হ্যান্ডস-অন রিভিউঃ অক্টাকোর প্রসেসর ও ২ জিবি র‍্যামের Walton Primo S4

0 218

কমমূল্যে অধিক ফিচার সংবলিত স্মার্টফোন বাজারে আনার ক্ষেত্রে ওয়ালটনের সুনাম সর্বজনবিদিত। নিজেদের সুনাম অক্ষুণ্ণ রাখতেই এবার তারা মাত্র ১৫,৯৯০ টাকায় বাজারে এনেছে আকর্ষণীয় ডিজাইনের Primo S4, প্রথম দেখাতেই আপনি যার প্রেমে পড়ে যাবেন ! এর চমৎকার বিল্ড কোয়ালিটি আর সামনের দিকে থাকা তৃতীয় প্রজন্মের গরিলা গ্লাস ও পেছনের দিকের ড্রাগনট্রেইল গ্লাস আপনাকে মুগ্ধ করবে।
মিডিয়াটেক চিপসেট ও ১.৭ গিগাহার্টজ অক্টাকোর প্রসেসরচালিত এই ফোনটিতে আছে ২ গিগাবাইটের র‍্যাম, মালি-৪৫০ জিপিউ, BSI সেন্সরযুক্ত ১৩ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরা আর ফ্ল্যাশলাইটযুক্ত ৮ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা। ৩২ গিগাবাইট রমের এই ফোনের আরেকটি উল্লেখযোগ্য দিক হলো এর অপশনাল ডুয়েল সিম ফিচার, অর্থাৎ এর ২টি সিম স্লটের একটিতে মাইক্রো সিম ব্যবহার করা যায় আর অপরটি ন্যানো সিম বা মাইক্রো এসডি কার্ড ব্যবহারের জন্য।

Primo S4 এর বিল্ড কোয়ালিটি ও ডিজাইন, ইউজার ইন্টারফেস, ব্যাটারি ব্যাকআপ, গেমিং পারফরম্যান্স, ক্যামেরায় তোলা ছবির মান, ব্যাটারি ব্যাকআপসহ নানা খুঁটিনাটি তথ্য নিয়ে আমার আজকের পোস্ট Walton Primo Primo S4 এর Hands-on Review

রিভিউয়ের শুরুতে আপনাদের জানাতে চাই Primo S4 ভালো লাগার কারণ ও এর কিছু সীমাবদ্ধতা-
ভালো লাগার কারণসমূহঃ

  • ফ্রন্ট ক্যামেরায় ফ্ল্যাশ
  • ৩২ গিগাবাইটের রম
  • আকর্ষণীয় ডিজাইন
  • ইউনিফাইড স্টোরেজ

Primo S4 Hands-on Review

Primo S4 এর দুর্বলতা:
বেশ উন্নত কনফিগারেশনের Primo S4 স্মার্টফোনটিতে ২,২০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের ব্যাটারির ব্যবহার ব্যতীত আর তেমন কোন সীমাবদ্ধতা চোখে পড়েনি।
Primo S4 Hands-on Price

আনবক্সিং:
Primo S4 স্মার্টফোনটি কিনলে আপনি পাচ্ছেন ১৫ মাসের ওয়ারেন্টি, এর সাথে থাকছে-

  • ইউজার ম্যানুয়াল
  • ওয়ারেন্টি কার্ড
  • ব্যাটারি
  • চার্জার অ্যাডাপ্টার
  • ডাটা ক্যাবল
  • ইয়ারফোন

Primo S4 Unboxing

অপারেটিং সিস্টেম ও ইউজার ইন্টারফেসঃ
এই ফোনটিতে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে অ্যান্ড্রয়েডের আপডেটেড সংস্করণ অ্যান্ড্রয়েড ৪.৪.২ কিটক্যাট ব্যবহার করা হয়েছে। কিছুদিন পর ললিপপ আপডেট দেওয়া হবে বলে জানা গেছে।
Primo S4 OS

চলুন Primo S4 এর ইউজার ইন্টারফেস দেখে নেওয়া যাক-
নোটিফিকেশন বার:
Primo S4 Notification Bar
হোমস্ক্রীন:
Primo S4 Home screen
অ্যাপ ড্রয়ার:
Primo S4 App Drawer
Primo S4 App Drawer 2

