পিসি হেল্পলাইন বিডি’র জন্মকথা

আজ ৪ঠা মে ২০১২

আজ থেকে একবছর আগে ২০১১ সালের এই দিনের একটি শুভ মহুর্তে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল আজকের আপনাদের পরিচিত বাংলা ব্লগ “পিসিহেল্পলাইন বিডি”

মানুষ মানুষের জন্য। জীবন চলার পথে মানুষ কথনও একা চলতে পারে না। তাই মানুষ মানুষের পাশে দাঁড়ায়। একে অপরকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়। জীবন হয় সহজ,মধুময়।

পরবর্তী মাত্র দশ মিনিট আমরা আপনাদের কাছ থেকে নিব, শুধু মাত্র পিসিহেল্পলাইন বিডি’র ইতিহাস জানানোর জন্য।

প্রতিটি জিনিসের বা প্রতিষ্ঠার পেছনে কিছু লুকানো কথা থাকে।থাকে কিছু নিরলস,ত্যাগি,নিঃস্বার্থ মানুষের অক্লান্ত পরিশ্রম।থাকে কিছু সুখ-দুঃখের স্মৃতি।
হ্যাঁ, আপনাদের সেইসব কিছু জানাতেই আমাদের এই ছোট্ট নিবেদন।

পৃথিবির সর্ববৃহত্তর সোশ্যাল নেটওয়ার্ক FACEBOOK ‘র সাথে আমরা সবাই কম বেশি জড়িত।এখানে এক নিঃস্বার্থ মানুষ, মানবিক দৃষ্টিতে নিজের উদ্যোগে  পিসি টিপস্ এন্ড ট্রিকস্  নামে একটি গ্রুপ তৈরি করেন। গ্রুপটির যাত্রা শুরু হয় ২০শে মে,২০১০ ইং তারিখে।গ্রুপটি তৈরির ব্যাপারে পড়ুন গ্রুপটির নির্মাতা সেই মানুষটির কিছু কথা।

পিসি হেল্পলাইন গ্রুপ কেন, কিভাবে তৈরী করেছিলাম-

“জীবনের দু:স্বপ্নকে ভুলতে আইটিতেই ব্যস্ত হওয়ার চেষ্ট করেছি । কিন্তু আইটিতে আমার কোন প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা নেই ।আমি ঠেকে ঠেকে নিজে নিজে শিখেছি ।এই যে আমি পিসি হেলপলাইন গ্রুপ তৈরী করেছিলাম ,এর পিছনেও ছোট একটা কারন আছে ।আমার বাবা যখন প্রথম আমাকে পিসি কিনে দেয় তখন রোজই আমার পিসি একবার নষ্ট হতো ।রোজই আমাকে টেকনিশিয়ান খুজেঁ আনতে হতো ।এভাবে ঠেকে ঠেকে শিখতে লাগলাম আমি ।একদিন একটি বাংলা ব্লগের খোজঁ পেলাম।দেখলাম সেখানে সমস্যার সমাধান লিখলে উত্তর পাওয়া যায়।কিন্তু ওখানে লেখার প্রসেসটা অনেক কঠিন লাগলো ।তখন আমার মাথায় একটা চিন্তা এলো,আমার মতো এরকম আরো অনেক মানুষ থাকতে পারে যাদের ঠেকে ঠেকে শিখতে হচ্ছে ।কিন্তু আমরা যদি একে অপরের সমস্যাগুলো শেয়ার করি তাহলে নিজেরা নিজেরাই সমাধান করতে পারবো ।তারপর ফেসবুকে একটি গ্রুপ খুললাম।কিন্তু গ্রুপে বলার মত কোন লোক পেলাম না ।প্রথম আলোর আইটি পাতায় আমি লিখতাম (এখনো লিখি)।তারপর সাহস করে প্রথম আলোয় গ্রুপের কথা লিখলাম ।এতে ব্যাপক সাড়া পেলাম এবং অনেক মেম্বার আসতে লাগলো গ্রুপে।তারপরই পিসি হেলপলাইন কে মানুষ চিনতে শুরু করল।আমি শুধু তৈরীই করেছি ,এছাড়া পিসি হেল্পলাইনের পেছনে আমার কোন অবদান নেই ।এমনকি আমার দ্বারা কারো কোন হেলপ হয়েছে বলে মনে করি না ….মানুষের ভালোবাসা এবং সদস্যদের হেলপফুল মনমানসিকতাই পিসি হেলপলাইনের এগিয়ে যাওয়ার কারন”

