ওয়ালটন প্রিমো ইফোর Walton Primo E4 হ্যান্ডস-অন রিভিউ

0 142

স্বল্পমূল্যে অধিক ফিচার সংবলিত স্মার্টফোন আনার ক্ষেত্রে বেশ অগ্রগণ্য দেশীয় স্মার্টফোন বাজারজাতকরণ প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন, সম্প্রতি তারা বাজারে এনেছে প্রিমো ই সিরিজের নতুন স্মার্টফোন Primo E4; এই ফোনের অন্যতম উল্লেখযোগ্য দিক হলো এর হালকা গড়ন ও আকর্ষণীয় ডিজাইন। ৯.৩ মিলিমিটার পুরুত্বের Primo E4 স্মার্টফোনটির ওজন মাত্র ১১৩ গ্রাম (ব্যাটারিসহ)। ডুয়েল সিম সুবিধাসম্পন্ন এই ফোনের আরেকটি উল্লেখযোগ্য দিক হলো এর উভয় সিম স্লটেই থ্রিজি সুবিধা উপভোগ করা যাবে। তবে ৫,৪৯০ টাকা মূল্যের এই ফোনের একটি সীমাবদ্ধতা হলো এতে মাত্র ৫১২ মেগাবাইটের র‍্যাম ব্যবহার করা হয়েছে, কোয়াডকোর প্রসেসরের পূর্ণ পারফরম্যান্সের জন্য যা অপ্রতুল।

Primo E4 review

বাজারে আসা নিত্যনতুন সব স্মার্টফোনের হ্যান্ডস-অন রিভিউ পাঠকদের সামনে তুলে ধরার ধারাবাহিকতায় ওয়ালটনের এন্ট্রি লেভেলের স্মার্টফোন Primo E4 এর ডিজাইন, ব্যাটারী ব্যাকআপ, গেমিং পারফরম্যান্স, বেঞ্চমার্ক স্কোর, ক্যামেরা পারফরম্যান্স প্রভৃতি বিশ্লেষণধর্মী তথ্য পাঠকদের জানাতে আজ থাকছে Walton Primo E4 এর Exclusive Hands-on Review

প্রিয় পাঠক, চলুন তাহলে একনজরে Primo E4 এর উল্লেখযোগ্য ফিচারসমূহ দেখে নেওয়া যাক –

  • অ্যান্ড্রয়েড ৪.৪.২ কিটক্যাট অপারেটিং সিস্টেম
  • ৪ ইঞ্চির আইপিএস ডিসপ্লে
  • ১.৩ গিগাহার্টজ গতির কোয়াডকোর প্রসেসর
  • ৫১২ মেগাবাইটের র‍্যাম
  • মালি ৪০০ জিপিউ
  • ৫ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরা
  • ভিজিএ ফ্রন্ট ক্যামেরা
  • ৪ গিগাবাইটের ইন্টারনাল মেমোরী
  • ডুয়েল সিম
  • ১,৫০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারী

Primo E4 Specs

এবারে তাহলে বিস্তারিত রিভিউয়ের দিকে যাওয়া যাক-

আনবক্সিং:
Primo E4 স্মার্টফোনটির বক্সে যা যা রয়েছে –

  • হ্যান্ডসেট
  • ব্যাটারী
  • চার্জার অ্যাডাপ্টার
  • ডাটা ক্যাবল
  • ইয়ারফোন
  • ইউজার ম্যানুয়াল
  • ওয়ারেন্টি কার্ড

Primo E4 unboxingঅপারেটিং সিস্টেমঃ
Primo E4 ফোনটিতে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে অ্যান্ড্রয়েডের আপডেটেড সংস্করণ অ্যান্ড্রয়েড ৪.৪.২ কিটক্যাট ব্যবহার করা হয়েছে।

