খুব সহজেই দুটি কম্পিউটারের মধ্যে ডাটা শেয়ার করুন * প্রতি সেকেন্ডে 100 মেগাবাইট গতিতে *

8 691

নিচের এই পোষ্টটি পড়ে আপনি যে যে  বিষয়ে দক্ষ হয়ে উঠবেন:

১. কিভাবে দুটি পিসির মধ্যে সফটওয়্যার ছাড়া নেটওয়ার্ক তৈরী করা যায়?

২. ইথারনেট ক্যাবল কি?

৩. ক্রসওভার (CROSSOVER CABLE) ক্যাবল কি? কিভাবে তৈরী করা হয়?

৪.  কিভাবে আইপি এড্রেস সেট করতে হয়।

৫.  কিভাবে প্রিন্টার শেয়ার করতে হয়। অর্থাৎ একটি প্রিন্টার দিয়ে একের অধিক কম্পিউটার থেকে কিভাবে প্রিন্ট করা যায়।

৬.  কিভাবে পুরাতন কম্পিউটারের সকল ডাটা নতুন কম্পিউটারে শিফট করবেন।

৭.  কিভাবে পেনড্রাইভ বা পোর্টেবল হার্ড ড্রাইভ ছাড়াই শুধুমাত্র একটি ক্যাবল এর মাধ্যমে দুটি কম্পিউটারের মধ্যে গান, ভিডিও সহ যেকোন ফাইল আদান-প্রদান করবেন।

 

 

আসসালামু আলাইকুম।  সবাইকে পহেলা বৈশাখের শুভেচ্ছা।

বৈশাখী শুভেচ্ছা

 

আজকের দিনটা আমাদের সবার জন্যই স্পেশাল। আমরা মোটামুটি সবাই এই দিনে অনেক কাজে ব্যস্ত থাকি। সবারই একটি ইচ্ছা থাকে যে, স্পেশাল দিনে স্পেশাল মানুষকে কিছু স্পেশাল গিফট দেয়া। আর তাই আজ এই দিনে, প্রিয় ওয়েব সাইট, পিসি হেল্পলাইন বিডি’র পাঠকের জন্য আমার ক্ষুদ্র উপহার।

আমরা অনেকেই নতুন পিসি বা ল্যাপটপ কেনার পর পুরাতন হোম পিসি থেকে ছবি, গান, ভিডিও ইত্যাদি ফাইল সমুহ ট্রান্সফার করার জন্য সাধারনত পেন ড্রাইভ, পোর্টেবল হার্ডড্রাইভ বা ডিভিডিতে বার্ন করে ডাটা ট্রান্সফার করে থাকি। এটি একটি খুবই সিম্পল কপি-পেষ্ট এর কাজ এবং আমি মনে করি না এর জন্য আমাদের এত সময়, পেন ড্রাইভ বা পোর্টেবল হার্ডড্রাইভ কেনার জন্য টাকা খরচ করার কোন দরকার আছে। একটি অতি সহজ এবং দ্রুত পদ্ধতি আছে যার মাধ্যমে খুবই সহজে এই দুই কম্পিউটার এর মধ্যে ডাটা, প্রিন্টার, ইন্টারনেট এবং নেটওয়ার্ক গেমস ইত্যাদি শেয়ার করা যায়। আজকাল শেয়ার শব্দটি ইন্টারনেট জগতে সবারই খুব পরিচিত একটি শব্দ। তাহলে কেন নিজের কম্পিউটারে এই শেয়ার শব্দটি ব্যবহার করবো না????

