ওয়ালটন প্রিমো এইচ৭ এস স্মার্টফোনটির ফুল হ্যান্ডস অন রিভিউ

0 282

১০ হাজার টাকা দামে ওয়ালটন বাজারে এনেছে তাদের নতুন ২ জিবি র‍্যাম সমৃদ্ধ স্মার্টফোন প্রিমো এইচ৭ এস। অরিও ৪.১ সমৃদ্ধ নতুন এই ৪জি স্মার্টফোন সম্পর্কে আজ জানব বিস্তারিত। এর দাম 9,199 টাকা মাত্র।

একনজরে প্রিমো এইচ৭ এস স্মার্টফোনঃ

  • ৫.৪৫” ১৮:৯ রেশিও ডিসপ্লে; যা সাইড দিয়ে ২.৫ডি কার্ভড; স্ক্রাচ প্রটেক্টিভ গ্লাস
  • ফ্রন্ট ৫ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা সাথে এলইডি ফ্ল্যাশ
  • রিয়ার ১৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা সাথে এলইডি ফ্ল্যাশ
  • ২ জিবি ডিডিআর৩ রাম এবং ১৬ জিবি রম
  • ৩০০০ এমএএইচ লিথিয়াম পলিমার ব্যাটারি
  • ৮.১.০ অরিও অপারেটিং সিস্টেম

হার্ডওয়্যার

৯১৯৯ টাকার এই ফোনে ওয়ালটন এর আরেকটি স্মার্টফোন প্রিমো জিএম ৩+ এর সাথে মিল পাওয়া যাবে। কেননা এই স্মার্টফোনটিতেও ব্যবহার করেছে ইমাজিনেশন টেকনোলজিস এর পাওয়ার ভিআর জিপিইউ; আর এই জিপিইউ মডেলটি হল PowerVr Rogue Ge8100। একইভাবে প্রসেসর হিসেবে এতে থাকছে মিডিয়াটেক MT6739 চিপসেট ; যার বাজ স্পীড ১.২৭ গিগাহার্জ- আর এটি একটি কোয়াড কোর প্রসেসর।

ক্যামেরা

ডিভাইসটির পিছনে/রিয়ার প্যানেলে রয়েছে ১৩ মেগাপিক্সেল বিএসআই সেন্সরযুক্ত ক্যামেরা। এই ক্যামেরায় সিঙ্গেল এলইডি ফ্ল্যাস এবং অটোফোকাস সুবিধা থাকছে।রিয়ার ক্যামেরার শুটিং মোড গুলো হলঃ প্যানারোমা, এইচডিআর, ফেস বিউটি এবং নরমাল মোড ইত্যাদি। ফ্রন্ট ৫ মেগাপিক্সেল ক্যামেরার শুটিং মোড গুলো হলঃ এইচডিআর, ফেস বিউটি এবং নরমাল মোড। ক্যামেরার সেটিংস অপশনগুলো হল: এক্সপোসার কন্ট্রোল, হোয়াইট ব্যালেন্স, আইএসও ব্যালেন্স, ইমেজ প্রোপার্টিজ, কালার ইফেক্ট। ক্যামেরাটি ১৯২০*১০৮০ পিক্সেল রেজুলেশনে ভিডিও রেকর্ড করতে পারে।ডিভাইসটির সামনে রয়েছে একটি ফ্রন্ট ফেসিং ৫ মেগাপিক্সেল BSI সেন্সরযুক্ত ক্যামেরা। সামনেও থাকছে একটি সফট এলইডি ফ্ল্যাশ। রয়েছে বেশ কিছু ক্যামেরা সেটিংস।আর শুটিং মোড হিসেবে রয়েছে ; নরমাল মোড, ফেস বিউটি, এইচডিআর, স্ক্রীন মোড। ফ্রন্ট ক্যামেরায় সফট এলিডি ফ্ল্যাশ পাওয়া যাবে। আর ডিভাইসটির এই ক্যামেরা ১০৮০*১৯২০ পিক্সেলে এইচডি ভিডিও রেকর্ড করতে পারে। পাশাপাশি সেলফি এর জন্যেও এটি একটি দারুন ক্যামেরা।

ডিসপ্লে এবং বডি

ডিভাইসটিতে রয়েছে ৫.৪৫ ইঞ্চি এর এইচডি আইপিএস প্যানেল। আর আকর্ষনীয় বিষয় হল এটি একটি ১৮:৯ রেশিও এর ফুল ভিউ ডিসপ্লে। গেমিং,মুভি ওয়াচিং এর ক্ষেত্রে থাকছে প্লাস পয়েন্ট। এটি এইচডি তথা হাই ডেফিনেশন ডিসপ্লে যার রেজুলেশন ১৪৪০*৭২০ পিক্সেল। ডিভাইসটি ৫ ফিংগার মাল্টিটাচ সাপোর্টেড। আইপিএস ডিসপ্লে হওয়ার কারনে নি:সন্দেহে ভিউইং অ্যাঙ্গেল নিয়ে কোন সমস্যা হওয়ার কথা না। ডিসপ্লেটি সাইড দিয়ে ২.৫ ডি কার্ভড হওয়ার কারনে স্মার্টফোনের ডিজাইনকে এটি বাড়িয়ে দিয়েছে কয়েকগুণে। ডিসপ্লেটি ২৬ মিলিয়ন কালার সাপোর্টেড।ডিসপ্লে ২.৫ ডি কার্ভড এবং ব্যাক পার্ট বাকানো হওয়ার কারনে ; স্মার্টফোনটি হাতে নিলে সাইড দিয়ে সুন্দর একটি রাউন্ড কাট অনুভব করা যাবে। রিয়ার প্যানেলে ক্যামেরা এবং ফিংগার প্রিন্ট সেন্সর মডিউল দেখতে খুবই সুন্দর এবং আকর্ষনীয়। ডিভাইসটির আপার প্যানেলে রয়েছে ৩.৫ এমএম হেডফোন জ্যাক, ২.০ ইউএসবি পোর্ট এবং হেডফোন জ্যাক। বাম সাইডে রয়েছে ভলিউম এবং পাওয়ার বাটন।ডিভাইসটির ইউজার ইন্টারফেস একদম স্টক অরিও এর মত; যা অ্যান্ড্রয়েড লাভারদের জন্য আনন্দের।

ডিভাইসটি লম্বায় ১৪৭.৫ মিলিমিটার, প্রস্থে ৬৯.৯ মিলিমিটার। ডিভাইসটির পুরুত্ব ৮.৩ মিলিমিটার। ব্যাটারিসহ এই  ডিভাইসটির ওজন ১৬৭ গ্রাম। ডিভাইসটিকে ব্যাক আপ দিবে একটি ৩০০০ এমএএইচ লিথিয়াম পলিমার ব্যাটারি,ব্যাটারিটি নন-রিমুভেবল। আর ডিভাইসটির ব্যাকপার্টও নন রিমুভেবল। স্মার্টফোনটির ফ্রন্ট প্যানেলে নিচের দিকে পাওয়া যাবে একটি ফিংগারপ্রিন্ট সেন্সর। ডিভাইসটি ডিপ ব্লু এবং গোল্ডেন কালারে বাজারে পাওয়া যাবে।

Leave A Reply