ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক কে শক্তিশালী করতে ৫টি সুপার টিপস

0 225

ওয়াই-ফাই সংযোগ আমাদের কাছে একটি লালসার বস্তু। যদিও আজকাল নিজস্ব একটি ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক আমাদের মৌলিক চাহিদার মতো হয়ে দাড়িয়েছে। কারন প্রযুক্তির ক্রমবিকাশের সাথে সমস্ত দুনিয়ার সাথে নিজেকে সংযুক্ত রাখতে ইন্টারনেট কানেকশন যেমন জরুরী, ঠিক তেমনি সেই ইন্টারনেট কানেকশনকে আমাদের সব ডিভাইসে ব্যবহারের জন্য ওয়াই-ফাই সংযোগটাও অনেক জরুরী। কিন্তু আমরা যারা আমাদের বাসা বাড়িতে ওয়াই-ফাই রাউটার ব্যবহারের মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহার করে থাকি তারা খুব ভালো করেই বুঝতে পারি সিগনালের দুর্বলতা কী জিনিস। যদিও বিভিন্ন কারনে আমরা ওয়াই-ফাই এর দুর্বল সিগনাল পেয়ে থাকি; যেমন- ওয়াই-ফাই রাউটার হতে আপনার অবস্থান, দুরত্ব, মাঝখানের বাধা ইত্যাদি ইত্যাদি। কিন্তু আমরা কি শুধুমাত্র ওয়াই-ফাই সমস্যার কারনে নিজেদের বাসা বদলাতে পারবো? অবশ্যই না, তাহলে উপাই? চিন্তা করবেন না, সমস্যা যেখানে আছে সমাধান সেখানে অবশ্যই থাকবে। আজ আমি আপনাদের দেখাবো কিভাবে ঘরে বসেই কোন প্রকার জটিলতা ছাড়া মাত্র ৫টি পদ্ধতি অনুসরণ করে আপনি একটি শক্তিশালী ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক গড়ে তুলতে পারেন। তবে আর দেরি কেন? চলুন তাহলে শুরু করা যাক-

ওয়াই-ফাই রাউটার কে যতোটা সম্ভব উঁচু স্থানে রাখতে হবে

আমরা সাধারনত ওয়াই-ফাই রাউটার ফ্লোরে, আমাদের লিভিং রুম বা অফিসের কোণায় বা টেবিলের উপর রাখি। যা সত্যিকার অর্থেই সিগনাল ট্রানমিশনের জন্য খুব নাজুক অবস্থা। আপনি হয়তো দেখেছেন যখন আমাদের কারো ফোনে নেটওয়ার্ক থাকেনা কিংবা আমরা যখন এফএম রেডিও শুনি তখন যদি দুর্বল সিগনাল থাকে তাহলে আমাদের সেল ফোনটাকে যতোটা সম্ভব উঁচুতে রাখার চেষ্টা করি। কারন এটাই হলো সিগনাল পাওয়ার সঠিক পদ্ধতি। তাই ঠিক একই পদ্ধতিতে আমাদের ওয়াই-ফাই রাউটারটিকে যতোটুকু সম্ভব উঁচুতে রাখতে হবে এবং অবশ্যই সেটাকে বাসার ঠিক মাঝামাঝি জায়গায় রাখতে হবে। যাতে বাসার বাকি অংশগুলো থেকে সমানভাবে সিগনাল পাওয়া যায়।

wifi

 

রাউটারের চারপাশ নির্ঝঞ্ঝাট রাখতে হবে

সব সময় যে আপনি ওয়াই-ফাই রাউটারকে একদম ঘরের ছাদের কাছাকাছি রাখতে পারবেন এরকমটা ভাবছি না। আপনি হয়তো কোন আসবাবের উপরে আপনার রাউটারটিকে রাখতে পারেন। কিন্তু রাউটার যেখানেই রাখুন সব সময় আপনাকে মনে রাখতে হবে এর চারপাশ যেন নির্ঝঞ্ঝাট থাকে। সব সময় মনে রাখতে হবে আপনার ওয়াই-ফাই রাউটারের আশে পাশে যদি অন্যকোন ডিভাইস যেমন, মোবাইল ফোন, রেডিও, টেলিভিশন, মাইক্রোওয়েভ, বা কোন পরিবাহী তার থাকে তাহলে সেটি আপনার ওয়াই-ফাই সিগনালকে ব্যাহত করতে পারে। সুতরাং শক্তিশালী সিগনাল পেতে হলে রাউটারের চারপাশে কোন কিছু রাখা চলবে না।

 

