জানুন ফ্রিল্যান্সিং পেমেন্ট ও উদ্যাক্তাদের জন্য পেওনিয়ার ডেবিট মাস্টারকার্ড কেন সেরা! (বাংলাদেশ থেকে পেপাল ফোন ভেরিফাই করার উপায়) Payoneer Debit Mastercard Support In Bangladesh

0 130

আসসালামুয়ালাইকুম কেমন আছেন সকল ফ্রিল্যান্সার ভাই ও বোনেরা? আজ আপনাদের জন্য পেওনিয়ার ডেবিট মাস্টার কার্ড ( Payoneer Debit Mastercard) ও বাংলাদেশ থেকে আমেরিকান পেপাল একাউন্ট  মোবাইল ফোন ভেরিফাই করার উপায়  নিয়ে আলোচনা করবো।  আশা করি মনোযোগ দিয়ে আমার সম্পূর্ণ টিউনস পড়লে Payoneer বিশয়ে অনেক প্রশ্নের উত্তর পাবেন এবং পেওনিয়ার কার্ড (Payoneer Card) নিয়ে কোন প্রশ্ন থাকলে টিউমেন্টসে জানাবেন উত্তর দেবার চেষ্টা করবো।

পেওনিয়ার কার্ড কার প্রয়োজন এবং কেন প্রয়োজন  ?

  • পেওনিয়ার কার্ড মূলত প্রয়োজন অনলাইনে উপার্জনের সাথে সংযুক্ত ব্যক্তি/ফ্রিল্যান্সিং এর সাথে যুক্ত নতুন পুরাতন ফ্রিল্যান্সার / এফিলিয়েট মার্কেটার ও ইকমার্স করেন এমন ব্যক্তি এবং আমদানি রপ্তানি ব্যবসা আছে বা বিভিন্ন দেশে ঘন ঘন যাতায়াত করেন এমন ব্যক্তিদের জন্য প্রযোজ্য।  পেওনিয়ার কার্ড দিয়ে আপনি ১৭০০+ মার্কেটপ্লেস থেকে ইউএস পেমেন্ট সার্ভিসের আমেরিকান ব্যাংক একাউন্ট বা ইইউ পেমেন্ট সার্ভিস ব্যবহার করে ইউরোপের বিভিন্ন দেশের ক্লায়েন্টদের থেকে ব্যাংক ওয়্যার ট্র্যান্সফারের মাধ্যমে পেমেন্ট উইথড্র করতে পারবেন অথবা মাস্টার কার্ডে পেমেন্ট দেয় এমন যেকোন মার্কেটপ্লেস বা কোম্পানি থেকে ডাইরেক্ট রিসিভ করতে পারবেন এবং অনলাইনে মাস্টারকার্ডে পেমেন্ট নেয় এমন যে কোম্পানি তে পেমেন্ট দিতে পারবেন।
  • ফ্রিল্যান্সাররা মার্কেটপ্লেস থেকে উইথড্র দিবে তাহলে ব্যবসায়িরা কিভাবে ব্যবহার করবে এই কার্ড? ব্যবসায়িদের জন্য সুখবর হলো আপনার  বিদেশে রপ্তানি করা পণ্যর যে কোন পরিমান এমাউন্টের পেমেন্ট পেওনিয়ার কার্ডের মাধ্যমে আনতে পারবেন। আর আপনার যদি ঘনঘন বিদেশ যাতায়াত থাকে তবে আপনি নিচিন্তে এই কার্ড সাথে রাখতে পারেন কারন বিশ্বের যেকোন মাস্টার কার্ড লোগোওয়ালা এটিএম বুথ থেকে ঐ দেশের প্রচলিত মুদ্রা উত্তোলন করতে পারবেন !
  • আরো সুবিধা যেমনঃ অনলাইনে কেনাকাটা করা, অনলাইনে বিল পেমেন্ট করা, ফেসবুক ও গুগলে বিজ্ঞাপন দেয়া সব ধরণের কাজ আপনি খুব সহজেই আপনি করতে পারবেন।

পেওনিয়ার কার্ড কতটুকু নিরাপদ ?