Primo E4 review OSPrimo E4 review OSবিল্ড কোয়ালিটি ও ডিজাইনঃ
প্রিমো ই৪ স্মার্টফোনটি বেশ আকর্ষণীয় ডিজাইনের। এই ফোনের উপরের অংশে রয়েছে ৩.৫ মিলিমিটার অডিও পোর্ট ও ইউএসবি ২.০ পোর্ট । এছাড়া ফোনটির একপার্শ্বের অংশে রয়েছে ভলিউম কী আর অপর পার্শ্বে পাওয়ার কী।

Primo E4 hands-on review

১১৯.৭ মিলিমিটার উচ্চতার এই ফোনটি প্রস্থে ৬২.৫ মিলিমিটার আর এর পুরুত্ব ৯.৩ মিলিমিটার। বেশ হালকা গড়নের এই ফোনের ওজন মাত্র ১১৩ গ্রাম (ব্যাটারীসহ) ।
Primo E4 review
প্রিমো ই৪ স্মার্টফোনটির পেছনের দিকে উপরের অংশে আছে রিয়ার ক্যামেরার লেন্স ও ফ্ল্যাশলাইট আর নিচের দিকে রয়েছে স্পীকার। এছাড়া সম্মুখভাগে ফ্রন্ট ক্যামেরা, সেন্সর, স্পীকার প্রভৃতি তো রয়েছেই।
Primo E4 reviewডিসপ্লেঃ
এই ফোনে ৪ ইঞ্চির আইপিএস ডিসপ্লে ব্যবহার করা হয়েছে, আর এর ডিসপ্লের রেজ্যুলেশন হলো ৪৮০x৮০০ পিক্সেলের।

Primo E4 Displayইউজার ইন্টারফেসঃ
ওয়ালটনের Primo E4 ফোনটিতে অ্যান্ড্রয়েডের আপডেটেড সংস্করণ অ্যান্ড্রয়েড ৪.৪.২ কিটক্যাট ব্যবহৃত হয়েছে।

নোটিফিকেশন বারঃ
Primo E4 Notification Bar

হোমস্ক্রীনঃ
Primo E4 Home screen

অ্যাপ ড্রয়ারঃ
Primo E4 App Drawerসিপিউঃ
সিপিউ হিসেবে এই ফোনে রয়েছে ১.৩ গিগাহার্টজ গতির কোয়াডকোর প্রসেসর, ফলে স্বল্পমূল্যের এই ফোনে মাল্টিটাস্কিং, গেমিং প্রভৃতি বেশ স্মুথলি করা যায়।

চিপসেটঃ
স্বল্পমূল্যের স্মার্টফোনসমূহে সাধারণত মিডিয়াটেক চিপসেট ব্যবহার করা হয়ে থাকে, ব্যতিক্রম ঘটেনি Walton Primo E4 এর ক্ষেত্রেও। এই ফোনে মিডিয়াটেকের MT6582 চিপসেট ব্যবহৃত হয়েছে ।

Primo E4 Chipsetজিপিউঃ
ওয়ালটন তাদের এই ফোনে মালি-৪০০ জিপিউ ব্যবহার করেছে। তবে মূল্য বিবেচনায় এন্ট্রি লেভেলের এই ফোনের গ্রাফিক্স কোয়ালিটি কিংবা গেমিং পারফরম্যান্স মন্দ নয়।

Primo E4 review GPUমেমোরীঃ
Primo E4 স্মার্টফোনটিতে মাত্র ৪ গিগাবাইট ইন্টারনাল মেমোরী দেওয়া হয়েছে, যার মধ্যে প্রায় ১.৪০ গিগাবাইট ব্যবহারযোগ্য। তবে এতে ৩২ গিগাবাইট পর্যন্ত এক্সটারনাল মাইক্রো-এসডি কার্ড ব্যবহার করে এর ধারণক্ষমতা বাড়িয়ে নেওয়া যাবে।
Primo E4 review MemoryPrimo E4 review Memory Storageর‍্যামঃ
এই ফোনে মাত্র ৫১২ মেগাবাইটের র‍্যাম ব্যবহার করা হয়েছে, যার মধ্যে প্রায় ৪৫৮ মেগাবাইট ব্যবহারযোগ্য। এতে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক অ্যাপস ইন্সটল করার পর র‍্যামের প্রায় ১৯১ মেগাবাইট ফাঁকা ছিলো।