ডিসপ্লে:
৫ ইঞ্চির এইচডি আইপিএস ডিসপ্লের এই ফোনে পিউর ব্ল্যাক ডিসপ্লে ব্যবহার করা হয়েছে, যার রেজ্যুলেশন ১২৮০x৭২০ পিক্সেলের। আগেই বলেছি এর ডিসপ্লের নিরাপত্তায় রয়েছে ৩য় প্রজন্মের গরিলা গ্লাস।
hands-on review Primo S4

বিল্ড কোয়ালিটি ও ডিজাইন:
ডিজাইনের দিক থেকে এই ফোনটি বেশ আকর্ষণীয় ও মনোমুগ্ধকর। এটি হাতে ধরলেই অন্যরকম এক ফিল হয়। এর উপরের অংশে রয়েছে ৩.৫ মিলিমিটার অডিও পোর্ট আর নিচের অংশে ইউএসবি ২.০ পোর্ট ও স্পীকার। এর একপার্শ্বের অংশে রয়েছে ভলিউম কী ও মাইক্রো সিমস্লট ও অপরপার্শ্বে পাওয়ার কী ও ন্যানো সিম স্লট। হালকা গড়নের এই ফোনের ওজন মাত্র ১২৯ গ্রাম।
hands-on review Primo S4
প্রিমো এস৪ এর পেছনের দিকে উপরের অংশে আছে রিয়ার ক্যামেরার লেন্স, এছাড়া সম্মুখভাগে ফ্রন্ট ক্যামেরা, সেন্সর, স্পীকার প্রভৃতি তো রয়েছেই। এই ফোনে ৩ টি বাটন রয়েছে – হোম/মেনু, অপশন ও ব্যাক।
hands-on review Primo S4

প্রসেসর, চিপসেট ও জিপিউ
১.৭ গিগাহার্টজের অক্টাকোর প্রসেসরের এই ফোনে মিডিয়াটেকের অক্টাকোর চিপসেট MT6592 ব্যবহৃত হয়েছে। দ্রুতগতির প্রসেসরের কারণে এতে মাল্টিটাস্কিং, এইচডি গেমিং প্রভৃতি বেশ স্মুথলি করা যায়।
Primo S4 Chipset CPU

আর এতে জিপিউ হিসেবে মালি-৪৫০ ব্যবহার করা হয়েছে। ফলে এই ফোনের গ্রাফিক্স কোয়ালিটি কিংবা গেমিং পারফরম্যান্স অন্যান্য সাধারণমানের জিপিউসমৃদ্ধ স্মার্টফোনের তুলনায় ভালো।
Primo S4 GPU

মেমোরী:
অধিক ধারণক্ষমতার জন্য Primo S4 স্মার্টফোনটিতে রয়েছে ৩২ গিগাবাইটের ইন্টারনাল মেমোরী, যা এই ফোনের একটি উল্লেখযোগ্য দিক। এর মধ্যে প্রায় ২৭ গিগাবাইট ব্যবহারযোগ্য। এছাড়া আপনি চাইলে এতে ৩২ গিগাবাইট পর্যন্ত মেমোরী কার্ড ব্যবহার করতে পারবেন।
এই ফোনের মেমোরীর একটি উল্লেখযোগ্য দিক হলো এতে রয়েছে ইউনিফাইড স্টোরেজ সুবিধা, অর্থাৎ এর পুরো ইন্টারনাল মেমোরীই অ্যাপ ইন্সটলের জন্য ব্যবহার করা যাবে। ফলে যারা প্রচুর অ্যাপ ইন্সটল করতে ভালোবাসেন তাদের জন্য এই ফোন হতে পারে বেশ পছন্দের।
Primo S4 Memory