 

নিচে আমি যে পদ্ধতি দেখাবো তার মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই দুটি পিসির মধ্যে ডাটা শেয়ারিং করতে পারবেন। আমার দেখানো এই নেটওয়ার্কিং এর মাধ্যমে আপনি ডাটা, প্রিন্টার, ইন্টারনেট, গেমস ইত্যাদি শেয়ার করতে পারবেন। এই পদ্ধতিতে আপনার কোন হাব, সুইচ বা রাউটার এর প্রয়োজন হবে না। শুধুমাত্র একটি ক্রসওভার ক্যাবল হলেই চলবে।

খেয়াল করুন, আপনি এর মাধ্যমে দুটি ডেক্সটপ/ল্যাপটপ বা একটি ল্যাপটপ ও একটি ডেক্সটপ এর মধ্যে ডাটা শেয়ারিং তৈরী করতে পারবেন যদিও তাতে একই অপারেটিং বা ভিন্ন অপারেটিং সিস্টেম ইন্সটল করা থাকলেও, ফাইল শেয়ারিং করতে পারবেন।

 

প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি:

স্কুল কলেজে যে রকম পড়ে এসেছেন যে, রসায়ন বিদ্যা বা পদার্থ বিদ্যা এর কোন পরীক্ষা করার সময় প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি দরকার হয়। তেমনি এই পোষ্টটি যদি কার্যকরণ করতে চান, তাহলে নিচে উল্লেখিত যন্ত্রপাতি দরকার হবে।

 

১. দুইটি কম্পিউটার – হতে পারে তা ‍দুটি ডেক্সটপ / দুটি ল্যাপটপ / একটি ল্যাপটপ এবং একটি ডেক্সটপ ।

২. একটি ইথারনেট ক্রসওভার কেবল:  ক্রস ওভার ক্যাবল, দুটি পিসি কে হাব, সুইচ বা রাউটার ব্যতিত সরাসরি সংযোগ করার ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়। একটু খেয়াল করুন, সাধারনত ইথারনেট ক্যাবল গুলোর (যাকে আমরা ল্যান ক্যাবল ও বলে থাকি) দুটি মাথায়, তার গুলো একই ভাবে সাজানো থাকে অর্থাৎ তাদের দুটি মাথায়ই তারের রং গুলি মিল থাকে। নিচের ছবিতে দেখানো তারের নম্বর এর দিকে খেয়াল করলেই বুঝতে পারবেন।

eer

 

কিন্তু ক্রসওভার কেবলে সর্বমোট তার থাকবে চারটি যার প্রথম এবং তৃতীয় তার ( বা দিক হতে ডানদিকে গুনে ) এবং দ্বিতীয় এবং ষষ্ঠ নং তার ক্রস করা থাকে। অর্থাৎ এর এক মাথার প্রথম তার অপর মাথার তৃতীয় তারে সংযুক্তি হবে এবং অপর মাথার প্রথম তার এই মাথার তৃতীয় তারের সাথে সংযুক্তি হবে। ছবিটি খেয়াল করুন । নম্বর দিয়ে খুব সুন্দর ভাবে দেখাতে চেষ্টা করেছি।

fdf

 

 

কোথায় পাবেন: যেকোন কম্পিউটার এর দোকানে গিয়ে বলবেন যে, আমাকে এক বা দু মিটার ক্রসওভার ইথারনেট ক্যাবল দিন বা বানিয়ে দিন যাতে আমি দুটি পিসির মধ্যে কোন সুইচ, হাব বা রাউটার বাদেই ডাটা শেয়ার করতে পারি। তারা সেই ক্যাবল বানিয়ে দিলে, আপনি হাতে নিয়ে তারের লেআউট দেখলেই বুঝতে পারবেন, যা আমি উপরে ছবি সহ বলেছি। দারুন তাই না ! 🙂

৩. নেটওয়ার্ক এ্যাডাপ্টার:  দুটি পিসিতেই নেটওয়ার্ক এ্যাডাপ্টার থাকতে হবে। বর্তমানের কম্পিউটার গুলোর মাদারবোর্ডে বিল্টইন নেটওয়ার্ক কার্ড থাকে। তাই যাদের আছে তাদের আর আলাদা নেটওয়ার্ক কার্ড কিনতে হবে না। তবে খেয়াল রাখতে হবে যেন মাদারবোর্ডের সিডি বা নেটওয়ার্ক কার্ডের ড্রাইভার পিসিতে সঠিক ভাবে ইন্সটল করা থাকে।

