Home এন্ড্রোয়েড স্মার্টফোনের ব্যবহার হাতের সক্ষমতা কমায়।

স্মার্টফোনের ব্যবহার হাতের সক্ষমতা কমায়।

3106
0
SHARE

কেমন আছেন সবাই? আসাকরি ভালোই আছেন। প্রযুক্তির ব্যবহার সুফল এবং কুফল দুইটাই আছে। তবে আমরা যদি নিয়ম মেনে প্রযুক্তিকে ব্যবহার করি তাহলে আর কুফল আসবে না। শুধু প্রযুক্তিই না যে কোন বিষয়ই নিয়ম না মেনে ব্যবহার করলে ক্ষতি হবেই। তেমনটি স্মার্টফোন ব্যবহার করতে হলে আমাদের নিয়ম মেনে ব্যবহার করা উচিত। সম্প্রতি তুরস্কের গবেষকেদের এক গবেষণায় দেখা গেছে যে, অতিরিক্ত সময় ধরে স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর হাতে নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে। হাতের গঠনে সমস্যা দেখা দেওয়ার পাশাপাশি আঙুল ব্যথা বা চিমটি দিয়ে ধরার ক্ষমতা কমে যাওয়ার মতো সমস্যাও দেখা দিতে পারে। এ ছাড়াও এনলারজড মেডিয়ান নার্ভ নামের সমস্যা দেখা দেয়।
মাসল অ্যান্ড নার্ভ নামের অনলাইন সাময়িকীতে গবেষণা সংক্রান্ত নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। অবশ্য মাত্রাতিরিক্ত স্মার্টফোন ব্যবহারের সঙ্গে কারপাল টানেল সিনড্রোমের (সিটিএস) সঙ্গে কোনো যোগসূত্র আছে কি না তা পরিষ্কার করতে পারেনি।
সুলাইমান ডামিরেল বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক এজরা এরকোল আইনাল জানিয়েছেন, ‘সঠিক ক্লিনিক্যাল যোগসূত্র থাকার বিষয়টি এখনো পরিষ্কার নয়। তবে মাত্রাতিরিক্ত স্মার্টফোন ব্যবহারের হাতের সমস্যার বিষয়টি ধরতে আরও গবেষণা হওয়া জরুরি।’
এজরা আরও বলেন, পকেটে থাকা স্মার্টফোনের মতো ডিভাইসগুলোর বিপদ সম্পর্কে তরুণদের সচেতন হওয়া প্রয়োজন। হাতে বহনযোগ্য এই ডিভাইস ব্যবহারকারী বারবার হাতে তা ধরে দেখে এবং বুড়ো আঙুল দিয়ে বার্তা লেখার কাজে লাগায়। এ ছাড়াও স্মার্টফোন ব্যবহারের সময় হাত যেভাবে বারবার নাড়াচাড়া করা লাগে তাতে এটিও-প্যাথোফিজিওল্যাজির সঙ্গে যুক্ত।
গবেষক এজরা আরও বলেন, গবেষকেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিয়ে গবেষণা করেন। স্মার্টফোন ব্যবহারের ক্ষেত্রে আসক্তি বা স্মার্টফোন অ্যাডিকশন স্কেল (এসওএস) এর ওপর ভিত্তি করে তাঁরা এই গবেষণা করেন। গবেষকেরা বলছেন, এই স্মার্টফোন আসক্তির নির্ণয়ের অফিশিয়াল পদ্ধতি নেই। তবে ইন্টারনেট ব্যবহারের আসক্তি দেখে বলা যায় অতিরিক্ত স্মার্টফোনের ব্যবহারে দৈনন্দিন জীবনে এর বিরূপ প্রতিক্রিয়া পড়ে।
গবেষক এজরা বলেন, আলট্রাসনোগ্রাফি করেও অতিরিক্ত স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের এফপিএল টেন্ডন বেড়ে যাওয়ার লক্ষণ দেখেছেন।

সময় পেলে ঘুরে আসুন টেকস্পট সাইট থেকে- www.techspot.com.bd