ভাই, আপনাকেও ধন্যবাদ।

  24. arif46 বলেছেন

    সত্যি চমৎকার হয়েছে !!!! এতো সুন্দর ও শুদ্ধ ভাবে উপস্থাপন আপনার সুন্দর মনের বহিঃপ্রকাশ । এই সুপার হিট এবং ৫০তম পোস্টটির জন্য আপনাকে আন্তরিক অভিনন্দন । যুগ যুগ বেঁচে থাকুন আমাদের মাঝে ।

    1. মো: নাসির উদ্দিন বলেছেন

      আরিফ ভাই, আপনাকেও ধন্যবাদ এত সুন্দর করে অভিবাদন জানানোর জন্য

  25. খুরশীদ সিহাব বলেছেন

    কি যে বলবো ভেবে পাচ্ছি না; সুপার হিট পোষ্ট……….. আর হাফ সেঞ্চুরী করার জন্য আপনাকে অভিনন্দন। এরকম আরো পোষ্ট চাই।

    1. মো: নাসির উদ্দিন বলেছেন

      ধন্যবাদ খুরশীদ সিহাব ভাই।

  26. শুভ বলেছেন

    ৫০ তম পোস্টের জন্য অভিনন্দন নাসির ভাই।
    আর এত সুন্দর একটি পোস্ট আমাদের উপহার দেওয়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

    1. মো: নাসির উদ্দিন বলেছেন

      শুভ ভাই, আপনাকেও অনেক অনেক ধন্যবাদ।

  27. জাকির হোসেন বলেছেন

    ৫০ তম পোস্টের জন্য সর্ব প্রথম আপনাকে অভিনন্দন। আমি চাই এইভাবে যুগের পর যুগ ধরে আপনি আমাদের এই রকম অনেক অনেক তথ্য সম পোস্ট আমাদের উপহার দিবেন। অনেক ধৈর্য ধরে লিখেছেন, তাই পুরো লেখাটি হয়েছে শুদ্ধ। LONG LIVE NASIR ভাই

    1. মো: নাসির উদ্দিন বলেছেন

      সর্বপ্রথম অভিনন্দন জানানোর জন্য আপনাকে আমার মনের অন্ত:স্থল থেকে ভালবাসা জানাই। খুব খুশি হলাম আপনার কমেন্ট খানা পড়ে। দোয়া করবেন ভাই।

উত্তর দিন