স্মার্টফোনে স্মুথ পারফরম্যান্সের জন্য র‍্যাম অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আর তাইতো ওয়ালটনের এই ফোনে ২ গিগাবাইটের র‍্যাম দেওয়া হয়েছে, যার মধ্যে প্রায় ১৯৩০ মেগাবাইট ব্যবহারযোগ্য। অধিক র‍্যামের কারণে বেশ স্মুথলি নানা এইচডি গেম খেলা যায়।
মাল্টিমিডিয়া:
Primo S4 এ রয়েছে ৩.৫ মিলিমিটারের অডিও জ্যাক। এর সাথে দেওয়া হেডফোনটির সাউন্ড কোয়ালিটি যথেষ্ট কোয়ালিটিফুল, এর অডিও সাউন্ড কোয়ালিটিও দারুণ।
Primo S4 Multimedia Audio
এতে আইপিএস ডিসপ্লে থাকায় দারুণভাবে ভিডিও উপভোগ করতে পারবেন, আর হ্যাঁ এই ফোনে ১০৮০ পি ফুল এইচডি ভিডিও কোন ধরণের ল্যাগ ছাড়াই চলেছে।
Primo S4 Multimedia Video

ক্যামেরা পারফরম্যান্স:
Primo S4 এর ক্যামেরা পারফরম্যান্স চমৎকার, এতে ১৩ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরা দেওয়া হয়েছে, আর সুন্দর ছবি তুলতে এর ক্যামেরায় BSI সেন্সর ব্যবহৃত হয়েছে। এছাড়া ক্যামেরায় অটোফোকাস, এলইডি ফ্ল্যাশ, স্মাইল ডিটেক্টর, প্যানোরোমা মোড, ফেস ডিটেকশন প্রভৃতি সুবিধাতো থাকছেই।
চলুন, এই ফোনের ক্যামেরা সেটিংস দেখে নিই-
Primo S4 Camera Settings
Primo S4 Camera Settings 2
Primo S4 Camera Settings 3

এই ফোনের ক্যামেরায় তোলা কিছু ছবি-
Primo S4 Camera Sample 1
Primo S4 Camera Sample 2
Primo S4 Camera Sample 3

এসবের পাশাপাশি সেলফি তোলা কিংবা ভিডিও কলিংয়ের জন্য আছে BSI সেন্সরযুক্ত ৮ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা। এর ফ্রন্ট ক্যামেরায় ফ্ল্যাশ থাকায় অন্ধকারেও অনায়াসে সেলফি তোলা সম্ভব।
Primo S4 এ তোলা সেলফি-
Primo S4 Front Camera Sample
ব্যাটারি:
অ্যান্ড্রয়েড ফোনের ক্ষেত্রে ব্যাটারি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আর তাইতো Primo S4 ফোনটিতে ২,২০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারী ব্যবহার করা হয়েছে। এর ব্যাটারী ব্যাকআপ মোটামুটি। একবার ফুল চার্জ দিলে টানা ৫ ঘণ্টারও অধিক সময় নেট চালানো যায়। আর একবার ফুল চার্জে টানা ৫-৬ ঘন্টা এইচডি ভিডিও দেখা যায়। তবে অক্টাকোর প্রসেসরের এই ফোনে আরেকটু বেশি মিলিঅ্যাম্পিয়ারের ব্যাটারী দিলে তা আরও ভালো হতো।
Primo S4 Battery Review

কানেক্টিভিটি, সেন্সর ও অন্যান্য:
এই ফোনে রয়েছে ২টি সিম ব্যবহারের সুবিধা, যার একটি মাইক্রো সিম আর অন্যটি ন্যানো সিম। এতে ব্লুটুথ ৪.০, ওয়াইফাই, ওয়্যারলেস হটস্পট প্রভৃতি কানেক্টিভিটি সুবিধা রয়েছে। এছাড়া জিপিএস নেভিগেশন সুবিধাতো থাকছেই।
সেন্সর হিসেবে এই ফোনে এক্সিলেরোমিটার, প্রক্সিমিটি, লাইট, ওরিয়েন্টেশন, ম্যাগনেটিক ফিল্ড ইত্যাদি ব্যবহার করা হয়েছে।
এছাড়া এই ফোনে OTG (USB On The Go) সুবিধা আছে, যে কারণে আপনি এতে মাউস, কীবোর্ড, পেনড্রাইভ, এক্সটারনাল হার্ডডিস্কসহ বিভিন্ন ধরণের ইউএসবি ড্রাইভ ব্যবহার করতে পারবেন।