প্রথম আলোতে এই গ্রুপটির কথা আইটি পাতায় ছাপানো হয়  গ্রুপটি তৈরির তিন দিন পর।

এখানে  ক্লিক করে পড়ে নিন সেই দিনের সেই লেখাটি।
এরপর পিসি টিপস্ এন্ড ট্রিকস্ নামে একটি পেজ তৈরি করেন।

এখানে  ক্লিক করে প্রথম আলোর পাতায় দেখে আসুন।

কিছুদিন পর এই পিসি টিপস্ এন্ড ট্রিকস্ গ্রুপে কিছু সমস্যা দেখা দেয়।

সমস্যাটা হল : দেখা গেছে টিপস্ এন্ড ট্রিকস্ এর গ্রুপে বেশি পোষ্ট হয় পিসি সমস্যা নিয়ে। টিপস্ এন্ড ট্রিকস্ এর গ্রুপে, যদি সমস্যা এবং টিপস এর পোষ্ট একসাথে লেখা হয় তবে অনেক গুরুত্বপূর্ণ লেখা হারিয়ে যায়। একারণে যাত্রা শুরু হয় “পিসি হেল্পলাইন” নামের নতুন আরেকটি গ্রুপের। এই গ্রুপকে নিয়ে ও দুইবার লেখা হয় প্রথম আলোর আইটি পাতায়।
নিচে ক্লিক করে পড়ে নিন সেই দিনের সেই লেখাগুলো।
লিংক১
লিংক২

পিসি হেল্পলাইন ফেসবুকের এমন একটি গ্রুপ যেখানে  একদম নতুন পিসি ব্যবহারকারীর যেকোন প্রশ্নের উত্তর দেয়া সহ তাকে গাইড লাইন দেয়া হয়।এখানে যেমন সেই সকল নবীন তরুন উদিয়মান পিসি ব্যবহারকারীর অতি সাধারন সমস্যার সমাধান দেয়া হয় তেমনি যেকোন এ্যাডভান্স ব্যবহারকারীও এর সাহায্য নিয়ে থাকেন এবং সাথে সাথে এ্যাডভান্স লেবেলের সাহায্য দিয়ে থাকেন এর সম্মানিত মেম্বাররা।

নিবেদিত প্রান সদস্য অনেকেই আছেন। কিন্তু তারা আড়ালেই থাকতেই বেশি পছন্দ করেন। তবে এখানে যারা পিসি হেলপলাইনের সূচনা করেছিলেন   তাদের সবারই  ঘটনা কিন্তু একটাই।এরা সবাই প্রথমে একটু একটু করে হেলপ করতো পিসি হেল্পলাইন গ্রুপে। তবে এখানের কেউ ১০০% এক্সপার্ট নয়।শিখার রাস্তায় তারা এখনও হাঁটছেন  এবং  নিয়মিত সমাধান দেয়ার চেষ্টা করেন পিসি হেল্পলাইন গ্রুপে।এরা সবাই অন্য সবার মতই সাধারন মানুষ।নিজ নিজ পেশার বাহিরে এখানে নি:স্বার্থ ও নিরলস ভাবে সময় দিয়ে অন্যের জন্য পরিশ্রম করছেন।দিন রাত পালা বদল করে দিচ্ছেন হাজার হাজার সমস্যার সমাধান।