 

কিভাবে দুটি কম্পিউটারের মধ্যে সংযোগ স্থাপন করবেন:

এটি একটি বড় পোষ্ট। আমি বিস্তারিত ভাবে লেখার চেষ্টা করেছি। যাতে যেকেহ আমার পোষ্ট পড়ে খুব সহজেই বিষয়গুলো বুঝতে পারে। আপনার হতে যদি পড়ার মত প্রয়োজনীয় সময় না থাকে, তাহলে পরে, সময় নিয়ে পড়ুন।

 

আবার পোষ্ট এর বিষয়ে ফিরে আসি।  কিভাবে দুটি কম্পিউটারের মধ্যে সংযোগ স্থাপন করবেন এটাই হলো আসল কাজ। শুনতে সহজ মনে হলেও দুটি পিসিতে এই সংযোগ তৈরী করা কিন্তু এত সহজ নয়। এর জন্য দুটি পিসিতেই আইপি কনফিগারেশনের একটা ব্যাপার আছে। তো চলুন দেখি নিচের পদ্ধতি অনুসরন করে, কিভাবে দুটি পিসি একে অপরের সাথে কথা বলাতে পারবো….

 

১. দুটি পিসির ইথারনেট পোর্টে ক্রসওভার ক্যাবল এর এক মাথা করে প্লাগইন করার মাধ্যমে সংযুক্ত করুন। ছবি দেখুন: 

প্রথম কম্পিউটার
প্রথম কম্পিউটার

 

দ্বিতীয় কম্পিউটার
দ্বিতীয় কম্পিউটার

 

২. এখন দুটি পিসির নেটওয়ার্ক সেটআপ করবো। এক্সপিতে Start > Connect to > Show all connection এ গিয়ে Local area connection এ মাউস এর রাইট ক্লিক করে প্রোপার্টিজ এ যান।

Lan setting

এখন Internet protocol (TCP/IP) তে ডাবল ক্লিক করুন। এর প্রোপার্টিজ আসবে। General ট্যাবের অন্তর্ভুক্ত Use the following IP address: এ ক্লিক করুন। তারপর IP address এর যায়গায়  192.168.1.1 ( 192.168.1.2 ‍দ্বিতীয় পিসির জন্য ) লিখুন। এখন Subnet mask এর ঘরে 25.255.255.0 ( দুটি পিসির জন্য একই ) বসান। এরপর Default gateway এর ঘরে অপর পিসির আইপি এড্রেস বসান। এর পর Ok প্রেস করুন।

উইন্ডোস সেভেনে আইপি এড্রেস পরিবর্তন করার জন্য ক্লিক করুন Start->Connect to->View network computers and devices->Network and sharing center. Select Manage Network Connections, press properties button under Local Area Connection. Select Internet Protocol version4(TCP/Ip4) and press properties button. এখন The internet Protocol (TCP/IP) এর প্রোপার্টিজ এর ডায়ালগ বক্স আসবে। সেখানে উপরের দেখানো এক্সপি এর নিয়মে আইপি এড্রেস লিখুন। ছবি দেখুন:

IP setting

 

 

একটু সহজ করে দেই । প্রথম পিসির আইপি এড্রেস নিম্নরুপ:

IP address: 192.168.1.1

Subnet mask: 255.255.255.0

Default gateway: 192.168.1.2 (এটা ২য় কম্পিউটারের IP Address)

 

দ্বিতীয় পিসির আইপি এ্যাড্রেস নিম্নরুপ:

IP address: 192.168.1.2

Subnet mask: 255.255.255.0

Default gateway: 192.168.1.1 (এটা প্রথম কম্পিউটারের IP Address)

setting ip

 