OTA আপডেট:
এই ফোনে OTA বা Over The Air আপডেট সুবিধা রয়েছে, যার ফলে পিসির সাথে সংযুক্ত করা ছাড়াই এর সফটওয়্যার আপডেট করা যাবে।
Primo S4 Hands-on Review OTA
গেমিং পারফরম্যান্সঃ
Primo S4 স্মার্টফোনটিতে অক্টাকোর প্রসেসর ব্যবহৃত হওয়ায় ও এর র‍্যাম ২ গিগাবাইট থাকায় এতে বিভিন্ন ধরণের এইচডি গেম বেশ স্মুথলি খেলা যায়। এই ফোনে টেম্পল রান ওজেড, ক্ল্যাশ অফ ক্ল্যানস, ক্যান্ডি ক্র্যাশ সাগা, ডিড ট্রিগার ২, মডার্ন কমব্যাট ৪ সহ নানা জনপ্রিয় গেম কোন ধরণের ল্যাগিং ছাড়াই খেলা গেছে।
Primo S4 Gaming Review Temple Run

স্পেশাল ফিচার:
এই ফোনে স্পেশাল ফিচার হিসেবে রয়েছে সফটওয়্যার লোক, ফ্লোটিং মাল্টি-উইন্ডো, স্মার্ট ওয়েক, ইউনিফাইড স্টোরেজ প্রভৃতি। Primo S4 এর একটি বিশেষ দিক হলো এর ফ্রন্ট ও রিয়ার উভয় ক্যামেরাতেই ফ্ল্যাশ রয়েছে।

Primo S4 Special Feature Software Lock
Primo S4 Feature Software Smart Wake
Primo S4 Feature Software Floating Multi Window

বেঞ্চমার্ক:
Primo S4 এর বেঞ্চমার্ক স্কোর যাচাইয়ের জন্য বেঞ্চমার্ক যাচাইয়ের জনপ্রিয় অ্যাপ AnTuTu বেছে নেওয়া হয়েছিলো আর AnTuTu তে এর স্কোর এসেছে ৩৩,৩৩৮
Primo S4 Hands-on Review Antutu Benchmark

বেঞ্চমার্ক যাচাইয়ের আরেক অ্যাপ NenaMark এ Primo S4 এর স্কোর এসেছে ৫৫.৫, যা মোটামুটি।
Primo S4 Hands-on Review NenaMark
একনজরে Primo S4 এর উল্লেখযোগ্য ফিচারসমূহ-

  • অ্যান্ড্রয়েড ৪.৪.২ কিটক্যাট অপারেটিং সিস্টেম
  • ৫ ইঞ্চির এইচডি আইপিএস ডিসপ্লে
  • ২ গিগাবাইটের র‍্যাম
  • মালি ৪৫০ জিপিউ
  • ১.৭ গিগাহার্টজ গতির অক্টাকোর প্রসেসর
  • ৩২ গিগাবাইটের ইন্টারনাল মেমোরী
  • ৩২ গিগাবাইট পর্যন্ত মেমোরী কার্ড সাপোর্ট
  • ১৩ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরা
  • ৮ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা
  • ডুয়েল সিম
  • ২,২০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের ব্যাটারি

hands-on review Primo S4

দাম:
উচ্চ কনফিগারেশনের ফোন মানেই যে দাম বেশি হবে এমনটা নয়, কারণ এখন ক্রেতারা অল্পদামে ভালো ফোন কিনতে চান। আর সেদিকে খেয়াল রেখে Primo S4 স্মার্টফোনটির মূল্য ১৫,৯৯০ টাকা নির্ধারণ করেছে ওয়ালটন কর্তৃপক্ষ।

শেষ কথা:
ফ্ল্যাশযুক্ত ৮ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা আর ৩২ গিগাবাইটের ইন্টারনাল মেমোরীর কারণে Primo S4 কে সমসাময়িক অন্যান্য ফোনের থেকে এগিয়ে রাখতে হবে। বিশেষ করে যারা অধিক সেলফি তুলতে ভালোবাসেন তাদের জন্য ওয়ালটন Primo S4 হতে পারে শীর্ষ পছন্দের।

উত্তর দিন