Primo E4 hands-on review RAMক্যামেরাঃ
Primo E4 স্মার্টফোনটিতে রয়েছে ৫ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরা।
দেখুন ক্যামেরা সেটিংস এর স্ক্রীনশট –
Primo E4 Camera Review

দেখুন দিনের আলোতে এই ফোনের ক্যামেরায় তোলা ছবিঃ
Primo E4 review Camera Sample
এছাড়া রয়েছে ভিজিএ ফ্রন্ট ক্যামেরা।

মাল্টিমিডিয়াঃ
Primo E4 এ রয়েছে ৩.৫ মিলিমিটারের অডিও জ্যাক। এর সাথে যে হেডফোনটি দেওয়া হয় তার সাউন্ড কোয়ালিটি মোটামুটি মানের, এর অডিও সাউন্ড কোয়ালিটিও বেশ সুন্দর।

Primo E4 audio review

আর এই ফোনে আইপিএস ডিসপ্লে ব্যবহৃত হওয়ায় এতে দারুণভাবে ভিডিও উপভোগ করা যায়। এই ফোনে ১০৮০ পি ফুল এইচডি ভিডিও কোন ধরণের ল্যাগ ছাড়াই চলে।

Primo E4 video reviewগেমিং পারফরম্যান্সঃ
স্বল্পবাজেটের এই ফোনটি সাধারণ গেমিংয়ের জন্য মন্দ নয়। কোয়াডকোর প্রসেসরসমৃদ্ধ এই ফোনে বিভিন্ন ধরণের গেম বেশ স্মুথলি খেলা যায়, তবে এর র‍্যাম মাত্র ৫১২ মেগাবাইট হওয়ায় এইচডি গেম খেলতে খানিকটা অসুবিধার সম্মুখীন হতে হয়। তবে স্বল্পর‍্যামবিশিষ্ট এই ফোনে টেম্পল রান ওজেড, রিয়াল ক্রিকেট, টেম্পল রান ২ প্রভৃতি জনপ্রিয় গেম কোন ধরণের ল্যাগিং ছাড়াই খেলা গেছে।

Primo E4 Gaming Review Clash of Clansকানেক্টিভিটিঃ
এই ফোনে ব্লুটুথ ৪.০, ওয়াইফাই, ওয়্যারলেস হটস্পট প্রভৃতি কানেক্টিভিটি সুবিধা রয়েছে। এছাড়া জিপিএস নেভিগেশন সুবিধাতো রয়েছেই।

সিমঃ
ওয়ালটনের অধিকাংশ স্মার্টফোনের ন্যায় প্রিমো ই৪ এ-ও রয়েছে ২টি সিম ব্যবহারের সুবিধা। আর হ্যাঁ, এর উভয় সিমেই কিন্তু থ্রিজি সুবিধা উপভোগ করা যায়।

ব্যাটারীঃ
৪ ইঞ্চি আইপিএস ডিসপ্লে সংবলিত Primo E4 এ ১,৫০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারী ব্যবহার করা হয়েছে। এর ব্যাটারী ব্যাকআপ বেশ ভালোই। একবার ফুল চার্জ দিলে টানা ৫.৫ ঘন্টা থেকে ৬ ঘন্টা ইন্টারনেট ব্রাউজ করা যায়। এছাড়া একবার ফুল চার্জে টানা প্রায় ৬ ঘন্টা এইচডি ভিডিও উপভোগ করা যায়।
সেন্সরঃ
ওয়ালটনের নতুন এই ফোনে সেন্সর হিসেবে রয়েছে অ্যাক্সিলেরোমিটার, প্রক্সিমিটি ও লাইট সেন্সর।
বেঞ্চমার্কঃ
কোন ডিভাইসের সক্ষমতা যাচাইয়ের জন্য সাধারণত বেঞ্চমার্ক স্কোর যাচাই করা হয়ে থাকে। Primo E4 এর বেঞ্চমার্ক স্কোর যাচাইয়ের জন্য বেঞ্চমার্ক যাচাইয়ের জনপ্রিয় অ্যাপ AnTuTu বেছে নেওয়া হয়েছিলো। AnTuTu তে এর স্কোর এসেছে ১৯,১১৩ ।