 

৩. এখন লোকাল নেটওয়ার্কের জন্য একটি ওয়ার্ক গ্রুপ তৈরী করবো। my computer এ মাউসের রাইট ক্লিক করুন। এখন properties সিলেক্ট করুন। দেখুন সেখানে Computer Name নামে একটি ট্যাব আছে। সেখান হতে কম্পিউটারের নাম ও ওয়ার্কগ্রুপের নাম পরিবর্তন করুন। ( নোট: কম্পিউটারের নাম দুই পিসির জন্য আলাদা আলাদা দিতে হবে কিন্তু ওয়ার্কগ্রুপের নাম দুটি পিসিতেই একদম একই দিতে হবে । )

Workgroup

৪. Ok প্রেস করুন এবং দুটি পিসিই রিস্টার্ট দিন।

 

৫. এখন আপনার হোম নেটওয়ার্ক, ট্রান্সফার ফাইল, প্রিন্টার শেয়ার এবং সর্বোপরি নেটওয়ার্ক গেমস খেলার জন্য সম্পুর্ণ প্রস্তুত।এখন এই ক্রসওভার ক্যাবল দিয়ে দুই কম্পিউটার কানেক্ট করার দরুন, দেখবেন নেটওয়ার্কের জায়গায় অন্য কম্পিউটার দেখা যাচ্ছে । ছবি দেখুন:

laptop

 

একটা কাজ কিন্তু এখনও বাকি আছে। এখন মাত্র আপনার পিসি দুটি, ফাইল শেয়ারিং এর জন্য তৈরী। পরের কাজ গুলি মনযোগ দিয়ে করুন।

এখন মনযোগ দিন। ডাটা শেয়ারিং করার জন্য, অর্থাৎ যে কম্পিউটারের ডাটা, অপর পিসিতে শেয়ার করতে চান, সেই ফোল্ডার বা ড্রাইভে রাইট ক্লিক করুন। এরপর প্রোপার্টিজ এ গিয়ে শেয়ারিং সিলেক্ট করুন। তারপর If you understand the risk but still want to share the root of the drive, click here এ ক্লিক করুন ( যেকোন ড্রাইভের ক্ষেত্রে )। আর ফোল্ডারের ক্ষেত্রে শেয়ারিং সিলেক্ট করার পর Network sharing and security এর অধীনে Share this folder on the network এ ক্লিক করে চেক মার্ক দিন। Allow network users to change my files এও চেক মার্ক দিতে পারেন।

এর পর Apply এ ক্লিক করুন। এখানে একটি সতর্কবার্তা আসতে পারে যদি আপনার ড্রাইভ বা ফোল্ডারের নাম ১২ ক্যারেক্টারের বেশি হয়। তাই চেষ্টা করবেন যে ড্রাইভ বা ফোল্ডার শেয়ার করবেন তার নাম যেন ১২ ক্যারেক্টারের মধ্যেই হয়। এর পর ok প্রেস করুন। দেখবেন যে ড্রাইভ বা ফোল্ডারের আইকনের নিচে একটি হাত এর ছবি আসবে। তার মানে হলো এই ড্রাইভ বা ফোল্ডারের ডাটা শেয়ার করা সম্ভব। ছবি দেখুন:

Shared

 

 

আর উইন্ডোস সেভেনের জন্য : ধরুন আপনি Local disk( E )  ড্রাইভটি শেয়ার করবেন।

My computer থেকে Local disk( E ) এ রাইট ক্লিক করুন। এর পর পোপার্টিজ এ ক্লিক করুন। ছবি দেখুন:

click it

 

Security Tab এ ক্লিক করুন। এর পর Edit এ ক্লিক করুন। ছবি দেখুন:

Nasir pc

 

