নয় বছর পেরিয়ে গেল টুইটার

0 26

মাইক্রোব্লগিং ওয়েবসাইট, খুদেবার্তার সাইট কিংবা সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবে টুইটারের পরিচয়। ২১ মার্চ নবম জন্মদিন পালিত হলো টুইটারের। নবম জন্মদিন উপলক্ষে টুইটারের ইতিহাসের সবচেয়ে সাড়াজাগানো পোস্টগুলোকে স্মরণ করেছে প্রতিষ্ঠানটি।
২০০৬ সালের ২১ মার্চ টুইটারের সর্ব প্রথম টুইট করেছিলেন এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা জ্যাক ডরসি। ওই সময় টুইটার (Twitter) নামটি লেখার সময় ইংরেজি ভাওয়েল বাদ দিয়ে তিনি এর নাম দিয়েছিলেন (twttr) | প্রথম টুইটার পোস্ট হিসেবে তিনি লিখেছিলেন ‘জাস্ট সেটিং আপ মাই টুইটার’।
২০০৬ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে এখন পর্যন্ত এই সাইটটির ব্যবহারকারী ২৮ কোটি ৪০ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। বর্তমানে বিশ্বের বড় বড় ঘটনা ও টিভি শোগুলোর টুইটারে নিজস্ব হ্যাসট্যাগ দেখা যায়। অনলাইনে প্রচার বাড়াতে এবং ব্যবহারকারীদের মধ্যে ঘটনা ছড়িয়ে দিতে এই হ্যাসট্যাগ ব্যবহৃত হচ্ছে। ২০০৭ সালে টুইটারের প্রথম দিককার ব্যবহারকারী ক্রিস মেসিনা গ্রুপভিত্তিক আলোচনা বাড়ানোর জন্য হ্যাসট্যাগ ব্যবহারের পরামর্শ দেন। টুইটারে একই বিষয় নিয়ে যে আলোচনা হয় সেগুলো একত্রে পেতে এই হ্যাসট্যাগ চালু হয়। এরপর থেকে ট্রেন্ডিংয়ের ধারণাটিও সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে চলে আসে। বর্তমানে টুইটার ব্রেকিং নিউজেরও বড় একটি উৎস পরিণত হয়েছে। মাত্র ১৪০ অক্ষরের বার্তার মাধ্যমে দ্রুত কোনো খবর প্রকাশ করা যায়। ২০০৮ সালে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা প্রতিষ্ঠান নাসা মঙ্গল গ্রহে তাদের পাঠানো ফিনিক্স নভোযান সেখানে বরফের অস্তিত্ব খুঁজে পেয়েছে এ ঘোষণা দেয় টুইটারে। এ ছাড়া ২০০৯ সালে নিউইয়র্কে হাডসন নদীতে মার্কিন বিমানের জরুরি অবতরণের খবরটিও টুইটারে প্রথম প্রকাশিত হয়। ২০১০ সালে প্রিন্স উইলিয়ামসের বাগদানের খবর প্রকাশের জন্য অফিশিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট তৈরি করে ক্লারেন্স হাউস।

২০১২ সালে দ্বিতীয়বার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের পর টুইটারে সে খবর ছবিসহ পোস্ট করেন বারাক ওবামা। ২০১৪ সাল পর্যন্ত মিশেল ওবামা ও বারাক ওবামার সেই ছবিটিই ছিল টুইটারের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি রি-টুইট হওয়া ছবি।
টুইটার শুধু সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট হিসেবেই নয় বরং বিভিন্ন বিপ্লব, আন্দোলনের প্ল্যাটফর্ম হিসেবেও ব্যবহৃত হয়েছে।
বর্তমানে বিশ্বে সবচেয়ে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট ফেসবুকের তুলনায় টুইটার ব্যবহারকারীর সংখ্যা কম। বর্তমানে ১৩০ কোটিরও বেশি ব্যবহারকারী রয়েছে ফেসবুকে। তাই টুইটারের জনপ্রিয়তা আরও বাড়াতে এবং টুইটারের অভিজ্ঞতাকে উন্নত করতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছেন এর উদ্যোক্তারা। এর মধ্যে রয়েছে টুইটারের অপব্যবহার রোধ, ভুয়া অ্যাকাউন্ট বাতিল করার মতো নানা পদক্ষেপ।

Leave A Reply