Primo E4 review Antutu Benchmark Score

AnTuTu স্কোরের দিক থেকে Asus Zenfone 5 এর পরে Primo E4 এর অবস্থান।
দেখুন Primo E4 ও Asus Zenfone 5 এর তূলনামূলক AnTuTu স্কোরঃ

Primo E4 vs Asus Zenfone 5

বেঞ্চমার্ক যাচাইয়ের আরেক অ্যাপ Nenamark এ Primo E4 এর স্কোর এসেছে ৫৫.৫

Primo E4 hands-on review Nenamark Scoreস্পেশাল ফিচারঃ
এই ফোনে স্পেশাল ফিচার হিসেবে রয়েছে নোটিফিকেশন লাইট, এয়ার শাফল প্রভৃতি আকর্ষণীয় সুবিধা।

Primo E4 Special FeaturesPrimo E4 Special Features Air ShuffleOTA আপডেট সুবিধাঃ
এই ফোনে OTA বা Over The Air আপডেট সুবিধা রয়েছে, যার ফলে পিসির সাথে সংযুক্ত করা ছাড়াই এর সফটওয়্যার আপডেট করা যাবে।

Primo E4 OTA UpdatePrimo E4 OTA Updateমূল্যঃ
ক্রেতাদের সাধ্যের কথা বিবেচনা করে আকর্ষণীয় ডিজাইন ও প্রয়োজনীয় নানা ফিচারসংবলিত Primo E4 স্মার্টফোনটির মূল্য ৫,৪৯০ টাকা নির্ধারণ করেছে ওয়ালটন কর্তৃপক্ষ।

Primo E4 এর ভালো লাগার দিকসমূহঃ

  • হালকা গড়ন
  • এয়ার শাফল সুবিধা
  • সন্তোষজনক ক্যামেরা পারফরম্যান্স
  • Over The Air আপডেট সুবিধা

Primo E4 এর সীমাবদ্ধতাঃ
স্বল্পমূল্যের এই ফোনটির নিম্নোক্ত কিছু সীমাবদ্ধতা রয়েছে, যদিও মূল্য বিবেচনায় এসব সীমবদ্ধতা ততোটা উল্লেখ করার মতো নয়।

  • অপেক্ষাকৃত দুর্বল মালি-৪০০ জিপিউ এর ব্যবহার
  • র‍্যাম মাত্র ৫১২ মেগাবাইট

Primo E4 hands-on reviewচূড়ান্ত সিদ্ধান্তঃ
যারা স্বল্পমূল্যে প্রয়োজনীয় নানা ফিচার সংবলিত স্মার্টফোন কিনতে চান, সেই সাথে চান আকর্ষণীয় গড়ন, তাদের জন্য ওয়ালটনের এই ফোন থাকতে পারে পছন্দের শীর্ষ তালিকায়। ভবিষ্যতে আরও উন্নত কনফিগারেশনের স্মার্টফোন এমন সুলভমূল্যে বাজারে আনবে ওয়ালটন – এমনটাই প্রত্যাশা।
Primo E4 awesomeপ্রিয় পাঠক, আজ তাহলে এপর্যন্তই। Primo E4 সম্পর্কে আপনাদের মূল্যবান প্রশ্ন কিংবা মন্তব্য লিখুন কমেন্টে। নতুন কোন স্মার্টফোনের হ্যান্ডস-অন রিভিউ নিয়ে আবারও দেখা হবে আপনাদের সাথে।

 

লিখেছেনঃ এম এন নাহিদ

উত্তর দিন