বাংলাদেশে যতগুলো বৈধ অনলাইন পেমেন্ট প্রচলিত আছে তারমধ্যে সবচেয়ে সহজ, দ্রুত, বিশ্বাসযোগ্য, জনপ্রিয় হচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক কতৃক অনুমোদিত পেওনিয়ার ডেবিট কার্ড!

কারন গুলো হলো এই কার্ড পকেটে থাকলে ভ্রমন বা ব্যবসার কাজে যেখানেই যাবেন টাকা পয়সা সংক্রান্ত বিপদে পরার ঝুকি কম থাকবে, আর বিশ্বাসযোগ্য বলছি একারনে অনেক পেমেন্ট কোম্পানি আছে যেখানে ক্লায়েন্ট চাইলে পেমেন্ট ডিসপুট বা রিফানড করতে পারে কিন্তু পেওনিয়ারে যাচাই বাছাই ছাড়া এটা অসম্ভব ! দ্রুত হবার কারন হলো চাইলে ইনস্ট্যান্ট এটিএম বুথ টাকা তুলতে পারেন আবার ব্যাংকেও উইথড্র দিতে  পারেন। আপনি যদি ব্যাংক এশিয়াতে উইথড্র দেন তবে ১ দিন অন্যন্য ব্যাংকে অফিসিয়াল ৩দিনের মধ্যে টাকা রিসিভ করতে পারবেন আর ফি :) এটাও খুব সহজ মাত্র ১% !

আমি আপনাদের একটা জরিপের ফলাফল আপনাদের দেখাচ্ছি ২ দিন আগে ফেসবুকে সকল ফ্রিল্যান্সার বন্ধুদের কাছে প্রশ্ন করেছিলাম সেরা কে ?

অনেকে এতে মতামত দিয়েছে বেশিরভাগ পেওনিয়ারে পক্ষে উত্তর আপনারা নিজের চোখেই দেখুন এখানে ক্লিক করে।

কিভাবে পেওনিয়ার কার্ড পেতে পারেন?

পেওনিয়ার কার্ড বিভিন্ন জনের রেফারে পেতে পারেন বা মার্কেটপ্লেস এর রেফারেও পেতে পারেন সুবিধা প্রায় একরকম ও সবজায়গা থেকে পেমেন্ট নিতে পারবেন।

  • আমার রেফারেও নিতে পারবেন, আর আমার রেফারে নিলে আপনাকে অন্যদের চাইতে বেশী সাপোর্ট দিতে পারবো কারণ আমি হলাম পেওনিয়ারের অফিশিয়াল RAF পার্টনার তাই যদি আমার রেফারে আপনি কার্ড SIGNUP  অন্যদের চাইতে বেশি সাপোর্ট আপনাদের দিতে পারবো এবং আপনার কার্ডে যেকোন কোম্পানি থেকে ১০০ ডলার উইথড্র করলেই ২৫ ডলার অতিরিক্ত এড করে দেওয়া হবে আপনার কার্ডে :)
  • সাইনআপ করার আগে জেনে নিন আপনি যদি আগে কার্ড সাইনআপ করে থাকেন বা আপনি যদি অনলাইনে কোন কাজ না করেন তবে আমার রেফারে সাইনআপ করলে আপনার কার্ড এপ্রোভ  হবেনা বা আমার থেকেও আপনি কোন সাপোর্ট পাবেন না ! কারন পেওনিয়ার স্প্যাম ঠেকাতে ইতিমধ্যে হার্ডলাইনে চলে গিয়েছে, তবে আপনি যদি প্রকৃত ফ্রিল্যান্সার বা কার্ড পাবার যোগ্য হন তবে নির্ভয়ে সাইনআপ করতে পারেন।

