হ্যালো রোবট কত কিছু পারে!

0

নিঃসঙ্গ বোধ করছেন? কথা বলার মতো কেউ নেই? রোবটকে যদি আপনার সঙ্গে আলাপ করতে দেওয়া হয়, তাহলে হবে? আর সে রোবটে যদি স্মার্টফোন ব্যবহারের মতো সুযোগ-সুবিধা থাকে, তাহলে?

জাপানের প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান সনি এমনই এক যোগাযোগ–সুবিধার রোবট তৈরি করেছে। এর নাম সনি এক্সপেরিয়া হ্যালো কমিউনিকেশন রোবট। এতে ব্যবহৃত হয়েছে এক্সপেরিয়া এজেন্ট অ্যাসিসট্যান্স।

এক্সপেরিয়া হ্যালোতে ব্যবহৃত হয়েছে ৪ দশমিক ৬ ইঞ্চি এলসিডি ও ক্যামেরা সেন্সর। এতে আলাদা চারটি মোশন সেন্সর ও সাতটি মাইক্রোফোন আছে। এটি ৩৪০ ডিগ্রি পর্যন্ত ঘুরতে পারে।

২০১৬ সালে মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেসে এ ডিভাইস দেখিয়েছিল সনি। শুরুতে এ রোবট জাপানে বিক্রি শুরু হবে। দাম হবে ১ হাজার ৩৫০ ডলারের মতো। রোবটটির এলসিডি প্যানেল মাল্টি টাচ সমর্থন করবে। এর ওপরের দিকে ক্যামেরা রয়েছে।

সনি কর্তৃপক্ষ বলছে, রোবটটিকে পরিবারের সদস্যদের মতোই মনে হবে। এর তিন মিটারের ভেতরে আসা বস্তুকে শনাক্ত করতে সক্ষম হবে। এর কাছাকাছি এসে কেউ কথা বললে তাকে সম্ভাষণ জানানোসহ আলাপ করতে পারবে রোবটটি। হ্যালোর শরীরের ওপরের দিকে বিশেষ লাইটযুক্ত করেছে সনি, যা এর চোখ হিসেবে কাজ করে। এটি বিভিন্ন অনুভূতি প্রকাশ করতে পারে।

রোবটিট স্কাইপ ও লাইন সমর্থন করে বলে সহজেই এটি ব্যবহার করে ভয়েস ও ভিডিও কল করা যায়।

এ ছাড়া স্মৃতি রোমন্থনের জন্য পরিবারের ছবি ও ভিডিও দেখা যাবে এতে। রোবটটি নিরাপত্তা ক্যামেরা হিসেবে ব্যবহার করে চারপাশের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা যাবে।

আমাজনের অ্যালেক্সা, অ্যাপলের সিরি ও গুগলের অ্যাসিসট্যান্টের মতো এক্সপেরিয়ার হ্যালোতে থাকা এক্সপেরিয়া এজেন্ট বিভিন্ন খবর, আবহাওয়ার তথ্য, ট্রাফিকের তথ্য সরাসরি জানাতে ও বার্তা দিতে পারবে।

সনির ভাষ্য, এক্সপেরিয়া হ্যালো অন্যদের চেয়ে আলাদা, কারণ এটি নাচতে পারে। একে নাচতে বললেই এটি নেচে দেখাবে। অ্যান্ড্রয়েড সংস্করণকে কাস্টোমাইজ করে তৈরি করা রোবটটিতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা যুক্ত হওয়ায় এটি বুদ্ধিমান সহকারী হিসেবে ঘরে রাখা যাবে।

ফেসবুক থেকে মন্তব্যঃ

Leave A Reply