এরপর Add এ ক্লিক করুন। Enter the object names এ লিখুন Everyone,

এরপর ওকে করে বেড়িয়ে আসুন।

এখন পোপার্টিজ হতে Sharing tab এ যান।

click this

 

 

Advance Sharing এ ক্লিক করুন।

click ok

 

Share this folder সিলেক্ট করুন। তারপর ওকে করে, ক্লোজ করে বেড়িয়ে আসুন।

 

এবার অপর কম্পিউটারে গিয়ে My computer > Network এ যান। প্রথম পিসিতে প্রবেশ করলে আপনি Local Disk (E) দেখতে পারবেন। ছবি দেখুন:

 

browse

 

কিভাবে প্রিন্টার শেয়ার করবেন:  প্রিন্টার শেয়ার হলো আপনি এক পিসিতে বসে প্রিন্ট কমান্ড দিবেন, যা প্রিন্ট হবে একই নেটওয়ার্কের অন্তর্গত অপর পিসিতে লাগানো প্রিন্টার থেকে। এর জন্য আপনাকে যা করতে হবে তা হল, যে পিসিতে প্রিন্টার আছে তার সেই পিসি হতে প্রিন্টারে মাউজের রাইট ক্লিক করে প্রোপার্টিজ এ যান। Sharing নামে এটি ট্যাব পাবেন। তাতে ক্লিক করুন। সেখানে এরকম একটি লাইন পাবেন।

If you understand the security risks but want to share printers without running the wizard, click here.

এই লাইনে ক্লিক করুন এবং পরের ধাপগুলো পড়ে পড়ে প্রিন্টার শেয়ার করে দিন। এখানে Ok ও Next এ ক্লিক করতে করতে আপনি একটা যায়গায় Workgroup এর নাম বসানোর একটা ঘর পাবেন। সেখানে অবশ্যই একই নাম দিবেন (উপরের ৩ নং পয়েন্টটি খেয়াল করুন) ।এখানে বর্ণনাটা বিস্তারিত দিলাম না। কারন প্রিন্টার সবার নাও থাকতে পারে।

 

উপরের যে নিয়ম দিলাম তার মাধ্যমে খুব সহজেই আপনি দুটি পিসির মধ্যে ডাটা ট্রান্সফার করতে পারবেন। এবার আপনাদের একটা গোপন ট্রিকস জানাবো। অনেকেই আপনারা বিভিন্ন ভাবে এই ডাটা শেয়ারিং সম্পর্কে জানতে পারেন। কিন্তু প্রত্যেক টিপস এর একটি গোপন ট্রিকস থাকে। এই পোষ্টেরও একটি গোপন ট্রিকস আছে। তা হল এই পদ্ধতি ব্যবহার করে দুটি এক্সপি চালিত পিসির মধ্যে সহজেই ডাটা ট্রান্সফার করতে পারবেন। কিন্তু যদি একটি এক্সপি এবং একটি উইন্ডোস সেভেন বা দুটি সেভেন চালিত পিসি ব্যবহার করেন তাহলে আপনাকে বারতি একটি কাজ করতে হবে। তা হল, আপনার উইন্ডোস সেভেন চালিত কম্পিউটারে ইউজার একাউন্টে পাসওয়ার্ড দিতে হবে। এর জন্য কম্পিউটারের কন্ট্রোল প্যানেলে যাবেন। তারপর User Account এ যাবেন। তারপর আপনি যে একাউন্টে এখন পিসিটি রান করছেন অর্থাৎ পিসিটি যে নাম দিয়েছেন তাতে ক্লিক করবেন। সেখানে Create a Password অপশনে ক্লিক করে পাসওয়ার্ড দিবেন। মনে করেন আপনি একটি এক্সপি ও একটি সেভেন চালিত পিসিতে ক্রসওভার ক্যাবল এর মাধ্যমে ডাটা শেয়ার করেছেন। তাহলে সেভেন চালিত পিসিতে ইউজার একাউন্টে পাসওয়ার্ড দিবেন। এখন খেয়াল করুন, মনে করুন এক্সপি এ আইপি বসিয়েছেন 192.168.1.1 এবং সেভেন চালিত পিসিতে আইপি দিয়েছেন 192.168.1.2