১। প্রথমেই নিচের লিঙ্কে প্রবেশ করে  Signup  করে নিনঃ

এইখান থেকে Signup করলে আপনি পাবেন ২৫ ডলার ফ্রী সাথে আমিও পাবো. আপনি প্রথম ১০০ ডলার লোড করার পরে ২৫ ডলার বোনাস পাবেন (আমিও তখন পাব)। আপনি যদি আগে কোন পেওনিয়ার কার্ড পেয়ে না থাকেন বা অনলাইনে ইনকামের কোন সোর্স না থাকে তবে এপ্লাই করবেন না কারন পেওনিয়ার এপ্রোভ  করবেনা।

রেফারেল লিংক দেবার কারন হল। আপনি যদি কোনো মার্কেট প্লেস থেকে একাউন্ট করেন তাহলে ব্যালেঞ্চ ট্রান্সফার করতে পারবেন না, এবং এক মার্কেট প্লেস এর  Payoneer কার্ড অন্য মার্কেট প্লেস অ্যাড করতে পারবেন না। (সুতরাং বুজতেই পারছেন আমি $২৫ পাব এই কথা চিন্তা করে অন্য জায়গা থেকে একাউন্ট করলে কার লস বেশি হবে)। Payoneer এর Activation চার্জ হল ৩০ ডলার এর মত। তাই আপনি যদি Payoneer এর কার্ড ব্যবহার করেন তাহলে এই ২৫ ডলার দিয়ে অন্তত Payoneer এর Activation চার্জ টা দিতে পারবেন। তাহলে আসুন আর কথা না বারিয়ে শুরু করা যাক।

Signup Link Click here

এই লিংকে গিয়ে সাইন আপ ক্লিক করেন।

২। এখন এখানে ৪ টি ধাপ আপনাকে অনুসরন করতে হবে।

  • Personal details
  • Contact Details
  • Security Details
  • Almost done!

সাইনআপ করার সময় নাম ঠিকানাতে C/o ও : . +, এধরনের চিনহ দেয়া থেকে বিরত থাকুন, শধুমাত্র পিতার নাম লিখতে পারেন নিচের মত,আর আগে থেকে আপনার একটি কার্ড থাকলে নতুন করে এপ্লাই করা থেকে বিরত থাকুন।

৩। এবার আপনার ইমেইলে লগিন করুন, পেয়নিয়ার থেকে পাওয়া ইমেইলটি ওপেন করুন। দেখুন আপনার রেজিস্ট্রেশন কমপ্লিট হয়েছে এবং এপ্রুভাল এর জন্য কিছু সময় চাইছে।

৪। এবার আপনার পেয়নিয়ার একাউন্টে লগিন করুন, আপনি স্টেপ ২ এ আছেন দেখতে পাবেন। আপনার একাউন্ট এপ্রুভ হবার পরেই কার্ড পাঠানো হবে। এখন Registration Verification এ ক্লিক করুন, অথবা আপনার ইমেইলে আরেকটি মেসেজ দেখতে পাবেন, সেখানে Upload Documents বাটনে ক্লিক করুন।

৫। এবার ফরম টি পুরন করে আপনার National ID কার্ডের স্কান কপি আপলোড করুন।

৬। আপনার Payoneer এর Registration সম্পন্ন হল।

কোন কারনে আপনার একাউন্ট আপ্রুভ হতে অনেক সময় লাগতে পারে। অবশ্যই পেওনিয়ার সাপোর্টে যোগাযোগ করুন। আপনার Payoneer এর Account Approve হলে নিচের মত একটা মেইল পাবেন। আর কার্ড আসার সময় হলে অবশ্যই আপনার টিউন অফিসে যোগাযোগ করুন।

Dear (Your Name),

Congratulations!

Your Payoneer Prepaid Debit MasterCard® card order has been approved!

Your card will be shipped by Regular mail.

Your card is estimated to arrive between (17 Apr 2015 and 24 Apr 2015) sample time.