একটা মজার বিষয় হচ্ছে, সিনিয়রদের মাঝে বেশ কয়েকজন দেশের বাহিরে থাকেন।অন্যরা বাংলাদেশেই থাকেন। দেখা যায় অনেকেই রাতের সময় বেশি থাকেন ফেসবুকে।তাই সমস্যা পোষ্ট হয় রাতেই বেশি ।সমাধানকারীরা ঘুমাচ্ছেন।কিন্তু না অন্যদেশের এক্সপার্টরা জেগে আছেন।আসলে এভাবে পালা বদলের ব্যাপারে কিভাবে যেন সবার সাথে মিলে যেত সময় টা। পিসি হেল্পলাইন গ্রুপ বনে যায় ফেসবুকের সর্বাধিক একটিভ একটি গ্রুপে।যেখানে প্রতিদিন ৫০+ পোষ্ট থাকে।সাথে আছে ২০+ টিপস্।

ওদিকে নিজের জানা টিপসগুলো শেয়ার করতেন পিসি টিপস এন্ড ট্রিকস গ্রুপে।

আপনার মনে হয়তো প্রশ্ন উঠবে যে ফেসবুকের একটি গ্রুপের সাথে একটি ব্লগ সাইটের কি সম্পর্ক???কিন্তু এর সম্পর্ক যে অত্যন্ত নিবিড়।

আমরা যদি অন্যান্য বাংলা ব্লগের দিকে তাকাই তবে দেথবো যে ঐ সকল ব্লগ আগে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। তারপর প্রচারনা হিসেবে তৈরী করেছে বিভিন্ন ফেসবুক সহ অন্যান্য সাইটের বিভিন্ন কিছু।কিন্তু একমাত্র এই পিসিহেলপলাইন ব্লগ তৈরী করা হয়েছে সেই ফেসবুক গ্রুপ পিসি হেল্পলাইন কে সম্পুর্নতা দানের জন্য। তাহলে দেখুন কিভাবে তা পূর্ণতা পেল :

ফেসবুকের সেই গ্রুপে কোন মেম্বার কোন সমস্যা লিখলে অন্যান্য মেম্বাররা চাইত হেলপ করতে। তারা তা বিভিন্ন ভাবে (কমেন্ট করে, লিংক দিয়ে, সফটওয়্যারের লিংক দিয়ে) করত। এই হেলপ করতে করতে একটা নতুন সমস্যার তৈরী হল। তা হল অনেক কিছু আছে যা ফেসবুকের এত ছোট কমেন্ট করে বুঝানো সম্ভবপর হয়ে ওঠে না।সত্যিকার অর্থে দেখা যায় যে, একজনের একটি সমস্যার পোষ্টে সমাধান দিতে যেয়ে অনেক কিছু লিখে বুঝাতে হয়। নাহলে ভাল ভাবে বুঝেনা অনেকেই।যদি এই সমস্যার জন্য একটি পোস্ট আগে থেকেই করা থাকে সেই ক্ষেত্রে একটি পোস্ট দ্বারা অনেকজন কে খুব সহজভাবে বুঝানো সম্ভব।তাই তখন শুরু হলো বিভিন্ন বাংলা ব্লগ (blogspot) এর লিংক শেয়ার করা।যার মাধ্যমে মেম্বাররা অনেকেই উপকৃত হওয়া শুরু করল।

কিন্তু আবার নতুন একটি সমস্যা তৈরী হলো। যে লিংটা দেয়া হল, তা ধরুন একটি বাংলা ব্লগের। এখন ঐ লিংকে দেখা গেছে যে অনেক কিছু ভুল ছিল। ছিল সফটওয়্যারের লিংকে সমস্যা। আবার দেখা গেছে যে এই সকল ব্লগারদের লিংক গুলোতে একজন আরেকজনের লেখাকে নিজের নামে চালিয়ে দেয়। যা পিসি হেলপলাইনের কথনওই কাম্য নয়।কারণ আপনি অনেক কষ্ট করে একটি পোস্ট লিখেছেন দিন রাত খেটে। সেটা আরেকজন নিজের নামে চালিয়ে দিলো ।কেমন লাগে তখন বলেন?