এখন উইন্ডোস সেভেন চালিত পিসিতে Run এ গিয়ে লিখুন: 192.168.1.1 (যা এক্সপি চালিত পিসির আই পি) এরপর এন্টার দিন। ছবি দেখুন। এখানে একটি বিষয় খেয়ার করুন। আমি কিন্তু উল্টো স্লাশ দিয়ে আইপি এ্যাড্রেস লিখেছি। ভাল করে দেখুন

192

 

এই কাজটি করার পর আপনি ঐ উইন্ডোস সেভেন চালিত পিসি হতে এক্সপি চালিত পিসিতে প্রবেশ করতে পারবেন। এখন এক্সপি চালিত পিসির যেসকল ড্রাইভ বা ফোল্ডার আপনি আগেই শেয়ার করেছেন তাতে আপনি প্রবেশ করতে পারবেন, কপি বা কাট করে আপনার উইন্ডোস সেভেন চালিত পিসিতে ডাটা ট্রান্সফার করতে পারবেন।

 

একই পদ্ধতিতে, এক্সপি চালিত পিসির রান কমান্ডে লিখুন: 192.168.1.2 (যা উইন্ডোস সেভেন চালিত পিসির আই পি এড্রেস) এখন এক্সপি হতে সেভেন এর পিসিতে প্রবেশ এর সময় ইউজার একাউন্ট এর নাম এবং পাসওয়ার্ড চাইবে। সঠিক নাম ও পাসওয়ার্ড দিন। ওকে করার পর আপনি সেভেন অপারেটিং চালিত পিসিতে প্রবেশ করতে পারবেন। এবং আগে থেকেই সেভেন চালিত পিসির যেসকল ড্রাইভ বা ফোল্ডার শেয়ার করে রেখেছিলেন তাতে প্রবেশ, কপি বা কাট করে আপনার এক্সপি চালিত পিসিতে নিয়ে আসতে পারবেন।

এই পাসওয়ার্ড এর ট্রিকস টাই এ পোষ্টের গোপন ট্রিকস। অনেকেই আপনারা ডাটা শেয়ারিং জেনে থাকতে পারেন। কিন্তু এই পাসওয়ার্ড না দেবার কারনে শেয়ারিং পুরোপুরি ভাবে করতে পারেন নাই। এবার নিশ্চয়ই ডাটা শেয়ারিং বা নেটওয়ার্ক বা প্রিন্টার শেয়ারিং ইত্যাদি করতে পারবেন। তাই না!!!!!!!! ওহ আরেকটি জিনিষ প্রিন্টার শেয়ার করতে চাইলে প্রথমে যে পিসির সাথে প্রিন্টার লাগানো আছে সেই পিসি হতে প্রিন্টার এর পোপার্টিজ এর গিয়ে প্রিন্টার শেয়ার করে দিবেন। তারপর যে পিসির সাথে পিন্টার এর সংযোগ নেই, সেই পিসির রান কমান্ডে গিয়ে অপর পিসির আইপি এ্যাড্রেস লিখবেন (অবশ্যই উপরের নিয়মে রান কমান্ডে আইপি এ্যাড্রেস লিখবেন) তারপর এন্টার দিন। এখন দেখবেন প্রিন্টার দেখা যাচ্ছে। এর পর প্রিন্টার এ মাউজের রাইট ক্লিক করুন। এবং Connect এর ক্লিক করুন। কোন ম্যাসেজ আসলে ওকে করুন। আপনার প্রিন্টার শেয়ার হয়ে গেল। এখন যেকোন মাইক্রোসফট ওয়ার্ড খুলে, প্রিন্টারটি দেখিয়ে একটি প্রিন্ট দিয়েই দেখুন::::::::::