***কার্ড এপ্রোভ হতে কিছুটা সময় লাগতে পারে ১ থেকে ৭ দিন পর্যন্ত অনেক সময় ১ মাস ও লেগে যায়,(কখনো কখনো সাথে সাথেই এপ্রোভ হয়)

কার্ড Approve হলে আপনাকে Shipping Date মেইল এর মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে। সাধারনত কার্ড আসতে ২০ থেকে ৩০ দিন লাগে। DHL এর মাধ্যমে ৬০ ডলার খরচ করে ৩ দিনে আপনার কার্ড পেতে পারেন।

  1. এপ্রোভ করার আগে এপ্রোভাল ডিপার্টমেন্ট কোন তথ্য চাইলে তা দ্রুত রিপ্লাই করুন, ধরুন আপনার ঠিকানা আমার চাচ্ছে এক্ষেত্রে C/o অপশন, স্কুলের নাম বা প্রতিষ্ঠানের নাম দেওয়ার দরকার নাই, শুধু গ্রাম, টিউন অফিস, শহর, টিউন কোড ইত্যাদি দিবেন।
  2. আপনার কার্ড পাইতে হইলে অবশ্যই ভালো ভাবে সাইন আপ করতে হবে। এই জন্য ন্যাশনাল আইডি কার্ড অথবা পাসপোর্টের স্ক্যান কপি আপলোড করতে হবে। স্ক্যান কপি স্পস্ট করে করতে হবে।
  3. পেওনিয়ার বাংলাদেশে তাদের কার্ড সেন্ড করে বাংলাদেশের সরকারী ডাক যোগে। কার্ড অর্ডার দেওয়ার পর এলাকার সরকারী টিউন পিয়ন এর সাথে ভালো যোগাযোগ রক্ষা করুন।
  4. একই ঠিকানায় ২ টা কার্ড ২ নামে আসতে পারে। মানে আপনার পরিবারের কেউ ফ্রিল্যান্সিং এর সাথে জড়িত থাকলে তাদের  নামে  কার্ড আনতে পারবেন। কিন্তু ভুলেও এক কম্পিউটার থেকে দুইটা সাইন আপ করবেন না তাদের কম্পিউটার থেকে সাইন আপ করতে বলুন।
  5. মাঝে মাঝে সাইন আপ বা অজ্ঞাত কারনে কার্ড পেতে কোন সমস্যা হলে আপনি তাদের সাপোর্টে যোগাযোগ করবেন। লাইভ চ্যাটে কথা বলুন।
  6. আপনার ন্যাশানাল আইডি যেই নামে আছে সেই নামেই একাউন্ট খুলবেন।
  7. পেওনিয়ারের সাথে স্ক্যাম করার চেস্টা করবেন না। ডলার সহ আপনাকে ব্লক মারবে। যারা স্ক্যাম করে তারাই ভালো বুঝে কি ভাবে স্ক্যাম করা যায়।
  8. পেওনিয়ার কার্ড একবার না আসলে আপনি আবার আনার জন্য রিকোয়েস্ট করবেন।
  9. আপনার পেওনিয়ার কার্ডে প্রথম ১০০ লোড দিতে হবে কোন কোম্পানি বা মার্কেটপ্লেস থেকে উইথড্র দেয়ার মাধ্যমে, আর আগে আপনি কার্ড টু কার্ড ট্র্যান্সফার করতে পারবেন না।  ১০০ লোড দেবার পরেই কার্ড টু কার্ড ট্র্যান্সফার আনলক হবে। এব্যাপারে আরও জানতে আমার সাথে যোগাযোগ করুন।

 

পেওনিয়ার ডেবিট মাস্টার কার্ড নিয়ে কোন প্রশ্ন থাকলে বা আমার রেফারে সাইনআপ করে কোন সাপোর্ট দরকার হলে  আমাকে এখানে জানাতে পারেন।  

আপনার আমেরিকান পেপাল একাউন্ট ফোন ভেরিফাই করতে Dingtone নামক এপস ডাউনলোড করে ১০০ ক্রেডিট দিয়ে একটি আমেরিকান নাম্বার কিনে আপনার পেপালে অ্যাড করে ভেরিফাই করে নিন।

উত্তর দিন