গ্রুপের এ্যাডমিনের কাছে আসতে লাগলো এ ধরনের হাজারও কমপ্লেইন। কিন্তু ফেসবুক গ্রুপের ঐ এ্যাডমিন তো নিরুপায়। কারন সে তো আর সেই সকল ব্লগের লেখক দের কোন জবাবদিহিতা নিতে পারে না। তারপর সবচেয়ে যে খারাপ দিক, তা হল লিংকে ক্লিক করে ঐ ব্লগসাইটগুলোতে যাবার পর দেখা গেল সেই ব্লগে রয়েছে আবার এ্যাডান্ট কন্টেন্ট। তাহলে, এর কি কোন সমাধান নাই?????

এই সকল হাজার সমস্যার সমাধানসরূপ এবং একটি প্রতিবাদী আওয়াজ নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় নিজেদের একটি সাইট খোলা হবে। যেখানে থাকবেনা কোন কপি পেস্ট বা চুরি করা লেখা। যেখানে তৈরি হবে আসল লেখক। যেখান থেকে মানুষ সত্যিকার ভাবেই আইটি নিয়ে আসল লেখকদের লেখা পাবেন। নিজেও হয়ে যাবেন একজন সৎ লেখক।সেই লক্ষ্যেই  তৈরী করা হয়েছে বাংলাদেশের বর্তমানের অন্যতম জনপ্রিয় বাংলা ব্লগ “পিসি হেল্পলাইন বিডি”আসুন জেনে নিই এই ব্লগ সেই সকল সমস্যার সমাধানসরূপ কি করছে:

*১*    ফেসবুক গ্রুপের নিত্যনতুন যেসকল সমস্যা সমাধান চাওয়া হচ্ছে তার বিস্তারিত বর্ননা সহজ ভারে চিত্র দিয়ে উপস্থাপন করা হচ্ছে।

*২*    ব্লগের লেখকদের লেখা, নিয়মিত সময়ের অন্তর অন্তর নতুন ভাবে পর্যালোচনা করা হচ্ছে।

*৩*   দেখা গেছে যে একজন লেখক একটি সফটওয়্যার নিয়ে লিখলো। মিডিয়াফায়ারে আপলোড করে লিংক দিলো। মিডিয়া ফায়ার আবার কপিরাইট আইনের কারনে সেই সফটওয়্যারটা ডিলেট করলো। কিন্তু পিসি হেলপলাইনের কিছু নিবেদিত প্রান ভিজিটর কাম মনিটরিং সদস্যা আছেন যারা এই সকল পোস্টের ব্যাপারে এ্যাডমিন কে জানান। এবং এ্যাডমিন কোন প্রকার দেরি ছাড়াই ঐ সকল লিংককে নতুন ভাবে সফটওয়্যার আপলোড করে লিংক দিয়ে থাকেন। এতে যেমন পাঠকের হয়রানি দূর হয় তেমনি লেখকের সম্মানও অক্ষুন্ন থাকে। এটাই হলো অন্যান্য ব্লগের থেকে এই ব্লগের পার্থক্য।

*৪*    নিয়মিত বিভিন্ন পোস্টে যে সকল সফটওয়্যার দেয়া হয় তার কাযর্কারীতা পরিক্ষা করা হয়। এই জন্য ব্লগে আছেন কিছু নিবেদিত প্রান সফটওয়্যার টেস্টিং সদস্য।

*৫*    এর প্রতিটি পোস্টের সকল কমেন্ট নিয়মিত পরিক্ষা করা হয়। প্রতিটি পোস্টের মত প্রতিটি কমেন্টকেও আমরা শ্রদ্ধা করি।

*৬*   এই ব্লগের কেউ যদি ইচ্ছে করে কোন ভুল ইনফরমেশন দেয়, বা কোন অবৈধ কিছু শিখায় তবে তাকে সতর্ক করা হয়। এবং যদি তাতে সেই লেখকের কোন পরির্তন না হয় তবে তাকে সোজাসুজি ব্যান করা হয়। কারন আমরা বিশ্বাস করি ”দুষ্ট গরুর চেয়ে শুন্য গোয়াল অনেক ভাল”।