আমি যখনই পোষ্ট করি তখন মাথায় রাখি যে আমি কিছুই জানি না। সুতরাং আমি চেষ্টা করি, নিজে যে ভাবে শিখেছি, ঠিক সে রকম করে, বিস্তারিত ভাবে, সহজ করে লিখতে। যাতে একবার পড়লেই আজীবন মনে রাখা যায়। কেমন হলো জানাবেন। যদি কোন অসুবিধা হয়, তাহলে কমেন্টে জানাতে পারেন। এই ডাটা শেয়ারিং বিষয়ে পিসি হেল্পলাইন বিডি’তে আগে যদি কোন লেখক ভাই, পোষ্ট করে থাকেন, তাহলে আমি আন্তরিক ভাবে দু:খিত। ধন্যবাদ কষ্ট করে পোষ্টটি পড়ার জন্য। সবাই ভাল থাকবেন।

সবাইকে আবারও পহেলা বৈশাখের অনেক অনেক শুভেচ্ছা।

 

আবারও অনেক অনেক ধন্যবাদ।

8 মন্তব্য
  1. ব্লগার ভাই বলেছেন

    সুন্দোর একটি ডাটা শেয়ার ট্রিপস আমাদের মাঝে শেয়ার করার জন্য আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। আমার কোজে লাগবে।

    প্রযুক্তি বিষয়ক বাংলা ব্লগঃ আইডিয়া বাজ

  2. infobd বলেছেন

    পোস্টটা দারুন হয়েছে ভাই। ভাই আমি একাধিক পিসি কি ভাবে নেটওয়ার্ক করব? সেক্ষেত্রে কি ধরনের কেবল ব্যবহার করতে হবে?

  3. Fanciful Osama বলেছেন

    ভাই খুব ভালো পোস্ট!

  4. fariha13mv বলেছেন

    ধন্যবাদ একটি কার্যকরী পোস্টের জন্য

  5. মোঃ রুবেল আহমেদ বলেছেন

    Welcome back ভাল লাগলো খুব সহজেই দুটি কম্পিউটার এর মধ্যে ডাটা শেয়ার করুন * প্রতি সেকেন্ডে 100 মেগাবাইট গতিতে * লেখাটি উপহার দেয়ার জন্য ধন্যবাদ পহেলা বৈশাখের শুভেচ্ছা শুভ নববর্ষ

  6. মুহম্মদ রনি বলেছেন

    ধন্যবাদ আমাদের সাথে শেয়ার করার জন্য। শুভ নববর্ষ।

  7. জাকির হোসেন বলেছেন

    আপনার সব পোস্ট এত দারুন যে, সব অনেক কাজের। ধন্যবাদ আমাদের সাথে শেয়ার করার জন্য। শুভ নববর্ষ।

  8. নাঈম প্রধান বলেছেন

    •>•< • শুভ নববর্ষ •>•< • •>•< • শুভ নববর্ষ •>•< ••>•< • শুভ নববর্ষ •>•< ••>•< • শুভ নববর্ষ •>•< ••>•< • শুভ নববর্ষ •>•< • এই দারুন দিনে আপনার লিখা দারুন একটা পোস্ট । যারা ব্রডবেন্ড ব্যবহার করে তারা অনেক দূর থেকেও এই পোস্ট ফলো প্রতি সেকেন্ডে 100 মেগাবাইট গতিতে ফাইল আদান প্রদান করতে পারবে । কস্ট করে লিখার জন্য ধন্যবাদ । •>•< • শুভ নববর্ষ •>•< • •>•< • শুভ নববর্ষ •>•< ••>•< • শুভ নববর্ষ •>•< ••>•< • শুভ নববর্ষ •>•< ••>•< • শুভ নববর্ষ •>•<•

উত্তর দিন