গুগলের বিরুদ্ধে আবারও নজরদারির অভিযোগ

0

অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীদের ফোনে লোকেশন শেয়ারিং অপশন বন্ধ থাকলেও তাদের অবস্থান সর্ম্পকে জানতে পারে গুগল। এমনটাই দাবি করেছে সংবাদ মাধ্যম কোয়ার্টজ।

চলতি বছরের শুরু থেকেই অ্যান্ড্রয়েড ফোনগুলো নিকটবর্তী সেলুলার টাওয়ারগুলোর তথ্য সংগ্রহ করছে এবং গুগলের কাছে সেই তথ্যগুলো জমা দিচ্ছে।
কোয়ার্টজের দাবী অনুসারে, সবসময়ই হ্যান্ডসেটগুলো টাওয়ারের অবস্থান সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ করে জমা রাখছে এবং মোবাইলে ইন্টারনেট চালু করা মাত্র তথ্যগুলো গুগলের কাছে পৌঁছে যাচ্ছে। প্রতিটি আধুনিক মডেলের অ্যান্ড্রয়েড ফোনই এই কাজটি করে যাচ্ছে।

কোয়ার্টজের করা এই প্রতিবেদনের জের ধরে গুগলের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, বছরের শুরু থেকেই আমরা গতি বৃদ্ধি ও ম্যাসেজ ডেলিভারি দ্রুততর করতে অতিরিক্ত সিগন্যালের জন্য সেল আইডি কোড ব্যবহার করছি। তবে জমা হওয়া তথ্যগুলো সংরক্ষণ করা হচ্ছে না।

উল্লেখ্য, একটি টাওয়ারের তথ্য দিয়ে ব্যবহারকারীর অবস্থান সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য পাওয়া  যায় না। তবে একাধিক টাওয়ার থেকে তথ্য সংগ্রহ করে সহজেই জেনে নেওয়া যায় হ্যান্ডসেটটির অবস্থান কোথায়।

এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে গুগলের সেই মুখপাত্র জানান, এ ধরনের ঘটনা ভবিষ্যতে আর ঘটবে না। চলতি মাসের শেষ নাগাদ বিষয়টি সমাধানের অঙ্গীকারও করেন গুগলের ওই মুখপাত্র।

এর আগে গত অক্টোবরেই রেডিট ইউজার ফোরামের সদস্যরা গুগলের ব্যাপারে ব্যবহারকারীদেরকে সতর্ক করে দেন। তারা জানান, থার্ড পার্টি অ্যাপগুলোকে ব্যবহারকারীদের শারীরিক সক্রিয়তা সম্পর্কে জানাতে অ্যাকটিভিটি রিকগনিশন অ্যালগরিদম ব্যবহার করে থাকে। এটি অফলাইনেও ব্যবহারকারীদের গতিবিধির ওপরে নজর রাখতে সক্ষম।

ফেসবুক থেকে মন্তব্যঃ

Leave A Reply