*৭*    এই ব্লগ তৈরী করছে একটি জাগরনী শক্তি, যার ফলে সক্ষম হয়েছে কিছু নবীন, তরুন আইটি লেখকদের আবির্ভাব ঘটাতে।

“পিসি হেল্পলাইন বিডি” এখন আর কোন নাম নয়। তা এখন পরিনত হয়েছে বাংলাদেশের লাখ লাখ প্রযুক্তিপ্রেমী মানুষের একটি ব্রান্ডে। যার স্লোগান হল “…নিজে জানুন,অন্যকে জানান”

এখন তার জানানোর বিষয় শুধু মাত্র আইটি নিয়েই সীমাবদ্ধ নেই। চলুন পরিচিত হওয়া যাক তার কিছু সহযোগী গ্রুপ,পেজ,বিভাগ এর সাখে।

ইসলাম ধর্মকে ভাল ভাবে জানতে, এবং এর বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সুন্দর ভাবে সাজানো হয়েছে “ইসলাম ও আমরা”

নবীন এবং পুরাতন লেখকদের সুপ্ত সাহিত্য প্রতিভা বিকাশে এর আছে “দশদিগন্ত”

untitled 1111111111

আছে স্বাস্থ্য তথ্য নিয়ে স্বাস্থ্য বিষয়ক লেখা যাতে আপনিও লিখতে পারেন 

নতুন নতুন টিপস জানতে চান ? শেয়ার করতে চান আপনার জানা টিপস ? আপনার জানা আইটি বিষয়ক টিপস শেয়ার করতে পারেন আমাদের PC TIPS AND TRICKS  ফেসবুক গ্রুপে।

আপনার ফেসবুকের সময়কে আনন্দময় এবং সুন্দর করার জন্য আমাদের রয়েছে আরো কিছু সহযোগী গ্রুপ।যেখান থেকে আপনি হেল্পের পাশাপাশি নির্মল আনন্দ পাবেন ।আসুন পরিচিত হয়ে নিই আমাদের সহযোগী গ্রুপের সাথে।

ISLAM

ইসলামের চিরন্তন বানীসমূহ পড়তে চাইলে অবশ্যই গ্রুপে যোগ দিবেন-  ইসলাম ও আমরা – Islam and Us – الإسلام وبنا

আপনার জন্য ফেসবুকে রয়েছে আমাদের ফ্যান পেজ-

PC HELPLINE BD BLOG FAN

ধন্যবাদ “পিসি হেল্পলাইন বিডি” এর সাথে থাকার জন্য ।সবাই ভালো থাকুন।

কর্তৃপক্ষ

পিসি হেল্পলাইন বিডি বাংলাদেশ

…নিজে জানুন, অন্যকে জানান ।

বি:দ্র: গত ২২শে এপ্রিল ১২ কিছু মানুষরুপী পশুর দ্বারা আপনাদের এই ব্লগ সার্ভার হ্যাক এর শিকার হয়। এর ফলে পিসিহেল্পলাইন বিডি সাময়িক ভাবে হারায় তার কিছু প্রিয় লেখক ও তাদের লেখা। একটি নন প্রফিটেবল বাংলা ব্লগ সাইট, কারও দ্বারা হ্যাক হতে পারে তা কখনও কেউ কল্পনা করতে পারে নি। তাই পিসিহেল্পলাইন বিডি এখন থেকে সবরকম প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করেছে। আর কখনও হারাতে চায় না তার প্রানপ্রিয় লেখকদেরকে। যারা এই দুর্যোগের সময় পিসিহেল্পলাইন বিডি’র পাশে থেকেছেন, তাদের সবাই জানাই মনের অন্ত:স্থল থেকে অকৃত্রিম ভালবাসা। আশাকরি ভবিষ্যতে সকলেই এই ভাবে পাশে থাকবেন, সবসময়।

পিসিহেল্পলাইন বিডি’র এই জন্মদিনে আপনাদের সকলকেই জানাই প্রাণঢালা শুভেচ্ছা।

ফেসবুক থেকে মন্তব্যঃ

Comments are closed.