সিগনাল শক্তিশালী করতে পানীয় ক্যান ব্যবহার করা যেতে পারে

এই পদ্ধতিটি খুব সহজ এবং কার্যকর একটি পদ্ধতি। সাধারণত আমরা কোন কোমল পানীয় খাওয়ার পর সেই ক্যানটাকে ফেলে দেই। কিন্তু আজ কিছুটা রিসাইকেল প্রকৃয়া শেখাবো আপনাদের। কোকাকোলা আর আরসির ক্যানকে শেষ করার পর এটাকে কাঁচি দিয়ে নিচের চিত্রের মতো করে কেটে রাউটার এন্টেনার চারপাশে একটা বলয় তৈরী করে দিন। এটা আপনার ওয়াই-ফাই সিগনালকে আরও শক্তিশালী করবে আশা করি।

 

প্রয়োজনে এক্সটেন্ডার ব্যবহার করুন

এতোক্ষণ যে তিনটি পদ্ধতি বর্ণনা করলাম এগুলো আপনি নিজে নিজেই প্রয়োগ করতে পারবেন। কিন্তু আপনার বাসা যদি অনেক বেশি আয়তনের হয় তাহলে কষ্ট করে ওয়াই-ফাই এক্সটেন্ডার ব্যবহার করুন। এই ওয়াই-ফাই এক্সটেন্ডার মূলত ওয়াই-ফাই সিগনালকে গ্রহণ করে আবার সেটাকে পূর্ণ শক্তিতে ট্রান্সমিট করে। যদিও খুব বেশি দুরত্বে ব্যবহার করলে এটার শক্তি একটু কমে যায় তবুও না পাওয়ার চেয়ে সামান্য কিছু পাওয়া একেবারে মন্দ না।

 

দুইটা রাউটার ব্যবহার করুন

আপনার যদি আর্থিক সচ্ছলতা থাকে তাহলে ওয়াই-ফাই সিগনালকে অধিক শক্তিশালী করার জন্য দুইটা রাউটার ব্যবহার করতে পারেন। আজকাল বাজারে ৮০০-১০০০ টাকার ভেতরেই ওয়াই-ফাই রাউটার কিনতে পাওয়া যায়। সুতরাং আর্থিক দিকটাও এতোটা গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে হচ্ছে না। দুইটা ওয়াই-ফাই রাউটার সত্যিই অনেক শক্তিশালী ওয়াই-ফাই সিগনাল দিতে সক্ষম। আমি নিজে মাঝে মাঝে দুইটা ওয়াই-ফাই একসাথে ব্যবহার করি, যদিও সেটা ভিন্ন পদ্ধতিতে তবে আপনাদের জন্য খারাপ হবে না।

 

এক নজরে দেখে নিন সব কিছু

উপরে ওয়াই-ফাই সিগনালকে শক্তিশালী করার জন্য ৫টি পদ্ধতি সচিত্র বর্ণনা করার চেষ্টা করেছি। আশা করি আপনারা সবাই বিষয়টা ভালোভাবে বুঝতে পেরেছেন। তবে এখনো যদি কেউ না বুঝে থাকেন তাহলে কষ্ট করে নিচের ২ মিনিটের ভিডিওটি দেখে নিন। আশা করি আপনার টিউনটি বুঝতে ষোলকলা পূর্ণ হবে।

এবার নিশ্চয় আপনারা টিউনের বিষয়বস্তু ভালোভাবে উপলব্ধি করতে পেরেছেন। আশা করি আজকের পর থেকে আপনাদের সবার দুর্বল ওয়াই-ফাই সিগনাল সবল হয়ে যাবে। দুর্বলকে সবল করার এই টিপসগুলো ব্যার্থ হবে না আশা করি। তবুও ব্যতিক্রমি অনেক কিছুই ঘটতে পারে। সেক্ষেত্রে আপনাদের সফলতা ব্যার্থতা দুটোই আমাকে টিউমেন্টের মাধ্যমে জানাতে ভুলবেন না কিন্তু।

শেষ কথা

টিউনটি যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে অথবা বুঝতে যদি কোন রকম সমস্যা হয় তাহলে আমাকে টিউমেন্টের মাধ্যমে জানাতে ভুলবেন না। কারন আপনাদের যেকোন মতামত আমাকে সংশোধিত হতে এবং আরো ভালো মানের টিউন করতে উৎসাহিত করবে। সর্বশেষ যে কথাটি বলবো সেটা হলো, আসুন আমরা কপি পেস্ট করা বর্জন করি এবং অপরকেও কপি পেস্ট টিউন করতে নিরুৎসাহিত করি। সবার সর্বাঙ্গিন মঙ্গল কামনা করে আজ এখানেই শেষ করছি।

 

লিখেছেনঃ Sanem Mahbeer Fahad

উত্তর দিন