অর্ক বাহিনীকে রুখতে হয় এই গেইমে

0

মহাবিশ্বের নানা গ্রহে ছড়ানো মানব রাজ্যে হানা দেয়া অর্ক বাহিনীকে রুখতে হয় কঠোর হস্তে। আর কাজটি করে গেইমের হিরো টাইটাস এবং তার সঙ্গী স্পেস মেরিনরা।

প্রসিদ্ধ গেইম সিরিজ ওয়ারহ্যামার ৪০,০০০ এমন কাহিনী নিয়েই নির্মিত। এটি বর্তমান সময়ে জনপ্রিয় হলেও এর শুরু কিন্তু ভিডিও গেইমেরও আগে। ওয়ারহ্যামার বিশ্বে অনেক কিছু ঘটে গেলেও গেইমটি তার একটি ছোট অংশ নিয়ে তৈরি হয়েছে।

ওয়ারহ্যামার ৪০০০০ সিরিজে মানবজাতির মধ্যে সবচেয়ে শক্তিশালী এই যোদ্ধাদের জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং করে বড় করা হয়। পরে তাদের বিশাল আকৃতির পাওয়ার আরমর পড়িয়ে যুদ্ধে নামানো হয়।

টাইটাসের ক্ষমতা ও বিশালত্ব গেইমের প্রতিটি মুহূর্তে টের পাওয়া যাবে। থার্ড পারসন শুটার ঘরানার গেইমটিতে চারদিক ঘুরে দেখা বা রোল প্লেইংয়ে তেমন নজর না দিয়ে নির্মাতা রেলিক গেইমস শুধু অ্যাকশনের দিকেই নজর দিয়েছে। যার ফল হয়েছে মারাত্মক। গেইমের ৯০ শতাংশ জুড়েই অর্কদের সঙ্গে যুদ্ধ করতে হবে।

শত্রু দমনে টাইটাস আগ্নেয়াস্ত্রের পাশাপাশি তলোয়ার, চেইন স, যুদ্ধ হাতুরি ও মাঝে মাঝে অন্যান্য ভারী অস্ত্র ব্যবহার করতে পারবে। এমনকি দৌড়ে গিয়ে নিজের ভার ব্যবহার করে অর্কদের এক ধাক্কায় ছত্রভঙ্গ করে দেয়ার মজা খুব কম গেইমেই আছে।

তবে অ্যাকশনের দিকে নজর দিলেও গেইমটির কন্ঠ অভিনয় বা কাহিনীর দুর্বলতা চোখে পড়ার মতো। ছোট একটি ঘটনাকে কেন্দ্র করে তৈরি করা হলেও গেইমটির প্রতিটি মুহূর্তের ডায়ালগ মনে রাখার মত। অর্কদের চিৎকার, টাইটাসের সঙ্গীদের যুদ্ধের আহ্বান ও অস্ত্রের আঘাতের শব্দ সব মিলিয়ে গেইমটির অভিজ্ঞতা উচ্চমানের।

গ্রাফিক্সের দিক থেকেও গেইমটি পিছিয়ে নেই। তবে মনে রাখতে হবে, এটি ২০১১ সালের অর্থাৎ ৬ বছর আগের গেইম। তবে সেদিক থেকে সুবিধা হচ্ছে, এটি খেলতে তেমন শক্তিশালী পিসি প্রয়োজন নেই, রিভিউর সময় আলদা গ্রাফিক্সকার্ড বিহীন কোর আই থ্রি ও ৪ গিগাবাইট র‌্যামের পিসিতে ৭২০পিক্সেল রেজুলেশনে আল্ট্রা গ্রাফিক্সে এটি পরীক্ষা করা হয়েছে।

গেইমটি খেলতে যা যা প্রয়োজন

  •  ২ গিগাহার্জ কোর ২ ডুয়ো প্রসেসর
  • ২ জিবি র‌্যাম, (উইন্ডোজ এক্সপিতে ১ জিবি)
  • পিক্সেল শেডার ৩ সমর্থিত গ্রাফিক্স (এনভিডিয়া ৮৮০০জিটি অথবা রেডিয়ন এইচডি ৩৮৫০)
  • ১০ জিবি হার্ড ড্রাইভ স্পেস

ফেসবুক থেকে মন্তব্যঃ

Leave A Reply