এবার তথ্যমন্ত্রীর ওয়েবসাইট হ্যাক করেছে সাইবার ৭১

0 150

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর ব্যক্তিগত ওয়েবসাইট হ্যাক করেছে সাইবার ৭১। সোমবার সকাল ১১ টা ৫৭ মিনিটে এই ওয়েবসাইটি হ্যাকের খবর তাদের অফিসিয়াল ফেইসবুক ফ্যান পেইজে স্ট্যাটাস দিয়ে জানান দেয়।

অশ্লীল সংবাদ পরিবেশনকারীদের বিরুদ্ধে আইন করার দাবিতে তথ্যমন্ত্রীর ওয়েবসাইটি করা হয়েছে বলে স্ট্যাটাসে জানিয়েছে বাংলাদেশী এই হ্যাকার সংগঠনটি।

অবশ্য বেলা ২ টা ৪০ মিনিটে সাইটটি উদ্ধার করতে সক্ষম হয় তথ্য মন্ত্রণালয়।

10807380_10204133024019430_1511405743_o

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু সম্প্রতি তাঁর এই ব্যক্তিগত ওয়েবসাইটটি  চালু করেছেন। এতে তথ্যমন্ত্রীর বক্তব্যসমূহ, সংবাদ উদ্ধৃতি, জীবনবৃত্তান্ত, ছবি ও ভিডিও গ্যালারির সাথে একটি যোগাযোগ পেইজও রয়েছে। এই পেইজে সরাসরি মন্ত্রীকে ইমেইল মতামত বা প্রশ্ন করার সুবিধা রয়েছে।

সাইবার ৭১ ওয়েবসাইটটিতে বেড়ালের ছবি ঝুলিয়ে রেখেছে। হ্যাক পেইজে তারা লিখেছে, হ্যাকারদের জন্য তথ্যপ্রযুক্তি আইন না করে যারা সাংবাদিকতার নামে অশ্লীল সংবাদ দিয়ে বিশ্বের গণমাধ্যমে বাংলাদেশের নাম খারাপ করে তাদের বিরুদ্ধে আইন প্রণয়ন করুন।

তারা লিখেছে, তথ্যমন্ত্রী ‘হাসানুল হক ইনু’ সাহেবের অফিশিয়াল ওয়েবসাইট অক্ষত রেখে হোমপেইজ পরিবর্তনের মাধ্যমে হ্যাক করা হয়েছে।

পেইজে তথ্যমন্ত্রীর প্রতি তারা বলেছে, মাননীয় তথ্যমন্ত্রী, প্রথমেই বাংলাদেশী হ্যাকার গ্রুপ সাইবার ৭১ এর পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা নিবেন। আশাকরি এর পূর্বেই আমাদের নাম বাংলাদেশী কোনো দৈনিক পত্রিকার পাতায় অথবা কোনো বাংলাদেশী মিডিয়ায় দেখে এসেছেন। হ্যাকার মানে দেশের শত্রু না, বরং তারা দেশের সাইবার স্পেসের নিরাপত্তায় কাজ করতে পারে। তাদের কিবোর্ডের ঝড়ের মাধ্যমে দেশের বিরোধীদের প্রতিবাদ এবং প্রতিরোধ করা যায় এটা আর কেউ না পারলেও, সাইবার ৭১ কিন্তু ঠিকই প্রমান করে গেছে সবার কাছে।

তারা আরো লিখেছে, ‘বাইরের দেশে হ্যাকারদেরকে আইটি স্পেশালিষ্ট হিসেবে সর্বোচ্চ মূল্যয়ন করা হয়। আমাদের দেশে এখনো অনলাইন সিকিউরিটি নিয়েই কারো মাথা ব্যাথা নেই। দেশ ডিজিটাল করতে হলে অবশ্যই দেশের সাইবার স্পেসের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। একটা দেশের অনলাইন ব্যবস্থা যতখানি উন্নত, সেই দেশটা ততবেশি এগিয়ে। পূর্বে সবার তুলনায় আপনি ইতিমধ্যেই দেশের অনলাইন জগত নিয়ে অনেক বেশি কাজ করে গেছেন বলে সাইবার ৭১ আপনার নিকট কৃতজ্ঞ। তাই আশা করবো এই ব্যাপারগুলোও আপনি নজরে নিবেন।

অশ্লীল সংবাদ পরিবেশনকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়ে তারা লিখেছে ‘ইতিমধ্যেই একটা ব্যাপার আপনিও লক্ষ করছেন যে, ইদানিং বেশ কিছু সংবাদ পোর্টাল বেশি ভিজিটরের আশায় নিউজের নামে অশ্লীল বাজে খবর ছড়িয়ে বিশ্ব গণমাধ্যমের বুকে বাংলাদেশের নাম খারাপ করে যাচ্ছে। আশাকরি আপনি নিজেই এর বিরুদ্ধে আইন প্রণয়ন করবেন। আর যদি তারা তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে না থাকে অথবা তাদের নিয়ন্ত্রণ করা আপনাদের পক্ষে সম্ভব না হয় তাহলে ওদের দায়িত্ব আমাদের হাতে ছেড়ে দিন। ওদের সোজা করতে মন্ত্রণালয়ের কামান দাগার জন্য অপেক্ষা করার প্রয়োজন নেই। সাইবার ৭১– ই যথেষ্ট।

গ্রুপটি তথ্যমন্ত্রীকে ইমেইলও করেছে তাঁর ওয়েবসাইটটির দূর্বলতা নিয়ে।

বাংলাদেশী এই হ্যাকার গ্রুপটি তাদের কার্যক্রম শুরু করে ২০১৩ সালের ৯ মার্চ। এরপর ফেলানী হত্যা মামলার রায়ের প্রতিবাদে ভারতীয় পুলিশের ওয়েবসাইট, ভারতীয় দূতাবাস এবং ভারতের অনেক সংখ্যক বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট হ্যাক করে সেখানে ফেলানীর ছবি দিয়ে রাখে। এরপর তারা পাকিস্তান জামায়াত ইসলামীর ওয়েবসাইটও হ্যাক করে।

গ্রুপটি বিজেপি রাজ্যসভা, বিজেপি লোকসভা, বিজেপি দিল্লি, বিজেপি মধ্যপ্রদেশ, বিজেপি পাঞ্জাব, বিজেপি অনলাইন ফোরাম, বিজেপি ফ্যান ওয়েবসাইট, বিজেপি কেন্দ্রীয় মহিলা বিভাগীয় ওয়েবসাইট, উপ-প্রধানমন্ত্রীর ওয়েবসাইট,বিজেপি বিহার ওয়েবসাইট এবং বিজেপি নেতা লালকৃষ্ণ আদভানীর ব্লগ ও ফোরাম হ্যাক করে। সেইসময় বিজেপির প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী নরেন্দ্র মোদির নির্বাচনী ওয়েবসাইটও হ্যাক করেছিল তারা।

এছাড়া বাংলাদেশের রেডিও টুডের ওয়েবসাইট, র‌্যাম্প মডেল নাইলা নাঈমের ওয়েবসাইট, কিছু নিউজ পোর্টালসহ বেশকিছু ওয়েবসাইটও হ্যাক করে। তারা গত ১৪ ফেব্রুয়ারি রেডিও আমার এর ফ্রিকোয়েন্সিও কন্ট্রোলে নিয়ে নিয়েছিল।

PoC: Mirror

উত্তর দিন